ঢাকা, মঙ্গলবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০২১, ৬ আশ্বিন ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

`শুধু সরকার, গণমাধ্যম বা ডাক্তার নয় দায়িত্ব জনগণেরও আছে`

মো. মাহমুদুল হাসান
প্রকাশিত: ১৯ জুলাই ২০২১ সোমবার, ০৪:০০ পিএম
`শুধু সরকার, গণমাধ্যম বা ডাক্তার নয় দায়িত্ব জনগণেরও আছে`

বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশনের (বিএমএ) মহাসচিব ডা. এহতেশামুল হক চৌধুরী দুলাল বলেছেন, দায়িত্ব জনগণেরও আছে। শুধু যে সব দায়িত্ব সরকারকে নিতে হবে, গণমাধ্যমকে নিতে হবে বা হাসপাতালের ডাক্তার সাহেবদের নিতে হবে তা কিন্তু নয়।

ঈদ পরবর্তি করোনার অবস্থা, স্বাস্থ্যবিধি ঠিক মতো না মানা বা মানানো জন্য করনীয় সম্পর্কে বিভিন্ন দিক নিয়ে বাংলা ইনসাইডারের সঙ্গে একান্ত আলাপচারিতায় তিনি এসব কথা বলেন। পাঠকদের জন্য ডা. এহতেশামুল হক চৌধুরী দুলাল এর সাক্ষাৎকার নিয়েছেন বাংলা ইনসাইডার এর প্রধান বার্তা সম্পাদক মো. মাহমুদুল হাসান। 

ডা. এহতেশামুল হক চৌধুরী দুলাল বলেন, করোনা মহামারীতে বর্তমানে বাংলাদেশের যে অবস্থা সেই অবস্থা মোটেই কাঙ্খিত নয় এবং সেটি আমরা এক কথায় বলতে পারি যে আমাদের সামনের দিনগুলো খুব সুখকর হবে না। সরকার সামগ্রিকভাবে বিষয়গুলো বিবেচনা করে। সরকার মানুষের খাবার কিভাবে আসবে, মানুষ কিভাবে তার জীবনটা চালাবে এদিকে যেমন নজর দেয় ঠিক তার পাশাপাশি মানুষ কিভাবে রোগমুক্ত থাকবে সেদিকেও নজর দেয়। একটি সামষ্টিক চিন্তা বা একটি সামষ্টিক প্রোগ্রাম নিয়ে সরকার এগিয়ে যায়। সরকার একটি বিরাট জাহাজ। তার এইখানে অনেক ধরনের স্টেক হোল্ডার থাকে। সবকিছু নিয়েই তাকে চলতে হয়। একটি পরিকল্পনা সেইভাবেই সরকার নেয়। সেটা সরকারের বিষয় এবং এই মুহূর্তে যে আমাদের একটি ধর্মীয় উৎসব এই ধর্মীয় উৎসবে যদি বাধা দেওয়া হয় বা বাড়িতে যেতে না দেওয়া হয় তাহলে কি রিএ্যাক্ট করে জনগণ সেটা তো আমরা অতীতে দেখেছি। বরং সরকার তাদেরকে যতটুকু নির্বিগ্নে বাড়িতে যাওয়া এবং বাড়ি থেকে ফেরত আসার রাস্তা করে দেওয়ার চেষ্টা করে দিয়েছে। 

