ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৩ এপ্রিল ২০২১, ২৯ চৈত্র ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

‘প্রধানমন্ত্রীর রাগ পদ্মা সেতুতে ঝেরেছেন ড. ইউনূস’

জুয়েল খান
প্রকাশিত: ১২ ডিসেম্বর ২০২০ শনিবার, ০৩:৫৯ পিএম
‘প্রধানমন্ত্রীর রাগ পদ্মা সেতুতে ঝেরেছেন ড. ইউনূস’

পদ্মাসেতু প্রকল্পের শুরুতে দুর্নীতির অভিযোগ ওঠায় বিশ্ব ব্যাংক অর্থায়ন করা থেকে সরে দাঁড়ায়। সেই পরিস্থিতি সামাল দিয়ে শেখ হাসিনার সরকার নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতু করার ঘোষণা দেয়। পদ্মাসেতু এখন দৃশ্যমান। অভিযোগ আছে ড. ইউনূস পদ্মা সেতুর অর্থায়ন বন্ধের নেপথ্যে ভূমিকা রেখেছিলেন। পদ্মাসেতু প্রকল্পে বিরোধীতাকারী ড. ইউনূসকে নিয়ে মন্তব্য করলেন প্রধানমন্ত্রীর সাবেক স্বাস্থ্যবিষয়ক উপদেষ্টা ও বাংলাদেশ মেডিক্যাল রিসার্চ কাউন্সিল (বিএমআরসি’র) চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. সৈয়দ মোদাচ্ছের আলী। বাংলা ইনসাইডারের সঙ্গে একান্ত  সাক্ষাৎকারে এ প্রসঙ্গে তিনি কথা বলেন। সাক্ষাৎকার নিয়েছেন বাংলা ইনসাইডারের নিজস্ব প্রতিবেদক জুয়েল খান।

পদ্মাসেতু প্রকল্পে দাতা সংস্থার অর্থায়ন বন্ধে ড. ইউনূসসহ কিছু গণমাধ্যমের ভূমিকা ছিলো বলে সব মহলে আলোচিত। এই ঘটনার সত্যতা কতটুকু জানতে চাইলে ডা. সৈয়দ মোদাচ্ছের আলী বলেন, এই কথা শতভাগ সঠিক। ড. ইউনূস দেশের স্বার্থের কথা না ভেবে পদ্মাসেতু প্রকল্পে দুর্নীতির অভিযোগ তুলে বিভিন্ন মহলে লবিং করে বিষয়টা সামনে নিয়ে আসে। যেখানে কাজ শুরু হয়নি সেখানে দুর্নীতির প্রশ্নই আসে না। ড. ইউনূসের মূল ক্ষোভ ছিলো বয়স বেশি হওয়ার কারণে তাকে যখন গ্রামীণ ব্যাংকের দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দেয়ার সিদ্ধান্ত হয় তখন তিনি সরকারকে চাপে রেখে গ্রামীণ ব্যাংকের দায়িত্ব পাওয়ার জন্য মনগড়া কাহিনী তৈরি করে যে পদ্মা সেতু প্রকল্পে দুর্নীতি হয়েছে। আর এই ষড়যন্ত্রের সাথে যুক্ত হয় দেশের কিছু গণমাধ্যমে।

পদ্মা সেতুতে যদি কোনো দুর্নীতি নাই হয় তাহলে বিশ্ব ব্যাংকসহ এনজিওগুলো অর্থায়ন থেকে সরে দাঁড়ালো কেন জানতে প্রধানমন্ত্রীর এই সাবেক উপদেষ্টা বলেন, ড. ইউনূস বিদেশে লেখাপড়া করেছেন এবং পশ্চিমা বিশ্বে তার একটা লবিং গ্রুফ আছে যারা তাকে আশ্রয়-প্রশ্রয় দেয় নিজেদের এজেন্ডা বাস্তবায়নের জন্য। আর সেই মহলটাই ড. ইউনূসের ষড়যন্ত্রের সাথে যুক্ত হয়ে পদ্মাসেতু প্রকল্পে দুর্নীতি হয়েছে বিশ্বব্যাপী একটা লবিং চালিয়েছে। ড. ইউনূস যা করেছেন সেটা কোনোভাবেই গ্রহণযোগ্য নয়। প্রধানমন্ত্রীর ওপরে তার রাগ ছিলো সেই রাগ ঝেরেছেন পদ্মা সেতুর ওপরে।

ড. ইউনূস নোবেল পুরষ্কার পেয়ে বাংলাদেশের মুখ উজ্জ্বল করেছেন কিন্তু তাকে বাংলাদেশে সমাদর করা হয় না এমন অভিযোগ আছে বিভিন্ন মহলে। এ বিষয়ে আপনার মতামত কী জানতে চাইলে তিনি বলেন, মীর জাফর তখনকার বাংলার স্বাধীনতার বিরুদ্ধে যে কাজ করেছিলো, বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করে মোশতাক যে কাজ করেছিলো, ড. ইউনূস পদ্মা সেতুর বিরোধীতা করে পুরো জাতির সাথে বিশ্বাসঘাতকতা করেছেন। সুতরাং বাংলাদেশের নতুন মোশতাক হচ্ছেন ড. ইউনূস। তিনি যদি বাংলাদেশের মানুষের ভালো চাইতেন তাহলে জাতীয় ইস্যুতে ভূমিকা রাখতেন। তিনি ভূমিকা রাখেন বিশ্বব্যাপী বাংলাদেশের ভাবমূর্তি নষ্ট করতে। বাংলাদেশের বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক সযত্নের মূল নায়ক ড. ইউনূস। তবে সরকার নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতু নির্মাণ করে দেখিয়ে দিয়েছে বাংলাদেশ পারে।