ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৯ জানুয়ারি ২০২১, ৬ মাঘ ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

‘বঙ্গবন্ধু স্বদেশে ফেরার পরেই বিজয়ের পূর্ণতা পেয়েছিলো বাঙালি’

জুয়েল খান
প্রকাশিত: ১০ জানুয়ারি ২০২১ রবিবার, ০৩:৫৮ পিএম
‘বঙ্গবন্ধু স্বদেশে ফেরার পরেই বিজয়ের পূর্ণতা পেয়েছিলো বাঙালি’

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য ড. আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক বলেছেন, যার জন্য ১৬ ডিসেম্বর বাংলাদেশ স্বাধীন হলো সেদিন তিনি পাকিস্তানের জেলে। বাংলাদেশ স্বাধীন হলো কিন্তু দেশের মানুষের মধ্যে তখন শতভাগ বিজয় আনন্দ ছিলো না। তখনও অপেক্ষা ও উৎকণ্ঠা কাজ করছিলো। বঙ্গবন্ধু যখন স্বদেশের মাটিতে পা রাখলেন তখন থেকেই বিজয়ের উল্লাসে মেতে উঠেছিলো বাঙালি।

ড. আরেফিন সিদ্দিক বলেন, বঙ্গবন্ধু কোথায় আছেন, কি অবস্থায় আছেন সেই খবর পাওয়া যাচ্ছিলো না। যার কারণে ১৬ ডিসেম্বর ১৯৭১ সালে বঙ্গবন্ধুকে ছাড়া বিজয়ের আনন্দ ভোগ করতে পারছিলো না দেশের মানুষ।বঙ্গবন্ধুকে পাওয়ার ব্যাকূল আকাঙ্খা ছিলো সবার মাঝে। ৪টা জানুয়ারি ১৯৭২ সালে প্রথম খবর পাওয়া গেলো যে পাকিস্তানের প্রেসিডেন্ট জুলফিকার আলী ভুট্ট বঙ্গবন্ধুর সাথে দেখা করেছেন। এই ধরনের একটা খবর আসলো কিন্তু জোড়ালো কোনো খবর পাওয়া যাচ্ছিলো না কারণ পাকিস্তান সরকার এ ধরনের খবর বাইরে প্রকাশ করেনি। এর দুই একদিন পর আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে খবর আসলো যে বঙ্গবন্ধুকে মুক্তি দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে পাকিস্তান সরকার। ৮ই জানুয়ারি একটা অসমর্থিত খবরে জানা গেলো বঙ্গবন্ধুকে পাকিস্তান থেকে একটি বিমানে তুলে দেয়া হয়েছে কিন্তু বিমানটি কোন গন্তব্যে যাবে তা কেউ বলতে পারছিলো না। অবশেষে জানা গেলো লন্ডনের হিথ্রো বিমান বন্দরে গিয়ে নেমেছেন বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে। তারপর আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম খবর দিতে লাগলো বঙ্গবন্ধুর ছবিসহ।

তিনি কলেন, ১০ জানুয়ারি। ১৯৭২ সালের এইদিনে পাকিস্তানের কারাগার থেকে মুক্তিলাভ করে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সদ্য স্বাধীন বাংলাদেশের মাটিতে পা রাখেন। বঙ্গবন্ধু রেসকোর্স ময়দান থেকে ভাষণ দিয়ে বাংলাদেশের স্বাধীনতার ঘোষণা দিয়েছিলেন ঠিক সেখানে এসেই স্বাধীন বাংলাদেশে প্রথম পা রাখার পর ভাষণ দিলেন বঙ্গবন্ধু। সেদিন তিনি ভাষণে বলেছিলেন যারা স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় বাংলাদেশের বিরোধীতা করেছিলো এখনও তারা বাংলাদেশে আছে এবং বাংলাদেশ নিয়ে তাদের ষড়যন্ত্র এখনও চলমান। তাদের ষড়যন্ত্রের বিরুদ্ধে আমাদের সতর্ক থাকতে হবে।

এপর ১১ জানুয়ারি তিনি গণতান্ত্রিক আদেশ ১৯৭২ জারি করলেন। গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারর প্রথম রাষ্ট্রপতি হিসেবে দেশের দায়িত্বভার নিয়েছে। তার আগে তিনি ২ বার মন্ত্রিসভার সদস্যদের নিয়ে বৈঠক করলেন। সেখানেই সিদ্ধান্ত হলো কীভাবে তিনি বাংলাদেশ পরিচালনা করবেন। দীর্ঘ কারাবাস শেষে দেশের এসে পরিবারকে সময় দেয়ার পুসরত পেলেন না বঙ্গবন্ধু। ১২ জানুয়ারি সকালে বাংলাদেশের প্রথম প্রধান বিচারপতি আবু সায়েমকে দায়িত্ব দেন। বঙ্গবন্ধুর দীর্ঘ সংগ্রাম এবং ত্যাগের কারণে বাংলাদেশ যখন একটা অবস্থানে যাচ্ছিলো ঠিক তখন একদল জঘণ্য ব্যক্তিরা ১৯৭৫ সালের ১৫ আগষ্ট বঙ্গবন্ধু শেখ মুুজিবুর রহমানকে স্বপরিবারে হত্যা করে। এরপর বাংলাদেশের দীর্ঘ পথচলা।