ঢাকা, শনিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১০ আশ্বিন ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

ইসমাইল হানিয়া: পশ্চিমাদের কাছে যিনি শুধুই সন্ত্রাসী

বিশ্বজুড়ে ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৪ আগস্ট ২০২১ বুধবার, ০৯:০২ পিএম
ইসমাইল হানিয়া: পশ্চিমাদের কাছে যিনি শুধুই সন্ত্রাসী

ইসমাইল হানিয়া। মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প একবার তাকে “বিশেষ ট্যাগযুক্ত বৈশ্বিক সন্ত্রাসী” বলে উল্লেখ্য করেছিলেন। তাকে বহুবার বহুজন হত্যাও করতে চেয়েছিলেন কিন্তু প্রতিবারেই তিনি কোন না কোনভাবে শেষ মুহূর্তে প্রাণে বেঁচে ফিরেছেন। যাদের মাঝে ছিলো ইসরায়েলি বাহিনী কিংবা তার রাজনৈতিক প্রতিদ্বন্দ্বী ফাতাহ। এত কিছুর পরেও তাকে কেও দমাতে পারে নি। পশ্চিমারা তাকে সন্ত্রাসী হিসেবে আখ্যায়িত করলেও সমগ্র ফিলিস্তিনে তিনি মহানায়ক। 

ইসমাইল হানিয়ার জন্ম ১৯৬২ সালে, ফিলিস্তিনের গাজা উপত্যকার একটি শরণার্থী ক্যাম্পে। হানিয়ার বাবা মাছ ধরার পেশায় যুক্ত ছিলেন। আরব–ইসরায়েল যুদ্ধে ঘর হারিয়ে তিনি শরণার্থীশিবিরে পরিবার নিয়ে ওঠেন। সেখানেই জন্ম হয় হানিয়ার। পরে ইসলামিক ইউনিভার্সিটি অব গাজায় আরবি সাহিত্যে পড়াশোনা করেন তিনি। ছাত্রাবস্থায় মুসলিম ব্রাদারহুডের মতাদর্শ হানিয়াকে আকৃষ্ট করে।

সময়টা ২০১৬ সাল। মধ্যপ্রাচ্যে ইসরায়েল ও ফিলিস্তিনের মধ্যে চরম উত্তেজনা চলছে। এর মধ্যেই ইসরায়েলের কট্টরপন্থী রাজনৈতিক আভিগদর লিবারম্যান হুঁশিয়ারি দেন, ‘আমি যদি ইসরায়েলের প্রতিরক্ষামন্ত্রী হই, তাহলে ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে ইসমাইল হানিয়ার মৃত্যু নিশ্চিত করা হবে।’ এই হুঁশিয়ারির এক মাসের মাথায় লিবারম্যান সত্যি সত্যি ইসরায়েলের প্রতিরক্ষামন্ত্রীর দায়িত্ব নেন। তবে হানিয়াকে হত্যার হুঁশিয়ারি বাস্তবায়ন করতে পারেননি।

লিবারম্যানের হুঁশিয়ারির পরের বছরই হানিয়া ফিলিস্তিনি সংগঠন হামাসের প্রধান হিসেবে খালেদ মিশেলের স্থলাভিষিক্ত হন। এই হামাস ফিলিস্তিনিদের চোখে স্বাধীনতাকামী সংগঠন আর পশ্চিমাদের কাছে সন্ত্রাসী সংগঠন। চলতি সপ্তাহের শুরুতে হামাসের প্রধান হিসেবে দ্বিতীয় মেয়াদের জন্য পুনর্নির্বাচিত হয়েছেন হানিয়া। এর মধ্য দিয়ে হামাস ও ফিলিস্তিনের রাজনীতিতে তাঁর প্রভাব ও নিয়ন্ত্রণ আরও মজবুত হয়েছে বলে মনে করছেন বিশ্লেষকেরা।

