ঢাকা, শনিবার, ০৬ মার্চ ২০২১, ২২ ফাল্গুন ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

‘কাদের মির্জার ব্যাপারে দলীয়ভাবে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে’

জুয়েল খান
প্রকাশিত: ২২ ফেব্রুয়ারি ২০২১ সোমবার, ০৩:৫৮ পিএম
‘কাদের মির্জার ব্যাপারে দলীয়ভাবে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে’

আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য আব্দুর রহমান বলেছেন, কাদের মির্জার বক্তব্য ও কর্মকাণ্ডে আওয়ামী লীগ বিব্রত। তার ব্যাপারে দলীয়ভাবে আলাপ-আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।

নোয়াখালীর বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আবদুল কাদের মির্জার লাগামহীন কথাবার্তা ও আওয়ামী লীগের দলীয় শৃঙ্খলার বিভিন্ন দিক নিয়ে বাংলা ইনসাইডারের সঙ্গে একান্ত আলাপচারিতায় এসব কথা বলেছেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য আব্দুর রহমান। পাঠকদের জন্য আব্দুর রহমানের সাক্ষাৎকার নিয়েছেন বাংলা ইনসাইডারের নিজস্ব প্রতিবেদক জুয়েল খান। 

বিভিন্ন মহলে কথা উঠেছে যে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের ভাই বলেই তাকে নিয়ন্ত্রণ করা যাচ্ছে না। এ বিষয়ে আব্দুর রহমান বলেন, দলেও উর্ধ্বে কেউ নয়। একজন মানুষ যদি ধরেই নেন যে তাকে বোঝানো যাবে না তাহলে তাকে কীভাবে বোঝানো যায়?। আর এই কারণে তিনি লাগামহীন কথাবার্তা বলেই চলেছেন।

কাদের মির্জার এই ধরনের কর্মকাণ্ডে আওয়ামী লীগের ভাবমূর্তিতে প্রভাব পড়েনি জানিয়ে তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ অনেক বড় দল এবং লাখো নেতাকর্মী রয়েছেন কিন্তু সবার বক্তব্যই আওয়ামী লীগের দলীয় বক্তব্য হতে পারে না। বিক্ষিপ্তভাবে যারা অতিরঞ্জিত কথা বলছেন সেসব কথার দ্বায় আওয়ামী লীগ নেবে না। এগুলো তাদের ব্যক্তিগত বিষয় এবং এর দ্বায় তাদেরই নিতে হবে।

কাদের মির্জার বিষয়ে আওয়ামী লীগের দলীয়ভাবে কোনো সিদ্ধান্ত নেয়া হবে কি না জানতে চাইলে এই সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য বলেন, কাদের মির্জার বিষয়ে দলীয় ফোরামে আলাপ-আলোচনা করে ব্যবস্থা নেয়া হবে। বিষয়টি নিয়ে আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ হাসিনা যে সিদ্ধান্ত দেবেন সেই সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। তবে আওয়ামী লীগ দলীয় শৃঙ্খলায় বিশ্বাসী একটি রাজনৈতিক দল এবং দলীয় শৃঙ্খলা রক্ষায় আমাদের সাংগঠনিক কার্যক্রম চলমান।

আবদুর রহমান বলেন, সবাইকে অনুরোধ করবো কেউ যেন কোনো অবস্থাতেই দলের মধ্যে কাদা ছোড়াছুড়ি না করে দলীয় শৃঙ্খলা মেনে আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে থাকেন। কারও যদি কোনো কিছু বলার থাকে তাহলে দলীয় ফোরামে বলতে পারেন। আওয়ামী লীগ দলীয় গণতন্ত্রে বিশ্বাসী এবং দলীয় ফোরামে সবারই কথা বলার সুযোগ আছে। কিন্তু তা না করে রাস্তা-ঘাট, সামজিক মাধ্যমে বা জনসভায় দলীয় শৃঙ্খলা বহির্ভূত কথা বলা থেকে বিরত থাকুন।