ঢাকা, সোমবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৩ আশ্বিন ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

‘চিকিৎসকদের থাকা নিয়ে সংকট কেটে যাচ্ছে’

অর্চি হক
প্রকাশিত: ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২০ মঙ্গলবার, ০৩:৫৯ পিএম
‘চিকিৎসকদের থাকা নিয়ে সংকট কেটে যাচ্ছে’

স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের (স্বাচিপ) সভাপতি ও করোনাবিষয়ক জাতীয় কারিগরি পরামর্শক কমিটির সদস্য অধ্যাপক ডা. এম. ইকবাল আর্সলান বলেছেন, কোভিড-১৯ আক্রান্ত রোগীদের সেবায় নিয়োজিত চিকিৎসক এবং স্বাস্থ্যকর্মীদের আবাসন ব্যবস্থা নিয়ে এক ধরনের সংকট চলছিল। তারা নানা ভোগান্তির মধ্যে পড়ছিলেন। তাদের পরিবারের সদস্যরা কোভিড-১৯ এ আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকিতে ছিলেন। এ বিষয়গুলো নিয়ে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে আমাদের আলোচনা হয়েছে। এই সংকট খুব দ্রুতই কেটে যাবে বলে আমরা আশা করছি। বাংলা ইনসাইডারের সঙ্গে একান্ত আলাপচারিতায় এসব কথা বলেন ডা. ইকবাল আর্সলান।

তিনি বলেন, করোনা সংক্রমণের শুরুতেই স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় কোভিড-১৯ আক্রান্ত রোগীদের সেবায় নিয়োজিত চিকিৎসক এবং স্বাস্থ্যকর্মীদের আবাসন, পরিবহন এবং তাদের খাওয়া-দাওয়ার ব্যবস্থা করেছিল। বিভিন্ন হোটেল তাদের জন্য বরাদ্দ করা হয়েছিল। কিন্তু কিছুদিন পর সরকার দেখলো যে, হোটেলে আবাসন ব্যবস্থা অনেক ব্যয়বহুল হয়ে যাচ্ছে। এই অর্থসংকুলান করা সরকারের জন্য কষ্টসাধ্য হচ্ছে। চিকিৎসকদের এই আবাসন ব্যবস্থার ব্যয় নিয়ে নানা প্রশ্নও উঠেছে। কিন্তু কোভিড চিকিৎসায় নিয়োজিত চিকিৎসক এবং স্বাস্থ্যকর্মীদের আইসোলেশনের জন্যে অবশ্যই তাদের একটা আবাসনের ব্যবস্থা থাকা প্রয়োজন।

চিকিৎসকদের আবাসন সুবিধা দেওয়ার ব্যাপারে নিজেদের অবস্থান জানিয়ে এই চিকিৎসক নেতা বলেন, কোনো পাঁচ তারকা বা চার তারকা হোটেল চিকিৎসকদের থাকার জন্য বরাদ্দ করতে হবে এমন দাবি কখনই আমাদের ছিল না। প্রথম থেকেই আমাদের বক্তব্য হচ্ছে, সরকার তার ব্যবস্থাপনায় চিকিৎসক এবং স্বাস্থ্যকর্মীদের আইসোলেশনের ব্যবস্থা করুক, যাতে তাদের পরিবারের সদস্যরা সংক্রমণের ঝুঁকিমুক্ত থাকে। গণপরিবহনে যারা চলাচল করবে তাদের নিরাপত্তা বিধানের জন্যে সরকারি ব্যবস্থাপনায় তাদের আবাসনের ব্যবস্থা করাটা প্রয়োজন। শুরু থেকেই আমরা শুধু এগুলোই বলে এসেছি। একটা পর্যায়ে চিকিৎসকদের জন্য হোটেল বরাদ্দ করা হলো। এরপর আবার সরকার সিদ্ধান্ত ছিল যে, চিকিৎসক এবং স্বাস্থ্যকর্মীদের নিজ দায়িত্বে থাকার ব্যবস্থা করতে হবে। এ ব্যাপারে একটা প্রজ্ঞাপনও জারি করা হয়েছিল। সঙ্গত কারণেই এই প্রজ্ঞাপনটা নিয়ে আমাদের নেতিবাচক মনোভাব ছিল। করোনা বিষয়ক জাতীয় টেকনিক্যাল পরামর্শক কমিটিরও পরামর্শ ছিল যে, এই আবাসনের ব্যাপারে সরকার নিজ উদ্যোগে ব্যবস্থপনা করতে পারে। কেন্দ্রীয়ভাবে এটা করা উচিৎ। এ বিষয়গুলো নিয়েই স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সাথে আমাদের আলোচনা হয়েছে।

ডা. আর্সলান বলেন, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সচিব মহোদয়ের সভাপতিত্বে গতকাল বৈঠকে বসেছিলাম আমরা। তারা একমত হয়েছেন যে, সরকারি ব্যবস্থাপনায় চিকিৎসক এবং স্বাস্থ্যসেবাকর্মীদের আবাসনের ব্যবস্থা করা হবে। সেই আবাসনস্থল থেকে তাদেরকে তাদের কর্মস্থলে আনা নেওয়ার ব্যবস্থাপনা এবং তাদের খাবারের ব্যবস্থাপনা সবকিছুই মন্ত্রণালয় কেন্দ্রীয়ভাবে করবে। আমরা মনে করি, এটা যদি করা হয়, তাহলে সমস্ত সমস্যার সমাধান হবে। এটা সরকারের দিক থেকেও ভালো হবে। কারণ সরকারিভাবে এই ব্যবস্থাপনা করা হলে এখানে কোনো দ্বিতীয় বা তৃতীয় পক্ষ থাকবে না। ফলে চিকিৎসকদের আবাসন সুবিধা দেওয়ার ক্ষেত্রে যে প্রশ্ন উঠেছিল সেসব প্রশ্নেরও আর কোনো অবকাশ থাকবে না। অন্যদিকে চিকিৎসক এবং স্বাস্থ্যকর্মীরাও নিশ্চিন্তে তাদের সেবা কার্যক্রম পরিচালনা করতে সক্ষম হবেন। সুতরাং আমরা বলতে পারছি যে, সংকট কেটে যাবে। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় আমাদের সঙ্গে একমত হয়েছে। চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মীদের আবাসন ব্যবস্থা মন্ত্রণালয় নিজ দায়িত্বে করবে। সুতরাং চিকিৎসকদের থাকা নিয়ে সংকট কেটে যাচ্ছে বলেই মনে করছি আমরা।