১৯৮৭–৮৮ সালেই হানিয়া হামাসের সঙ্গে যুক্ত হন। এরপর দীর্ঘদিন জেল খাটা, লেবাননে নির্বাসন, সেখান থেকে ফিরে এসে আবার হামাসের পতাকাতলে যুক্ত হন তিনি। ১৯৯৭ সালে হামাসের তখনকার প্রধান আহমেদ ইয়াসিনের সহযোগী মনোনীত হন। সাংগঠনিক দক্ষতা দিয়ে ফিলিস্তিনি, তথা গাজাবাসীর মনে নায়কের স্থান করে নিতে দেরি হয়নি তাঁর। প্রমাণ, ২০০৬ সালের জানুয়ারিতে ফিলিস্তিনে সাধারণ নির্বাচন। এই নির্বাচনে হানিয়ার হাত ধরে বিপুল সংখ্যাগরিষ্ঠতা পায় হামাস। মাহমুদ আব্বাসের নেতৃত্বাধীন বিভক্ত ফাতাহ দলের বিপরীতে জয় পায় তাঁর দল।

ভোটে জিতে ওই বছরের মার্চে ফিলিস্তিনের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ নেন হানিয়া। কিন্তু হামাস–ফাতাহের রাজনৈতিক দ্বন্দ্বে গাজায় উত্তেজনা বাড়ে। ডিসেম্বরে হানিয়ার ওপর হামলা হয়। অল্পের জন্য প্রাণে বেঁচে যান তিনি। হামাস দাবি করে, এই হামলায় ফাতাহ জড়িত। ২০০৭ সালের জুনে হানিয়া সরকারকে বরখাস্ত করেন প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আব্বাস। তবে হানিয়া এই সিদ্ধান্ত মেনে নেননি। ফাতাহকে হটিয়ে গাজার নিয়ন্ত্রণ নেয় হামাস।

ফিলিস্তিনি লেখক ও রাজনীতি বিশ্লেষক হুসাম আন–দাজানি বলেন, ‘গাজার রাজনীতিতে ভারসাম্য এনেছেন হানিয়া। তিনি একজন সহানুভূতিশীল মানুষ, যিনি শান্তি, ঐক্য ও স্থিলিশীলতা সমর্থন করেন।’

হানিয়ার উত্থান ও গাজায় হামাসের নিয়ন্ত্রণ ভালো চোখে দেখেনি পশ্চিমারা। যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ) হামাসকে সন্ত্রাসী সংগঠন হিসেবে ঘোষণা দেয়। এর মধ্যেই হানিয়ার হাত ধরে ইসরায়েলের সঙ্গে কয়েক দফা সংঘাতে জড়ায় হামাস। দূরত্ব বাড়ে পশ্চিমাদের সঙ্গেও। তবে পশ্চিম তীর ও গাজা উপত্যকায় হামাসের প্রভাব রয়ে যায়। সংগঠনে প্রভাব বাড়ে হানিয়ার।

২০১৩ সালের এপ্রিলে হানিয়া হামাসের উপপ্রধান হন। এরপর হামাসের প্রধান হিসেবে ইসমাইল হানিয়া ২০১৭ সালের ৬ মে খালেদ মিশেলের স্থলাভিষিক্ত হন। ২০১৮ সালে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প হানিয়াকে ‘বিশেষ ট্যাগযুক্ত বৈশ্বিক সন্ত্রাসী’ হিসেবে ঘোষণা দেন। হানিয়াকে বেশ কয়েকবার হত্যার চেষ্টা হয়েছে। অভিযোগ রয়েছে, হানিয়াকে হত্যাচেষ্টার ঘটনাগুলোর পেছনে যেমন ইসরায়েল জড়িত, তেমনি জড়িত ফাতাহ।

ব্যক্তিগত জীবনে হানিয়া ১৩ সন্তানের জনক। তাঁর পরিবার ২০০৯ সাল পর্যন্ত গাজার উত্তরাঞ্চলের আল–শাতি শরণার্থীশিবিরে ছিল। এর পর গাজার রিমাল এলাকায় জমি কিনে থিতু হয় হানিয়া পরিবার। তবে হানিয়া কখন কোথায় থাকেন, সেটার সুষ্পষ্ট তথ্য পাওয়া কঠিন। মনে করা হয়, নিরাপত্তার জন্য তিনি তাঁর অবস্থানের কথা আগাম জানান না।

