ঢাকা, শনিবার, ০৬ মার্চ ২০২১, ২২ ফাল্গুন ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

‘চালকদের বেপরোয়া আচরণে সড়ক আবার অনিরাপদ হচ্ছে’

জুয়েল খান
প্রকাশিত: ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২১ মঙ্গলবার, ০৪:০০ পিএম
‘চালকদের বেপরোয়া আচরণে সড়ক আবার অনিরাপদ হচ্ছে’

নিরাপদ সড়ক চাই (নিসচা)-এর চেয়ারম্যান ও চিত্রনায়ক ইলিয়াস কাঞ্চন বলেছেন, পরিবহন নেতাদের বিভিন্ন বক্তব্য ও সমর্থনের কারণে চালকরা আবার বেপরোয়া হয়ে উঠছে। আর এ কারণে বর্তমান সড়ক দুর্ঘটনা ও প্রাণহানি দুটোই বাড়ছে।

করোনা পরিস্থিতিতে সড়কের নিরাপত্তা এবং সড়ক দুর্ঘটনার বিভিন্ন দিক নিয়ে বাংলা ইনসাইডারের সঙ্গে একান্ত আলাপচারিতায় এসব কথা বলেছেন ইলিয়াস কাঞ্চন। পাঠকদের জন্য ইলিয়াস কাঞ্চনের সাক্ষাৎকার নিয়েছেন বাংলা ইনসাইডারের নিজস্ব প্রতিবেদক জুয়েল খান।

ইলিয়াস কাঞ্চন বলেন, পরিবহন নেতারা গাড়ি চালকদেরকে সড়ক আইনের বিষয়ে বিভ্রান্তিমূলক কথাবার্তা বলে সড়ক আইনের প্রতি অশ্রদ্ধাশীল করে তুলছেন। আর এসব কারণে এই আইন না মানতে উৎসাহিত হচ্ছেন চালকরা। এভাবে বেপরোয়াভাবে গাড়ি চালাতে থাকলে মানুষের চলাচলের জন্য সড়ক আবার অনিরাপদ হয়ে উঠবে। যদিও সরকার নিরাপদ সড়ক আইন করে মানুষের মধ্যে স্বস্তি এনে দিয়েছিলো কিন্তু পরিবহন নেতারা সেই আইন নিয়েও সমালোচনা করছেন। আর পরিবহন নেতাদের সমালোচনার কারণে আইন মানার বিষয়ে চালকদের আগ্রহ দিন দিন কমে যাচ্ছে।

তিনি বলেন, শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের মুখে সরকার নিরাপদ সড়ক আইন পাস করে দেয়। কিন্তু পরিবহন নেতারা এই আইনের শুরু থেকেই সমালোচনা করে আসছেন। এই পরিস্থিতিতে সড়কের শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনা ও সড়ক নিরাপদ করতে শিক্ষার্থীদের আবার প্রয়োজন। তারা সেসময় আন্দোলন করে দেখিয়েছিলো কীভাবে সড়ক নিরাপদ রাখতে হয়, কীভাবে নিয়ম মেনে গাড়ি চালাতে হয়।

করোনা পরিস্থিতির মধ্যে সড়ক দুর্ঘটনার কথা কম শোনা গেলেও গত কিছুদিন ধরে প্রায় প্রতিদিনই কোথাও না কোথাও সড়ক দুর্ঘটনার কথা শোনা যাচ্ছে। হঠাৎ করে সড়ক দুর্ঘটনা বাড়ছে কেন জানতে চাইলে তিনি বলেন, করোনার মধ্যে যানবাহনে কিছুটা নিয়ন্ত্রণ ছিলো কিন্তু আস্তে আস্তে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হওয়ার দিকে যাওয়ার কারণে চালকরা আবার রাস্তায় দাপিয়ে বেড়াচ্ছে। এ ছাড়া তাদের এতোদিনের লোকসানের বিষয়টি বিবেচনায় নিয়ে এখন দ্রুতগতিতে চলাচল করায় সড়ক দুর্ঘটনা বাড়ছে। এই পরিস্থিতিতে আবার সড়ক নিরাপত্তার কথা ভাবতে হবে।

বিশ্বব্যাপী করোনা পরিস্থিতির কারণে একটা মানবিক বিপর্যয় চলছে। এই পরিস্থিতিতে যদি সড়ক নিয়ে নতুন করে আতঙ্ক সৃষ্টি হয় তাহলে মানুষের কষ্ট আরও বাড়বে। অন্যদিকে পরিবহন নেতারা বলছেন সড়ক পরিবহন আইনটি নাকি করা হয়েছে তখনকার আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের খুশি করতে। এভাবে বিক্ষিপ্ত কিছু কথা বলে চলক-শ্রমিকদেরকে বিভ্রান্ত করা হচ্ছে বলে মনে করে তিনি।