ঢাকা, রোববার, ১৮ এপ্রিল ২০২১, ৫ বৈশাখ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

‘পিলখানার ষড়যন্ত্রকারীদের মুখোশ উন্মোচিত হলো না’

জুয়েল খান
প্রকাশিত: ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২১ বৃহস্পতিবার, ০৩:৫৯ পিএম
‘পিলখানার ষড়যন্ত্রকারীদের মুখোশ উন্মোচিত হলো না’

নিরাপত্তা বিশ্লেষক মেজর জেনারেল (অব.) মোহাম্মদ আলী শিকদার বলেছেন, পিলখানা হত্যাকাণ্ড শুধুমাত্র বিডিআর জওয়ানদের দ্বারা হয়নি তাদের নেপথ্যে ছিলো ষড়যন্ত্রকারীরা। কিন্তু জওয়ানদের বিচার হলেও মুখোশ উন্মোচিত হলো না নেপথ্যের কুশিলবদের। 

পিলখালা হত্যাকাণ্ডের বিচার এবং সেদিনের ঘটনার বিভিন্ন দিক নিয়ে বাংলা ইনসাইডারের সঙ্গে একান্ত আলাপচারিতায় এসব কথা বলেছেন মোহাম্মদ আলী শিকদার। পাঠকদের জন্য মোহাম্মদ আলী শিকদারের সাক্ষাৎকার নিয়েছেন বাংলা ইনসাইডারের নিজস্ব প্রতিবেদক জুয়েল খান। 

মোহাম্মদ আলী শিকদার বলেন, পিলখানা হত্যাকাণ্ড হঠাৎ করে হয়নি এর পেছনে ধারাবাহিক ষড়যন্ত্র ছিলো। আর এই বিষয়টি হাইকোর্টের পর্যবেক্ষণেও বলা হয়েছে। ৫০ দিন আগে ক্ষমতায় আসা আওয়ামী লীগ সরকারকে ক্ষমতাচ্যুত করাই ছিলো ষড়যন্ত্রকারীদের মূল লক্ষ্য। কিন্তু এই ষড়যন্ত্র যারা করেছে তাদের মুখোশটা উন্মোচিত হলো না। যারা সামনে থেকে হত্যাকাণ্ড চালিয়েছে তাদের বিচার হয়েছে এবং সেই বিচারটি খুব দ্রুতসময়ের মধ্যে হয়েছে।

তিনি বলেন, পিলখানার এতো বড় ষড়যন্ত্র যারা করেছে তারা অনেক শক্তিশালী এটা কোনো চুনোপুটিদের ষড়যন্ত্র ছিলো না। এ ধরনের ষড়যন্ত্র সরাসরি রাষ্ট্র বিরোধী এবং এটাতে জীবনের ঝুঁকি ছিলো। প্রশ্ন হলো জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ষড়যন্ত্র করলো কারা?। ষড়যন্ত্র যদি সফল হয় তাহলে তারা ষড়যন্ত্রের ঝুঁকির বহুগুণ বেশি লাভবান হবে সেই চিন্তা থেকে এতো বড় ঝুঁকি নিয়েছিলো। একটা বিষয় পরিস্কার যে এর পেছনে অনেক বড় রাজনৈতিক ষড়যন্ত্র ছিলো এবং সরকার পতন হলে ষড়যন্ত্রকারীরা লাভবান হতো। তাহলে বুঝতে হবে আওয়ামী লীগ সরকার পরে গেলে কারা লাভবান হতো?।   

মোহাম্মদ আলী শিকদার আরও বলেন, আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসে প্রায় দুই তৃতীয়াংশ আসন নিয়ে এবং বাংলাদেশের ইতিহাসের সবচেয়ে নিরপেক্ষ নির্বাচনের মাধ্যমে। কাজেই ষড়যন্ত্রকারীরা বুঝে যায় যে বৈধ পথে সরকারকে ক্ষমতা থেকে সরানো যাবে না। আর তখন আওয়ামী লীগের নির্বাচনী ইশতেহারগুলো ছিলো ষড়যন্ত্রকারীদের জন্য বিপজ্জনক। আওয়ামী লীগের ওয়াদা ছিলো তারা যুদ্ধাপরাধীদের বিচার, বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচার, ২১ আগস্টের গ্রেনেড হামলা মামলার বিচার, ১০ ট্রাক অস্ত্র মামলার বিচার এবং বাংলাদেশের ভূখন্ড ব্যবহার করে জঙ্গি গোষ্ঠী প্রতিবেশি ভারতে অপতৎপরতা চালায় সেগুলো বন্ধ করার ওয়াদা। আর এই ইশতেহার দেখে ষড়যন্ত্রকারীরা বুঝতে পেরেছিলো তাদের অবস্থা সংকটাপন্ন এবং তাদের অপরাধের বিচার শুরু হবে। তাই বিচারের হাত থেকে রক্ষা পেতেই আওয়ামী লীগ সরকার পতনের জন্য পিলখানার বিডিআর জওয়ানদের ব্যবহার করেছিলো। তবে পিলখানার হত্যাকাণ্ড জাতির জন্য এক অপুরণীয় ক্ষতি।