ঢাকা, রোববার, ১৭ অক্টোবর ২০২১, ২ কার্তিক ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

‘স্বাস্থ্যবিধি মেনেই আমরা বিশ্ববিদ্যালয় ও হল কার্যক্রম শুরু করতে পারব’

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১ বৃহস্পতিবার, ০৪:০০ পিএম
‘স্বাস্থ্যবিধি মেনেই আমরা বিশ্ববিদ্যালয় ও হল কার্যক্রম শুরু করতে পারব’

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর এবং ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের অধ্যাপক এ কে এম গোলাম রব্বানী ৫ অক্টোবর থেকে হল খোলার বিষয়ে বলেন, শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্যসুরক্ষা নিশ্চিত করে হল খুলতে যা যা করা দরকার, বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন বিধি অনুযায়ী ঠিক সেভাবেই কাজ করছে। টিকাগ্রহণ করতে কারও যদি সময়ের প্রয়োজন হয়, তাহলে ৩০ তারিখের মধ্যেই টিকাগ্রহণ করার জন্য নির্দেশ দেয়া যাচ্ছে।

বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের আগমন ও হল খুলে দেয়া প্রসঙ্গের নানা দিক নিয়ে বাংলা ইনসাইডারের সঙ্গে একান্ত আলাপচারিতায় তিনি এসব কথা বলেন।

শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্যবিধির বিষয়টা কীভাবে মনিটরিং করা হচ্ছে, সে বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, শিক্ষার্থীদের সঠিকভাবে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা তো সচেতন নাগরিক। এটি তারা স্পষ্টভাবেই মেনে চলবে বলে আশা করা যায়। আমরা সবাই আশা করি যে বিশ্ববিদ্যালয় খুললে এই করোনা মহামারীর সময় আমরা কেউ স্বাস্থ্যবিধির বাইরে থাকব না। স্বাস্থ্যবিধি মেনেই আমরা বিশ্ববিদ্যালয় এবং হল কার্যক্রম শুরু করতে পারব বলে আশা করি।

হল খোলার পর যদি কোনো ক্ষেত্রে স্বাস্থ্যবিধি মানা না হয়, তাহলে সেক্ষেত্রে করণীয় কী হবে, এই প্রসঙ্গে তিনি বলেন, টিকাগ্রহণের মাধ্যমে একজন শিক্ষার্থী যেমন নিজের সুরক্ষার ব্যাপারটি নিশ্চিত করবে, ঠিক একইভাবে হল খুলে দেবার পেছনেও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে। এছাড়াও তার পরিবার ও অন্যান্যদের মাঝে একটি এন্টিবডি বা সুরক্ষা তৈরি হবে। এখানে ছাত্রদের জোর করে টিকাদানের কোনো বিষয় নিয়ে কথা হচ্ছে না। এই বিষয়টি যেমন শিক্ষার্থীদের জন্য কষ্টকর, তেমনি শিক্ষকদের জন্যও প্রত্যাশিত নয়। স্বপ্রণোদিত হয়েই শিক্ষার্থীদের টিকাগ্রহণে উদ্বুদ্ধ করা হচ্ছে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা মেধাবী এবং তারা নিজেদের স্বাস্থ্যসুরক্ষার বিষয়টি মাথায় রেখেই স্বপ্রণোদিত হয়ে টিকা গ্রহণ করছে। এক্ষেত্রে যদি তাদের কোনো অসুবিধা দেখা দেয়, তাহলে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে জানানো মাত্রই সে অনুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। টিকা কার্যক্রমে শিক্ষার্থীরা এগিয়ে আসবে, এটিই বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ প্রত্যাশা করে। 

কোনো শিক্ষার্থী যদি অসুস্থ হয়ে পড়ে, তাহলে কী ব্যবস্থা আছে, সে প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, কোনো শিক্ষার্থী যদি অসুস্থ হয়ে পড়ে, তাহলে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ যথাযথভাবে তার চিকিৎসার ব্যবস্থা নিশ্চিত করবে। বিশ্ববিদ্যালয়ের নিজস্ব মেডিকেল আছে, ঢাকা মেডিকেল আছে। যখন যেখানে সুবিধা নেয়া জরুরী, আমরা সে সুবিধা গ্রহণ করে শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্য সুরক্ষার ব্যবস্থাটি নিশ্চিত করব।