ঢাকা, রোববার, ১৭ অক্টোবর ২০২১, ২ কার্তিক ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

‘বিএনপির এখন কোনো অবস্থাতেই নির্বাচনের দ্বারে যাওয়া যাবে না’

মাহমুদুল হাসান তুহিন
প্রকাশিত: ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২১ বুধবার, ০৪:০০ পিএম
‘বিএনপির এখন কোনো অবস্থাতেই নির্বাচনের দ্বারে যাওয়া যাবে না’

বিএনপির সাবেক সাংসদ মেজর (অব.) আখতারুজ্জামান রঞ্জন বলেন, ‘আন্দোলনে যেতে হবে। আন্দোলনের রাস্তা খুঁজতে হবে। নির্বাচন এই সরকারের অধীনে হয়নি, অতীত অভিজ্ঞতা তো সেটাই বলছে। আগামীতে যে হবে, তার গ্যারান্টি কে দেবে?`

বিএনপির চলমান বৈঠক, নির্বাচনী অবস্থান সহ বিভিন্ন বিষয় নিয়ে বাংলা ইনসাইডার এর সঙ্গে একান্ত আলাপচারিতায় তিনি এসব কথা বলেছেন। পাঠকদের জন্য মেজর (অব.) আখতারুজ্জামান রঞ্জন এর সাক্ষাৎকার নিয়েছেন বাংলা ইনসাইডার এর নিজস্ব প্রতিবেদক মাহমুদুল হাসান তুহিন।

কিছুদিন আগেই বিএনপির বৈঠকে নির্বাচনের আগামী নির্বাচনের ব্যাপারে দলীয় সিদ্ধান্ত কী নেয়া হয়েছে বা ভবিষ্যত কর্মসূচি কী, সে প্রশ্নের উত্তরে মেজর (অব.) আখতারুজ্জামান রঞ্জন বলেন, ‘আলোচনা এখনও চলছে। আলোচনার পর কী সিদ্ধান্ত নেয়া হবে, তা সংবাদ সম্মেলনে জানানো হবে।’ 

আন্দোলনের কথা বারবার বললেও বিএনপি এখন পর্যন্ত দৃশ্যমান কোনো আন্দোলনে তারা যেতে পারেনি। এমন মন্তব্যে তিনি বলেন, ‘আন্দোলন ছাড়া কোনো উপায় নেই। গতবার দেশি, বিদেশি সবার কথা বিশ্বাস করেই বিএনপি নির্বাচনে গিয়েছিল। সেখানে দেখা গেলো সকল চোরের এক রা। সংবাদপত্র থেকে শুরু করে সবজায়গায় একই ব্যাপার। পত্রপত্রিকায় কিছুই লেখা হয়নি। আপনারা সাংবাদিকরা খুব খারাপ। আমি গালি দিলে আমার বিরুদ্ধে লিখবেন, কিন্তু কেউ আমাকে গালি দিলে তার বিরুদ্ধে কিছুই লিখবেন না। নির্বাচন হলো, কিন্তু সেটা তো হলো আগের দিন। এটা নিয়ে তো আপনারা কেউ কিছু লিখলেন না। ইনসাইডার বলেন বা আউটসাইডার বলেন, কেউ তো একটা শব্দও উচ্চারণ করলেন না। আগে জিনিসটা বোঝেন। এরপর নিউজ করেন।`

মেজর (অব.) আখতারুজ্জামান আরও বলেন, `এখন আর এসব বলে লাভ নেই। আন্দোলন করতে হবে, আন্দোলনে যাব। বিএনপি কেন নির্বাচনে যাবে? কোন দুঃখে যাবে? কী কারণে যাবে?` 

নির্বাচন কমিশন গঠন করা হচ্ছে, সে মন্তব্যে তিনি বলেন, ‘নির্বাচন কমিশন দিয়ে আমরা কী করি? নির্বাচন কমিশন তো নির্বাচন করে না। নির্বাচন কমিশনের সাথে তো আমাদের কোনো সম্পর্ক নাই। নির্বাচন এই সরকারের অধীনে সুষ্ঠু ও অবাধ হবে না। সরকার বলুক যে সে নির্বাচন করতে পারবে না। সেটিও বিশ্বাস করতে পারি আমরা। সরকার আড়াই বছরের মাথায় নির্বাচন প্রস্তুতি শুরু করে দিয়েছে, আমাদের ধরপাকড় শুরু করে দিয়েছে, এরপর তাদের অধীনেই আমরা নির্বাচনে যাবো কেন? আন্দোলন করতে পারি বা না পারি, সেটা অন্য ব্যাপার। না পারলে শুয়ে থাকব, ঘুমিয়ে থাকব, থাকুক। কিন্তু সামনে এখন আন্দোলন ছাড়া আর কোনো পথ নাই। এই নির্বাচনে যাওয়া মানেই সরকারের দালালি করা।` 

ডা. জাফরুল্লাহর বিএনপি সম্পর্কিত বক্তব্যের ব্যাপারে তিনি বলেন, ‘উনি তো বিএনপির কেউ না। উনি ওনার ব্যক্তিগত পক্ষ থেকে বিএনপিকে নিতে চাচ্ছেন। বিএনপিকে যদি তিনি নির্বাচনে নিয়ে আসতে পারেন, তাহলে হয়ত সরকারের কাছে ওনার একটু আদর-আপ্যায়ন বাড়বে। অবস্থান ভালো হবে।`

তিনি বলেন, ` বিএনপির সামনে এখন কোনো অবস্থাতেই নির্বাচনের দ্বারে যাওয়া যাবে না। যদি নির্বাচনে যেতে হয়, তাহলে কতগুলো বিষয়ে আগে ঐক্যমতে আসতে হবে এবং সরকারকে সেখানে কতগুলো চুক্তি করতে হবে। সে চুক্তি যদি হয়, তাহলে চিন্তা করা যাবে। নইলে নির্বাচনে যাবার কোনো প্রশ্নই ওঠে না।`

বিষয়: বিএনপি