ফিলিস্তিনের প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পরপরই ২০০৬ সালে প্রথম বিদেশ সফরে তিনি ইরানে গিয়েছিলেন। ওই সময় ইসরায়েল সম্পর্কে তিনি বলেন, ‘আমরা কখনোই দখলদার ইহুদি সরকারকে স্বীকৃতি দেব না। জেরুজালেম মুক্ত করার আগপর্যন্ত সংগ্রাম চালিয়ে যাব।’

আল–কায়েদার প্রতিষ্ঠাতা ওসামা বিন লাদেনকে ‘আরব বিশ্বের পবিত্র যোদ্ধা’ মনে করতেন হানিয়া। ২০১১ সালে পাকিস্তানের মাটিতে মার্কিন সেনাদের গোপন অভিযানে নিহত হন লাদেন। এর প্রতিক্রিয়ায় হানিয়া বলেন, ‘আরব বিশ্বের পবিত্র একজন যোদ্ধাকে হত্যা করেছে যুক্তরাষ্ট্র। আমরা এর তীব্র নিন্দা জানাই।’

২০১৯ সালের ডিসেম্বরে হানিয়া তুরস্ক সফরে গিয়ে দেশটির প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোয়ানের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন। হামাসের প্রধান হওয়ার পর এটাই ছিল তাঁর প্রথম বিদেশ সফর। গত বছরের জানুয়ারিতে ইরানের ইসলামিক রেভল্যুশনারি গার্ডসের কমান্ডার কাসেম সুলেইমানির দাফন অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন হানিয়া। এ সময় তিনি সুলেইমানিকে ‘দেশপ্রেমিক’ বলে অভিহিত করেন। ইরাকের মাটিতে মার্কিন বাহিনীর হামলায় নিহত হন সুলেইমানি।

জেল কিংবা একাধিক হামলায় হানিয়াকে দমানো সম্ভব হয়নি। অনেকের মতে, তিনি ফিলিস্তিনিদের মুক্তির দূত। দেশি–বিদেশি বাধার মুখেও এক দশকের বেশি সময় গাজার নিয়ন্ত্রণ ধরে রেখেছেন তিনি। ইসরায়েলের বিরুদ্ধে ফিলিস্তিনিদের মুক্তির সংগ্রাম চালিয়ে যাচ্ছেন। গড়ে তুলেছেন হামাসের সশস্ত্র বাহিনী। হামাসের রাজনৈতিক শাখার ভিত্তি মজবুত করেছেন। ইরান, তুরস্ক, লেবাননের হিজবুল্লাহর মতো মিত্রদের কাছে নিজের গ্রহণযোগ্যতা ধরে রেখেছেন।

গাজায় স্বঘোষিত সরকার চালাচ্ছেন হানিয়া। যদিও জাতিসংঘসহ আন্তর্জাতিক মহলে তাঁর সরকারের স্বীকৃতি নেই। তাদের কাছে প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আব্বাসের সরকারই ফিলিস্তিনের বৈধ কর্তৃপক্ষ। এই বিষয়ে গাজার রাজনীতি বিশ্লেষক ইব্রাহিম মাধৌন বলেন, ‘আগামী দিনগুলোয় হানিয়াকে মিসর, কাতার ও সৌদি আরবের সঙ্গে সম্পর্ক জোরদারে কাজ করতে হবে।’ বিশ্লেষকদের মতে, বৈশ্বিক স্বীকৃতি আদায়ই হানিয়ার জন্য সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ।

গত মে মাসে গাজায় টানা ১১ দিনের ইসরায়েলি হামলায় আড়াই শতাধিক মানুষ নিহত হয়। বিধ্বস্ত হয় গুরুত্বপূর্ণ অনেক অবকাঠামো। হামাসের প্রধান হিসেবে দ্বিতীয় মেয়াদে দায়িত্ব নেওয়া হানিয়াকে এই অবকাঠামো উন্নয়ন ও অর্থনৈতিক বিকাশ নিশ্চিত করতে বাড়তি মনোযোগ দিতে হবে। সেখানকার বিপুল পরিমাণ কর্মহীন তরুণদের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করতে হবে। তা না হলে অভ্যন্তরীণ চাপ বাড়বে হানিয়ার ওপর। এর সঙ্গে রয়েছে ইসরায়েলের হুমকি ও আগ্রাসনের আশঙ্কাও।