লিভিং ইনসাইড

জেনে নিন বাইকের মাইলেজ বৃদ্ধির টিপস

প্রকাশ: ০৫:২১ পিএম, ১২ জানুয়ারী, ২০২২


Thumbnail

কোম্পানির কন্ডিশন অনুযায়ী কেনার বাইকের মাইলেজ মিলছে না। চেষ্টা করেও পাচ্ছেন না মনের মত পারফরম্যান্স। আশানুরূপ মাইলেজ পেতে হলে এই টিপস গুলি ফলো করুন। যা আপনার মোটরসাইকেলের ইঞ্জিনের মাইলেজ বাড়াতে সাহায্য করবে। তবে এটাও মনে রাখতে হবে ইঞ্জিন শুধু মাত্র তাঁর ক্ষমতার উপর ভিত্তি করেই মাইলেজ দেয়। আপনি শহরে না হাইওয়েতে বাইক চালাচ্ছেন তার উপরেও নির্ভর করে মাইলেজ। যদি আপনার বাইকের ইঞ্জিন ক্ষমতা ভালো থাকে তাহলে ক্ষমতা অনুযায়ী ভালো ফল পাবেন এই টিপস গুলো ফলো করলেই, অন্যথা বৃথা। তাহলে দেখে নিন বাইকের মাইলেজ বাড়ানোর টিপস___

জেনে নিন মাইলেজ বৃদ্ধির টিপস

১ সময়মতো বাইক সার্ভিসিং করান। বাইকের রক্ষণাবেক্ষণে যত্ন নিন। অন্যথায় আপনার ইঞ্জিন সঠিকভাবে কাজ করবে না। যার প্রভাব মাইলেজে পড়তে বাধ্য।

২ এয়ার ফিল্টারটি সময়মতো পরিষ্কার করা উচিত। কারণ বাতাসের দূষণ ও ধূলিকণা সহজেই এর মধ্যে ময়লা জমিয়ে দেয়। যা ইঞ্জিনের কর্মক্ষমতাকে প্রভাবিত করে।

৩ আপনার বাইকের চেইন, ইঞ্জিন ও অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ স্থানে তেল দেওয়ায় বিশেষ যত্ন নিন। পর্যাপ্ত পরিমাণে তেল দিলে ইঞ্জিন, চেইন ইত্যাদি ভালোভাবে কাজ করে।ফলে বাইক পারফরম্যান্সও ভালো দেয়।

৪ আপনি যদি বাইকে অতিরিক্ত লোড রাখেন তবে ইঞ্জিন প্রভাবিত হবে। এই প্রভাব সরাসরি এর পারফরম্যান্সে প্রভাব ফেলবে। এটা কখনও করবেন না। সবসময় মোটরসাইকেল এর লোড ক্ষমতা অনুযায়ী করুন।

৫ বাইকে ক্লাচ ও ব্রেক লিভার অল্প ব্যবহার করুন। কেবল প্রয়োজনে এগুলি ব্যবহার করুন। এগুলি বার বার ব্যবহারের কারণে মাইলেজে প্রভাব পড়ে। এগুলি কম ব্যবহার করে, আপনি আপনার বাইকের মাইলেজ বাড়াতে পারবেন।

৬ রাফ ড্রাইভিং করবেন না। এটি বাইকের মাইলেজে প্রভাব ফেলে। স্বাভাবিক নিয়মে বাইক চালান। গতি অনুযায়ী সঠিক গিয়ার নির্বাচন করুন। তাহলেই দেখবেন বাইকের মাইলেজ অনেকটা বেড়ে গেছে।

