ঢাকা, বুধবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮ , ৪ আশ্বিন ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

প্যারিসে আবার ছুরি হামলা

বিশ্বজুড়ে ডেস্ক 
প্রকাশিত: ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৮ সোমবার, ১২:৪৭ পিএম
প্যারিসে আবার ছুরি হামলা

ফ্রান্সের প্যারিসে ছুরি ও লোহার রড নিয়ে হামলার ঘটনা ঘটেছে। এতে অন্তত ৭ জন আহত হয়েছে। এদের মধ্যে চার জনের আঘাত গুরুতর বলে জানিয়েছে স্থানীয় পুলিশ। বিবিসি এ তথ্য নিশ্চিত করেছে।

স্থানীয় কয়েকটি সংবাদমাধ্যমের তথ্য অনুযায়ী, আহতদের মধ্যে দুজন ব্রিটিশ পর্যটক রয়েছেন। যাদের আক্রমণ করা হয়েছে তারা সবাই হামলাকারীর অপরিচিত বলে জানা গেছে।

বিবিসির প্রতিবেদনে বলে হয়েছে, স্থানীয় সময় রোববার রাত ১১টার একটু আগে এ হামলার ঘটনা ঘটে। হামলাকারীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তিনি আফগানিস্তানের নাগরিক হতে পারেন বলে জানিয়েছে পুলিশ। এটি সন্ত্রাসবাদী হামলা কিনা তা এখনো নিশ্চিতভাবে জানা যায়নি।

কে দ্যা লুয়া এলাকায় এমকে-টু সিনেমা হলের কাছে হামলাকারী প্রথমে দুজন পুরুষ ও এক নারীকে ছুরিকাঘাত করে। তাকে থামানোর জন্য কয়েক ব্যক্তি তার দিকে বল ছুরে মারে। শরীরে বলের আঘাত লাগার পর সে পালিয়ে যায় বলে কয়েকটি প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে। এই ঘটনার পর হেনরি নওগেন্স স্ট্রিটে দুই ব্রিটিশ পর্যটকের ওপর আক্রমণ করে ওই হামলাকারী।

এর আগে চলতি বছরের মে মাসে প্যারিসে এক ব্যক্তি ছুরি দিয়ে হামলা চালায়। এতে একজন নিহত এবং অন্তত চারজন আহত হয়। হামলাকারীও পুলিশের গুলিতে নিহত হয়। জঙ্গি সংগঠন ইসলামিক স্টেট ওই হামলার দায় স্বীকার করে।

গত বছর এপ্রিলে ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের ঠিক আগেই প্যারিসে আরেকটি সন্ত্রাসী হামলার ঘটনা ঘটে। আততায়ী অটোম্যাটিক বন্দুক নিয়ে পুলিশের উদ্দেশ্যে গুলি চালাতে শুরু করে৷ এতে এক পুলিশকর্মী নিহত ও ৩ জন আহত হয়। এরপর সে পালানোর চেষ্টা করলে পুলিশের গুলিতে তার মৃত্যু হয়। ইসলামিক স্টেট ওই হামলারও দায় স্বীকার করেছিল।

২০১৬’তে দক্ষিণাঞ্চলীয় নিস শহরে একটি উৎসবে জড়ো হওয়া জনতার ওপর ট্রাক চালিয়ে দেয় এক ব্যক্তি। ওই ঘটনায় শিশুসহ অন্তত ৮৪ জন নিহত হয়। আহত হয়েছে শতাধিক ব্যক্তি। পুলিশের গুলিতে ট্রাকচালক নিহত হয়েছেন।

সাম্প্রতিক বছরগুলোতে প্যারিসে সবচেয়ে বড় সন্ত্রাসী হামলার ঘটনা ঘটে ২০১৫ এর নভেম্বরে। শহরের কয়েকটি স্থানে একযোগে ওই হামলা চালানো হয়। এর মধ্যে একটি কনসার্ট হলে গুলিবর্ষণে নিহত হন অন্তত ৮৭ জন। স্টেডিয়াম ও রেস্তোরাঁসহ পাঁচটি স্থানে বোমা ও গুলিতে মারা যান আরও ৪০ জনের মতো। তিনটি স্থানে হামলাকারী আটজনের সবাই মারা যায় বলে জানায় স্থানীয় প্রশাসন।

বাংলা ইনসাইডার/এএইচসি/এসএইচটি