ঢাকা, শুক্রবার, ২৭ নভেম্বর ২০২০, ১৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

ব্যাটলগ্রাউন্ড দখলে নিতে মরিয়া ট্রাম্প-বাইডেন

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ৩০ অক্টোবর ২০২০ শুক্রবার, ১০:৫৭ এএম
ব্যাটলগ্রাউন্ড দখলে নিতে মরিয়া ট্রাম্প-বাইডেন

মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের বাকী আর মাত্র ৪ দিন। শেষ মুহূর্তে এসে ‘ব্যাটলগ্রাউন্ড’ বা `প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ স্থান` দখলে নিতে মরিয়া হয়ে উঠেছেন প্রতিদ্বন্দ্বিতাকারী দুই প্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাম্প ও জো বাইডেন। প্রতিনিয়ত এসব রাজ্য চষে বেড়াচ্ছেন তারা। সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ‘ব্যাটলগ্রাউন্ড’-গুলোতে প্রায় প্রতিদিনই ঝটিকা সফরে যাচ্ছেন ডোনাল্ড ট্রাম্প ও জো বাইডেন।
হোয়াইট হাউজের টিকিট পাওয়ার লড়াইয়ে কেউ-ই দোদুল্যমান রাজ্যগুলো হাতছাড়া করতে চাইছেন না। ফলে তুমুল প্রতিযোগিতাপূর্ণ অঙ্গরাজ্যগুলোতে চলছে জোরালো প্রচার। দুই প্রধান প্রার্থীর নির্বাচনী সফর পরিকল্পনায় বোঝা যায় আলাদা করে বিভিন্ন রাজ্যে প্রতিদ্বন্দ্বিতার গুরুত্ব।

গোটা দেশে ট্রাম্পের চেয়ে ৭ থেকে ৯ শতাংশ পয়েন্টে এগিয়ে আছেন বাইডেন। তবে নির্বাচনের ফলের অর্ধেকটাই নির্ভর করছে তুমূল প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ অঙ্গরাজ্যগুলো ঠিক কোন দিকে যায় তার ওপর। ট্রাম্প মধ্য পশ্চিমাঞ্চলের তিনটি রাজ্য মিশিগান, উইসকনসিন এবং নেব্রাস্কায় যাচ্ছেন, যেখানে তিনি ২০১৬ সালে ডেমোক্র্যাট প্রার্থী হিলারি ক্লিনটনকে পরাস্ত করেছিলেন। দ্বিতীয় মেয়াদের জন্য এই ভোট সুরক্ষিত রাখতে তিনি চেষ্টা চালাচ্ছেন। তবে জরিপে দেখা যাচ্ছে যে, ট্রাম্প মিশিগান ও উইসকনসিনে পিছিয়ে আছেন। অবশ্য নির্ভরযোগ্য রিপাবলিকান রাজ্য নেব্রাস্কায় তিনি এগিয়ে আছেন।

এদিকে ভোটের দিন যত ঘনিয়ে আসছে ততই আত্মবিশ্বাসী হয়ে উঠছেন বাইডেন। খানিকটা আক্রমণাত্মক অবস্থানে রয়েছেন তিনি। দক্ষিণের জর্জিয়া অঙ্গরাজ্যের দুই জায়গায় প্রচার অভিযান চালাচ্ছেন বাইডেন। ১৯৯২ সালের পর জর্জিয়ায় ডেমোক্র্যাটরা জয়লাভ করেনি। জরিপে দেখা যাচ্ছে, ওই রাজ্যের ১৬টি ইলেক্টরাল কলেজ ভোট পাবার জন্য বাইডেন ও ট্রাম্পের অবস্থান প্রায় একই স্থানে।

নিয়ম অনুযাযী, যে রাজ্যে যে প্রার্থী সবচেয়ে বেশি ভোট পান সেই রাজ্যের সবকটি ইলেক্টরাল ভোট তিনিই জিতে নেন। ফলে ৫৩৮ সদস্য বিশিষ্ট ইলেক্টরাল কলেজের সংখ্যাগরিষ্ঠ সংখ্যক ২৭০টি ভোট পাবার জন্য ট্রাম্প ও বাইডেন উভয়ই উন্মুখ হয়ে আছেন।

আগাম ভোটের বিষয়ে রিপাবলিকানদের তুলনায় ডেমোক্র্যাটদের মধ্যে আগ্রহ বেশি। ব্যাটলগ্রাউন্ড হিসেবে পরিচিত পাঁচটি সুইং স্টেটে রিপাবলিকানদের চেয়ে প্রায় ২০ লাখ বেশি ডেমোক্র্যাট ভোট দিয়েছেন। ২০১৬ সালে যে পেনসিলভানিয়া অঙ্গরাজ্যে অল্প ব্যবধানে জয় পেয়েছিলেন ট্রাম্প, এবার সেখানে পড়া আগাম ভোটে অনেক এগিয়ে ডেমোক্র্যাটরা।অঙ্গরাজ্যটিতে যতসংখ্যক রিপাবলিকান আগাম ভোট দিয়েছেন, তার তিনগুণ দিয়েছেন ডেমোক্র্যাটরা।

রিপাবলিকান অঙ্গরাজ্য হিসেবে পরিচিত টেক্সাসেও এবার প্রচুর আগাম ভোট পড়েছে। ২০১৬ সালে অঙ্গরাজ্যটিতে পড়া মোট ভোটের ৮০ শতাংশের বেশি এরই মধ্যে দেওয়া হয়ে গেছে। আর অ্যারিজোনা, ফ্লোরিডা, জর্জিয়া, নেভাদা ও নর্থ ক্যারোলাইনায় পড়েছে গত নির্বাচনে পড়া মোট ভোটের ৬০ শতাংশের বেশি।

সুইং স্টেটগুলোয় ২০১৬ সালে পড়া মোট ভোটের হিসাবে ফ্লোরিডায় ৬৩, নর্থ ক্যারোলাইনায় ৬৭, ওহাইওতে ৩৯, মিশিগানে ৪৩, পেনসিলভানিয়ায় ২৮, অ্যারিজোনায় ৬০, উইসকনসিনে ৪৫ ও আইওয়ায় ৪৮ শতাংশ ভোট পড়েছে। এ ছাড়া গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গরাজ্য হিসেবে বিবেচিত জর্জিয়ায় ৬৬, মিনেসোটায় ৪০, নেভাদায় ৬৬ ও টেক্সাসে ৮২ শতাংশ ভোট এরই মধ্যে পড়েছে।

করোনার কারণে প্রথমবারের মতো আগাম ভোটের সুযোগ দেওয়া অঙ্গরাজ্যগুলোর মধ্যে নিউইয়র্ক অন্যতম। এ অঙ্গরাজ্যে এরই মধ্যে ৪ লাখ ২২ হাজার ভোট পড়েছে, যা ২০১৬ সালে পড়া মোট ভোটের ৫ শতাংশ। অঙ্গরাজ্যটিতে মাত্রই আগাম ভোট শুরু হয়েছে, চলবে ১ অক্টোবর পর্যন্ত। ফলে নিউইয়র্কের মতো অঙ্গরাজ্যগুলোয় আরো বহু আগাম ভোট পড়বে বলে মনে করা হচ্ছে।

বিশেষত ডেমোক্র্যাট হিসেবে পরিচিত অঙ্গরাজ্যগুলোয় আগাম ভোট পড়ার হার বেশি। বিপরীতে ট্রাম্পের প্রতি সমর্থন বেশি এমন অঙ্গরাজ্যগুলোয় আগাম ভোট পড়ার হার কম।