তিনি বলেন, এখন কিন্তু দায়িত্ব জনগণেরও আছে। শুধু যে সব দায়িত্ব সরকারকে নিতে হবে বা গণমাধ্যমকে নিতে হবে, হাসপাতালের ডাক্তার সাহেবদের নিতে হবে তা কিন্তু নয়। আমি যখন টেলিভিশনে দেখি একজন রোগী আকুতি করছেন যে আমি অক্সিজেন পাচ্ছি না, আমার তাকে বিনীতভাবে জিজ্ঞাসা করতে ইচ্ছা হয়, আপনি এখন অক্সিজেনের কথা বলছেন কিন্তু অক্সিজেন পাচ্ছেন না। কিন্তু যখন সরকার বলেছিল, চিকিৎসকরা বলেছিল, গণমাধ্যম বলেছিল যে, আপনারা মাস্ক পড়েন, আপনার এই রোগীটা তখন মাস্ক পড়েছিল? এই বিষয়ের বিচার করা ক্ষমতা থাকতো বা সক্ষমতা থাকতো বা প্রশ্ন করার সক্ষমতা থাকতো তাহলে অনেকেরই চুপ থাকতে হতো। কারণ আপনি যদি লেবিশ লাইফ লিড না করেন, আপনি যদি স্বাস্থ্যবিধি না মেনে চলেন তার পরিণতি কি হবে সেটা সম্পর্কে স্বাস্থ্যকর্মীরা বা গণমাধ্যম আপনাদেরকে জানিয়েই দিচ্ছে। সুতরাং আপনারও তো দায়িত্ব আছে জনগণ হিসেবে এই কাজটা করার।

বিএমএ মহাসচিব বলেন, আমি তো বলি যে, যখন সরকারের সাথে, সরকারের আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সাথে লুকোচুরি করেছেন, এই লুকোচুরিটা প্রকারন্তরে নিজেদের সাথে করছেন, তার পরিবারের সদস্যদের সাথে করছেন, তার প্রতিবেশির সাথে করছেন এবং দেশের সাথে করছেন। কারণ সে নিজেই জানে না আগামীকাল সে আক্রান্ত হতে পারে। আমি জিজ্ঞাসা করেছি চিকিৎসক হিসেবে একজন রোগীকে যে আপনার আত্মীয় তো মারা গেলো। সে আমাকেই বলল যে, সর্দি-কাশি ছিল। এবারের সর্দি-কাশি একটু অন্যরকম। সে স্বীকারই করতে চাইলো না যে করোনায় মারা গেলাে। আমার উদ্দেশ্য ছিল যে, এই রোগীটা করোনায় মারা গেছে এই জিনিষটা উনাকে বলে উনার বা উনার পরিবারের বাকি যারা সদস্য রয়েছে তাদের সকলকে একটু এলার্ট করতে। কিন্তু সেই দিকে তিনি যেতেই চান না। তারপরও আমি তাকে বললাম যে, আমার বলার দায়িত্ব তাই আপনাকে বললাম। আপনারা আগামী ৮-১০ দিন বাড়ি থেকে বেড় হবেন না। এই জায়গাটায় আমরা কোনোভাবেই পারছি না।

তিনি বলেন, এটা বলতে পারেন আমাদের এক ধরনের ব্যর্থতা। গণমাধ্যমও পারছে না, আমরা চিকিৎসকরাও পারছি না, সরকারও পারছে না। এটা আমাদের সামষ্টিক ব্যর্থতা। সেই জায়গাটুকু খুঁজে বের করতে হবে যে কিভাবে জনগণকে আস্থায় আনতে হবে। আস্থায় তো আনতেই হবে। বেশিরভাগ লোকই বলে চাপিয়ে দেওয়া, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর মাধ্যমে আস্থায় আনা। শুধুমাত্র আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর মাধ্যমে আস্থায় আনা কিন্তু টেকশই হবে না। তাকে বুঝিয়ে আস্থায় আনতে হবে। এখানে যে জিনিষটার সব থেকে বেশি অভাব দেখছি, আপনারা বলছেন, আমরাও বলছি, অনবরত বলছি যে, জনপ্রতিনিধিদের অংশগ্রহণ। যতদিন পর্যন্ত শতভাগ জনপ্রতিনিধি এবং শতভাগ রাজনৈতিক শক্তি সেখানে অংশগ্রহণ না করবে তার আগে পর্যন্ত জনগণকে আস্থায় আনা যাবে না। আর জনগণকে আস্থায় না আনতে পারলে কোনো মহামারী নিয়ন্ত্রণ সম্ভব নয়। এখানে অনেক অনেক লস হবে আমাদের। জীবনরে ক্ষতি হবে। অর্থিক ক্ষতি হবে। সবদিক থেকে ক্ষতি হবে।