বাইক   মাইলেজ   মাইলেজ বৃদ্ধি   টিপস  


মন্তব্য করুন


লিভিং ইনসাইড

শীতে যে শাকগুলো খেলে সহজেই আপনার ওজন কমবে

প্রকাশ: ০৮:০৫ এএম, ২৫ জানুয়ারী, ২০২২


Thumbnail

ঋতুচক্রের পালাবদলে এখন শীতকাল। বাজারে এসেছে শীতকালীন সবজি। নানা রঙের আর নানা স্বাদের সবজিতে বাজার এখন ভরপুর। যারা ওজন কমানোর কথা ভাবছেন তাদের জন্য শীতকাল খুবই উপযুক্ত সময়। কিন্তু  শীতে অনেকেরই এক্সারসাইজের আগ্রহ কমে যায়। এ অবস্থায় যারা ওজন কমানোর ব্যাপারে চিন্তা করছেন তাদের  নির্দিষ্ট কিছু খাবার হতে পারে ওজন কমানোর বিকল্প এক উপায়। শীতের কিছু শাক এক্ষেত্রে শরীরের ওজন কমানোর সহায়ক হতে পারে।

মেথিশাক: আলু ও গাজরের সঙ্গে মেথিশাক মিশিয়ে খেতে পছন্দ করেন অনেকে। মেথির বেশ কিছু উপকারিতা আছে। এটি খুব ভালো একটি অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট। পরিমিত মেথি খেলে ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে থাকে, ওজন কমে। মেথি হার্ট ও ব্লাড প্রেশারের জটিলতাও কমাতে সহায়ক। মেথিশাকে আছে অ্যাসকরবিক এসিড ও বিটা ক্যারোটিন।

মুলাশাক: শীতের আরেকটি পরিচিত সবজি মুলা। আর এই সময়ে মুলাশাকও অনেকে বেশ আয়েশ করেই খান। মুলাশাকে প্রচুর পুষ্টি ও ফাইবার আছে। এ শাকে ক্যালরি খুব কম, তাই এটি সহজে হজম হয়। এই শাক কয়েকভাবেই রান্না করা যায়। শীতে তাই ওজন কমাতে এই শাক বেছে নিতে পারেন।

সরিষাশাক: শীতে গ্রামাঞ্চলে মাঠজুড়ে সরিষাক্ষেত দেখা যায়। শীতে গ্রামের মানুষ তাই প্রায় সময় সরিষাশাক খান। কম ক্যালরিযুক্ত ভিটামিন সি ও ফাইবার সমৃদ্ধ এই শাক ওজন কমাতে সহায়ক।

পালংশাক: অনেক পুষ্টিগুণে ভরা পালংশাক ওজন কমাতেও সহায়ক। অনেকভাবেই পালংশাক খাওয়া যায়। আলুর সঙ্গে অথবা কটেজ চিজ দিয়ে বা ভেজে নানাভাবে খাওয়া যায় এই পুষ্টিকর শাক। নারী ও বয়স্ক মানুষের জন্য এটি খুব স্বাস্থ্যকর শাক। এতে কম ক্যালরি থাকায় তা ওজন কমাতেও সহায়ক।

শীতকাল   শাক  


মন্তব্য করুন


লিভিং ইনসাইড

যেভাবে বের করবেন ই-মেইল প্রেরকের লোকেশন

প্রকাশ: ০২:৫৬ পিএম, ২৪ জানুয়ারী, ২০২২


Thumbnail

মেইল ব্যক্তিগত তথ্য আদান-প্রদানের এক নিরাপদ মাধ্যম। অনেক আগেই  টেক জায়ান্ট গুগলও এই সুবিধা এনেছে। নিজেদের তথ্য আনাদান প্রদানের জন্য এখন পুরো বিশ্বের মানুষই জি-মেইল ব্যাবহারকারী রয়েছে। বিশ্বের সকল স্থানেই কমবেশি সবাই মেইল বা জি-মেইল ব্যাবহারকারী আছে। মাঝে মাঝে এমন কিছু মেইল আসে, যেগুলোর লোকেশন জানা খুবই প্রয়োজন পড়ে। মেইল কোথা থেকে আসলো অনেকেই আবার জানার চেষ্টা করে। কিন্তু বেশির ভাগ সময়ই জি-মেইল বা অন্য কোনো মাধ্যম তাদের প্ল্যাটফর্মে আসা ই-মেইলের লোকেশন জানায়না।

