ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১, ৪ কার্তিক ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

’বড় নেতা বা এমপিদের মদদ ছাড়া বিদ্রোহী প্রার্থী হয় না’

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১৩ অক্টোবর ২০২১ বুধবার, ০৪:০৫ পিএম
’বড় নেতা বা এমপিদের মদদ ছাড়া বিদ্রোহী প্রার্থী হয় না’

যুদ্ধাপরাধীদের সন্তান বা দুর্বৃত্তরা মনোনয়ন পাওয়ার অভিযোগের প্রসঙ্গে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য জাহাঙ্গীর কবির নানক বলেছেন, দেখুন আসলে বিজ্ঞ মনোনয়ন বোর্ড যার সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আমরা চুলচেরা বিশ্লেষণ করে প্রার্থীদের মনোনয়ন দিচ্ছি। এ মনোনয়ন দেওয়ার ক্ষেত্রে দু-একটি জায়গায় ভুল-ত্রুটি হতে পারে, তবে এরকম হওয়ার সম্ভাবনা কম। কারণ প্রার্থীর নাম ইউনিয়ন থেকে উপজেলায় পাঠানো হয়, উপজেলা থেকে জেলায় পাঠানো হয়। কাজেই ভুল যদি হয়ে থাকে, তাহলে পরে তৃণমূল পর্যায় থেকে ভুল করেছে এবং সেটি সমর্থন অযোগ্য। এ ধরণের কোনো অভিযোগ থাকলে দেখে আমরা সংশোধন করে নেবো।  

আওয়ামী লীগের মনোনয়ন ও বিদ্রোহী প্রার্থীদের নিয়ে বাংলা ইনসাইডার এর সঙ্গে একান্ত আলাপচারিতায় এসব কথা বলেন জাহাঙ্গীর কবির নানক।  

একটা কথা বলা হচ্ছে যে তৃণমূল থেকে যে নামগুলো পাঠানো হচ্ছে ওখানেই বাণিজ্য হচ্ছে এবং টাকা-পয়সার বিনিময়ে তৃণমূলের লোকরা এমন সব বিতর্কিত লোকদের নাম পাঠাচ্ছে। এ ধরণের অভিযোগ আপনাদের কাছে এসেছে কি না জানতে চাইলে নানক বলেন, আমাদের কাছে এ ধরণের কোনো অভিযোগ আসেনি। আমাদের কাছে এ ধরণের অভিযোগ আসলে আমরা খুবই সতর্ক এবং আমরা প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবো তাদের বিরুদ্ধে। 

মনোনয়ন কেন পরিবর্তন করেছেন সে বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, যাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ এসেছে এবং অভিযোগ প্রমাণিত হয়েছে, সে ধরণের কিছু মনোনয়ন পরিবর্তন করা হয়েছে। আওয়ামী লীগকে বিতর্কিত করতে বা আওয়ামী লীগের যে অর্জন সে অর্জনগুলোকে প্রশ্নবিদ্ধ করতে একটি মহল ষড়যন্ত্র করছে। এবং তারাই এ ধরণের মনোনয়নগুলো পাঠাচ্ছে বা এ ধরণের মনোনয়ন নিয়ে বিভিন্ন নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে তারা আওয়ামী লীগের ভাবমূর্তি নষ্ট করবে। 

আপনার কখনো কি এ রকম মনে হয় প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, দেখুন আমি এ ধরণের কথা বলবো না। আমি শুধু একটা কথাই বলবো যে, দায়িত্বশীল ব্যক্তিরা যদি কোনো ভুল করে, সেটা সজ্ঞানে অথবা অজ্ঞানে যদি করে থাকে, সেটি অমার্জনীয় অপরাধ। এ অমার্জনীয় অপরাধের জন্য তাদেরকে অবশ্যই খেসারত দিতে হবে। 

বিএনপি অফিসিয়ালি বলছে যে, তারা নির্বাচন করবে না এবং তারা বলেছে এই নির্বাচন কমিশনের অধীনেও তারা নির্বাচন করবে না। কিন্তু এখন পর্যন্ত প্রায় সব ইউনিয়নেই তারা স্বতন্ত্র প্রার্থী দিয়েছে। এটা তাদের একটি কৌশল। আওয়ামী লীগ কি বিএনপির এই কৌশল নিয়ে সচেতন বা কৌশল মোকাবেলায় আপনাদের পাল্টা কৌশল কি হবে জানতে চাইলে নানক বলেন, দেখেন আমরা এ ব্যপারটি নিয়ে অত্যন্ত সতর্ক। তারা কৌশল নিয়েছে। তারা উপরে বলছেন নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবেন না। আর তারা ভিতরে বার্তা দিয়ে দিয়েছে যে, যেখানে পারে নির্বাচন করার জন্য। কাজেই আমরা সেটিকে মাথায় রেখেই আমরা যোগ্য প্রার্থীকে মনোনয়ন দিচ্ছি। 

বিদ্রোহী প্রার্থী বা বিদ্রোহ দমনের ক্ষেত্রে কথা বলতে গিয়ে নানক বলেন, যেখানে বিদ্রোহ হচ্ছে বা বিদ্রোহী প্রার্থীদের শান্ত রাখার জন্য স্থানীয়ভাবে চেষ্টা করা হচ্ছে। তারপরেও যদি তারা বিদ্রোহ করে তবে আওয়ামী লীগের হাই কমান্ডের পরিষ্কার বক্তব্য হলো বিদ্রোহী প্রার্থীদের জন্য আওয়ামী লীগের দরজা চিরদিনের জন্য বন্ধ হয়ে যাবে।  

বিদ্রোহীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা না নেওয়ার বিষয়ে তিনি বলেন, যারা বিদ্রোহ করেছেন এবং যাদের তালিকা আমাদের হাতে এসেছে তাদেরকে আমলেই নেওয়া হচ্ছে না। অর্থাৎ তাদের বিরুদ্ধে কঠিন ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। কাজেই তারা তাদের কপাল খেয়েছে। 

আপনি কি বিশ্বাস করেন প্রভাবশালী নেতা বা এমপি মন্ত্রীদের মদদ ছাড়া ইউনিয়ন পর্যায়ে একজন বিদ্রোহী প্রার্থী হতে পারে, আপনি একজন রাজনৈতিকবিদ হিসেবে এটা কি বিশ্বাস করেন

বিদ্রোহীদের মদদের ক্ষেত্রে প্রভাবশালী নেতা বা এমপি মন্ত্রীদের মদদ আছে কিনা সে সম্পর্কে তিনি বলেন, না আমি বিশ্বাস করি না। আমি বিশ্বাস করি না যে তার পেছনে কোনো মদদ ছাড়া আওয়ামী লীগের কোনো কেন্দ্রীয় নেতা অথবা এমপি সাহেবদের মদদ ছাড়া কেউ বিদ্রোহ করতে পারে নেত্রীর সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে, আমি এটা বিশ্বাস করি না।