ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৩ ডিসেম্বর ২০১৮, ২৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

মিয়ানমারের বিচার চাইলেন আসিয়ানের ১৩২ এমপি

বিশ্বজুড়ে ডেস্ক 
প্রকাশিত: ২৪ আগস্ট ২০১৮ শুক্রবার, ০৮:৫৩ পিএম
মিয়ানমারের বিচার চাইলেন আসিয়ানের ১৩২ এমপি

দক্ষিণ-পূর্ব এশীয় দেশগুলোর জোট আসিয়ানের ১৩২ জন সংসদ সদস্য এক বিবৃতিতে আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতে (আইসিসি) মিয়ানমারের সেনা সদস্যদের বিচার দাবি করেছেন। রোহিঙ্গাদের ওপর হত্যাযজ্ঞ চালানোর এক বছর অতিবাহিত হলেও কোনো বিচারের আওতায় মিয়ানমারকে না আনায় এই দাবি জানানো হয়েছে। আজ শুক্রবার ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম গার্ডিয়ান এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে।

ওই প্রতিবেদনে বলা হয়, ইন্দোনেশিয়া, মালয়েশিয়া, ফিলিপাইন, সিঙ্গাপুর, পূর্ব তিমুরের ১৩২ এমপিসহ দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার সংগঠন আসিয়ানের ২২ জন সদস্য এক যৌথ বিবৃতিতে আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতকে (আইসিসি) এ বিষয়ে জানাতে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদকে আহ্বান জানান। আগামীকাল শনিবার মিয়ানমারের রাখাইনে রোহিঙ্গা নির্যাতনের এক বছর পূর্ণ হওয়া থেকেই এমন দাবি জানানো হয়েছে।

এসময় অ্যাসোসিয়েট প্রফেশনালস ফর হিউমেন রিসোর্সের (এপিএইচআর) চেয়ারপারসন এবং মালয়েশিয়ার সংসদ সদস্য চার্লস সান্তিয়াগো বলেন, ‘মিয়ানমারে রোহিঙ্গা নাগরিকদের ওপর সেনাবাহিনীর নির্যাতনের আজ এক বছর হয়ে গেছে। কিন্তু এত দিনেও আমরা এই নৃশংসতার বিচার দেখতে পাইনি। যেহেতু মিয়ানমার নিজেদের ব্যাপারে তদন্ত করতে পারে না এবং তারা চায়ও না, আমরা এখন এমন অবস্থায় আছি যেখানে আন্তর্জাতিক মহলকে অবশ্যই বিচার নিশ্চিত করতে হবে।’

সান্তিয়াগো আরো বলেন, ‘জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদকে আহ্বান জানাতে আমি আমার ১৩১ সহকর্মীর পাশে দাঁড়িয়েছি। যারাই এই নৃশংসতার সঙ্গে জড়িত, তাদের আমরা এর পুনরাবৃত্তি ঘটাতে দিতে পারি না। তাদের অবশ্যই শাস্তির আওতায় আনতে হবে।’

ইন্দোনেশিয়ার পার্লামেন্ট মেম্বার ও এপিএইচআর সদস্য ইভা কুসমা সুন্দরী বলেন, আসিয়ান দেশগুলোর এখন সময় হয়েছে গঠনমূলক ভূমিকা পালন করার। যে পদক্ষেপগুলো সত্যিই কাজে আসবে। রোহিঙ্গাদের সুবিচার পাওয়ার অধিকার এখন আর নির্দিষ্ট কোনো ভৌগলিক পরিমণ্ডলে সীমাবদ্ধ নেই।

গত বছরের ২৫ আগস্ট রোহিঙ্গাদের ওপর এই নৃশংস হামলা চালায় মিয়ানমার সেনাবাহিনী। জীবন বাঁচাতে কয়েক লাখ রোহিঙ্গা পালিয়ে আসে বাংলাদেশে। আগামীকাল এক বছর হয়ে গেলেও রোহিঙ্গা শরণার্থীদের পুনর্বাসন বা বিচার নিশ্চিত করার কোনো অগ্রগতি নেই মিয়ানমার সরকারের।


বাংলা ইনসাইডার/বিপি