ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ০৪ মার্চ ২০২১, ২০ ফাল্গুন ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

মার্কিন প্রেসিডেন্টের অভিষেক অনুষ্ঠান কাল

রিয়া
প্রকাশিত: ১৯ জানুয়ারি ২০২১ মঙ্গলবার, ০৯:৫২ এএম
মার্কিন প্রেসিডেন্টের অভিষেক অনুষ্ঠান কাল

২০২১ সালের ২০ জানুয়ারি, বুধবার। দিনটি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে স্মরণীয় হতে যাচ্ছে ৪৬তম প্রেসিডেন্টের অভিষেক অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে। শপথ নিতে যাচ্ছেন নবনির্বাচিত মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। 

নিয়ম অনুযায়ী, ২০ জানুয়ারি দুপুরে শপথ নেয়ার মধ্য দিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের ৪৬তম প্রেসিডেন্ট হিসেবে অভিষিক্ত হবেন তিনি। চার বছর আগে ২০১৭ সালের ২০ জানুয়ারি অভিষিক্ত হয়েছিলেন বিদায় নিতে যাওয়া প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। 

বাইডেনের শপথ অনুষ্ঠানে আয়োজনের কমতি থাকছে না। এরইমধ্যে সবকিছু ঠিক হয়ে গেছে। নিজেকেও যথাসাধ্য প্রস্তুত করে নিচ্ছেন এই অভিজ্ঞ রাজনীতিক। কি পরবেন সেদিন, সবকিছুই হবে পরিকল্পনা মাফিক।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট হিসেবে শপথ নেয়ার সময় জো বাইডেন বিখ্যাত ব্র্যান্ড রালফ লোরেনের স্যুট পরবেন বলে জানা গেছে। ৭৮ বছর বয়সী বাইডেন ফ্যাশনসচেতন হিসেবে পরিচিত। তিনি যে রালফ লোরেনের স্যুট পরে শপথ নেবেন, এমন তথ্য জানিয়েছে ওম্যান’স ওয়ার ডেইলি নামের যুক্তরাষ্ট্রের বিখ্যাত ফ্যাশন সংবাদ সাময়িকী। দেশটির বিখ্যাত ডিজাইনারদের সমন্বয়ে বাইডেনের শপথ অনুষ্ঠানের স্যুট তৈরি করা হয়েছে। সিঙ্গেল ব্রেস্টেড স্যুটটি হবে দুই বোতামের। বাইডেনের পরনে গাঢ় নীল রঙের স্যুটের সঙ্গে থাকবে হালকা নীল রঙের শার্ট। 

বাইডেনের শপথ অনুষ্ঠানে থাকছে সংগীতায়োজনও। গাইবেন লেডি গাগা, লোপেজসহ আরও অনেকে।

যুক্তরাষ্ট্রের নবনির্বাচিত প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের অভিষেক অনুষ্ঠানে দেখানো হবে দেশটিতে করোনার টিকা পাওয়া প্রথম ব্যক্তি নিউইয়র্কের স্যান্ড্রা লিন্ডসেকে। তিনি নিউইয়র্কের কুইন্সে লং আইল্যান্ড জুইশ মেডিকেল সেন্টারের নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রের (আইসিইউ) নার্স। 

নিউইয়র্ক পোস্টের এক রিপোর্ট বলছে, বাইডেনের অভিষেক অনুষ্ঠানের প্রাইম টাইমে স্যান্ড্রা লিন্ডসেকে নিয়ে টেলিভিশনে ‘সেলিব্রেটিং আমেরিকা’ শিরোনামে বিশেষ অনুষ্ঠান হবে। এটি মূলত দেশটিতে ভ্যাকসিন নেয়ার সচেতনতার জন্য। 

১৭ জানুয়ারি বাইডেনের অভিষেক কমিটি হ্যাশট্যাগ দিয়ে টুইট বার্তায় জানায়, ‘অভিষেক অনুষ্ঠান এমনভাবে সাজানো হয়েছে, যার কোনো কিছুই আপনি মিস করতে চাইবেন না।’ 

এদিকে, হামলার শঙ্কা খতিয়ে দেখছে দেশটির গোয়েন্দা সংস্থাগুলো। ৬ জানুয়ারি ক্যাপিটল হিলে হামলায় ৬ জন নিহত হওয়ার বিষয়টি মার্কিনীদের কাছে ন্যাক্কারজনক ঘটনা। এ ঘটনা বাইডেনের দিকে সব পক্ষের মোড় ঘুরিয়ে দেয়। ফলে প্রশাসন থেবে শুরু করে, আইন শৃঙ্খলা রক্ষাবাহিনী এমনকি ৫০টি রাজ্যের মেয়ররাও নিজস্ব স্টাইলে নিরাপত্তার প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছেন। শুধুমাত্র ওয়াশিংটনে ২০ হাজার সৈন্য মোতায়েন থাকছে। অন্যবাহিনীর সদস্যরা তো আছেই। রাস্তার মোড়ে মোড়ে চেকপোস্ট। পুরো নগরী নিশ্চিছিদ্র নিরাপত্তার চাদরে ঢাকা। দূর থেকে শপথ অনুষ্ঠান দেখারও আহ্বান জানানো হয়েছে যেনো বিশৃঙ্খলা সষ্টি না হয়।

কড়া নিরাপত্তার মধ্যেও ট্রাম্প সমর্থকরা হামলা করতে পারেন, এমন শঙ্কা উড়িয়ে দিচ্ছে না এফবিআই। তাই আগেভাগেই সর্বোচ্চ সতর্ক থাকার চেষ্টা ন্যাশনাল গার্ডের। 

বাইডেনের শপথ সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন হলেই ৩ নভেম্বরের নির্বাচন বৈধতা পাবে, বিদায়ী প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের নানা টাল বাহানার পরও। অনেক রিপাবলিকানও এখন চাইছেন ভালভাবেই সম্পন্ন হোক বাইডেনের শপথ অনুষ্ঠান। বিশ্বে আধিপত্যকারী মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের হাতেই পরবর্তী বিশ্ব রাজনীতির অনেক কিছুই নির্ভর করছে। তাই ক্ষ্যাপাটে ট্রাম্প নয়, বাইডেনকে নিয়ে অনেকটা আশাবাদি বিশ্ব নেতারাও।