ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৫ এপ্রিল ২০১৯, ১২ বৈশাখ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

মায়া-মমতায় ম্লান প্রিয়াঙ্কার আলো?

বিশ্বজুড়ে ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ শুক্রবার, ০১:২১ পিএম
মায়া-মমতায় ম্লান প্রিয়াঙ্কার আলো?

ভারতের জাতীয় নির্বাচনের মাস দুয়েক আগে কংগ্রেসে যোগ দিয়ে রাজনীতির ময়দানের পুরো আলোটাই কেড়ে নিয়েছিলেন প্রিয়াঙ্কা গান্ধী। ইন্দিরা গান্ধীর নাতনি মোদিকে কুপোকাত করে নতুন ইন্দিরা হতে পারবেন কিনা এই নিয়েই সরব ছিল রাজনৈতিক অঙ্গন। কিন্তু দিন দশেক না পেরোতেই পশ্চিমবঙ্গের মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় আর উত্তর প্রদেশের মায়াবতীর তেজে যেন ম্লান হতে বসেছেন প্রিয়াঙ্কা।

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সরকারের বিরুদ্ধে টানা তিন দিনের অবস্থান ধর্মঘটে বসে ভারতের রাজনীতির একেবারে কেন্দ্রে চলে এসেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। নির্বাচনের মাঠে মোদি বিরোধী সব দলগুলোকে এক ছাতার নিচে নিয়ে আসার কৃতিত্বও ছিল তার। সামনে দিল্লীতে গিয়ে ধর্নায় বসারও ঘোষণা দিয়ে রেখেছেন দিদি। নির্বাচনকে সামনে রেখে মোদির বিরুদ্ধে যেন মোক্ষম তোপটি দাগালেন তিনি। অন্যদিকে উত্তর প্রদেশের মায়াবতী ক্ষমতাসীন বিজেপি সরকারকে তীব্র বাক্যবাণে জর্জরিত করেই যাচ্ছেন। কিন্তু মায়া আর মমতার তুলনায় প্রিয়াঙ্কা যেন অনেকটাই নীরব।

দুর্নীতি মামলার আসামি স্বামী রবার্ট ভদ্রকে আর্থিক তদন্ত সংস্থার অফিসে পৌঁছে দিয়ে কিছুটা আলোচনার সৃষ্টি করেছেন প্রিয়াঙ্কা। তবে তা যেন একটু নেতিবাচকই মনে হচ্ছে অনেকের কাছে। প্রিয়াঙ্কা সংবাদ মাধ্যমকে জানিয়েছেন, স্বামীর সঙ্গে এসে তিনি এই বার্তাই দিতে চেয়েছেন যে তিনি সব সময় স্বামীর পাশেই রয়েছেন।

রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের একটি অংশ বলছেন, প্রিয়াঙ্কার এই পদক্ষেপ তার অবস্থান পরিস্কার করেছে। বিজেপি রবার্টের দুর্নীতির মামলা নিয়ে নির্বাচনী যুদ্ধে কংগ্রেসকে অস্বস্তিতে ফেলতে চেয়েছিল। কিন্তু প্রিয়াঙ্কা কোনো ছল-চাতুরির আশ্রয় না নিয়ে রবার্টের পাশে থেকে নিজের দৃঢ়তার প্রমাণ দিয়েছেন।

তবে প্রশ্ন থেকেই যাচ্ছে। মোদিকে হটানোর মোক্ষম অস্ত্র হিসেবে প্রিয়াঙ্কাকে সক্রিয় রাজনীতিতে এনেছিল কংগ্রেস। কিন্তু এরপর বেশ কয়েকটি দিন পেরিয়ে গেলেও প্রিয়াঙ্কা এখনো মোদির বিরুদ্ধে তেমন কোনো তোপ দাগাতে পারেননি। অন্যদিকে মায়াবতী আর মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় প্রবল পরাক্রমে যুদ্ধের ময়দানে নেমে পড়েছেন। তবে কি রাজনীতিতে নবীন প্রিয়াঙ্কা মায়া-মমতার তেজেই ঢাকা পরে থাকবেন? নাকি মোদিকে হটাতে নতুন কোনো ব্রহ্মাস্ত্র নিয়ে হাজির হয়ে তিনি প্রমাণ করে দেবেন যে, রক্তে যার রাজনীতি তার অভিজ্ঞতার দরকার হয় না?

বাংলা ইনসাইডার/এএইচসি/এমআর