তারপরেও কিছু পদ্ধতি রয়েছে যার ফলে খুব সহজেই ই-মেইলের লোকেশন জানা যায়। ই-মেইল সেন্ডারের অবস্থান জানার তিনটি উপায় রয়েছে। এর মধ্যে প্রথমটি হল আইপি অ্যাড্রেস ট্র্যাক করা, দ্বিতীয়টি ই-মেইলের আইডি সার্চ করে এবং তৃতীয়টি ফেসবুকের সাহায্যে।

আইপি অ্যাড্রেস ট্র্যাক করা: ই-মেইল আইপি অ্যাড্রেস জানার জন্য আপনাকে যে জিমেইল টি আসবে তার ডান দিকে টাইমের পাশের বোতামটি ক্লিক করতে হবে এবং তারপরে শো অর্জিনাল এ ক্লিক করতে হবে। এবার একটি নতুন ট্যাব খুলবে এবং এখন থেকে আপনি আইপি অ্যাড্রেস পাবেন। এরপর ওই আইপি অ্যাড্রেস আপনি Wolfram Alpha এ গিয়ে সার্চ করতে পারেন। সেখানেই কোম্পানির নাম সহ লোকেশন জানতে পারবেন।

ই-মেইলের আইডি সার্চ করা: জিমেইল আইডি ধরে লোকেশন জানতে চাইলে আপনাকে pipl’ অথবা ‘Spokio ওয়েবসাইটে যেতে হবে। এখানে ই-মেইল আইডিটি সার্চ করলে লোকেশন জানানো হয়। আবার ফেসবুকের সার্চবারে ইমেল আইডিটি সার্চ করলে কোম্পানির তথ্য চলে আসে।

বর্তমানে গুগলে সার্চ ইঞ্জিন পাওয়ার হাউজ হিসেবে পরিচিত। সব ধরনের তথ্য আপনি এক নিমিষেই পেয়ে যেতে পারেন গুগলে সার্চের মাধ্যমে। ই-মেইল ঠিকানাটির আসল ব্যবহারকারীকে বের করতে সর্বপ্রথম গুগলে উক্ত মেইল সম্পর্কে সার্চ করুন। কারণ গুগল আপনাকে সব ওয়েবসাইটের একত্রিত ফলাফল দেখাবে। গুগলে সার্চ করার মাধ্যমে আপনি বিনামূল্য সব তথ্য পেতে পারেন।

গুগলে সার্চ করা মাত্র তথ্য পেয়ে যেতে পারেন,গুগল উক্ত ই-মেইলের সঙ্গে সংযুক্ত সকল ঠিকানাকে একত্রিত করে আপনার নিকট প্রদর্শন করবে। তাই বিনামূল্য এবং সবচেয়ে সহজে যে কারোর তথ্য বের করার জন্য গুগলে সার্চ করা লাভজনক। কিন্তু কোনোভাবে যদি গুগল কাজ না করে তবে বিকল্প সার্চ ইঞ্জিনে খুঁজে দেখতে পারেন এর ফলে আপনার কাজটি অবশ্যই হয়ে যাবে।

ফেসবুকের সাহায্যে: ফেসবুক থেকেও বের করতে পারবেন ই-মেইল প্রদানকারীর লোকেশন। ফেসবুকে নিজস্ব তথ্য দিতে অনেকে পছন্দবোধ করেন। তাই কারও ব্যাপারে জানতে হলে ফেসবুক সার্চ বক্সে ই-মেইল ঠিকানা দিয়ে খোঁজ করতে পারেন। আপনি প্রাপ্ত ই-মেইল ঠিকানাটাকে সার্চ বক্সে কপি এবং পেস্ট করে সার্চ বাটনে ক্লিক করলে তথ্য পেয়ে যাবেন। কেউ যদি ওই মেইল আইডি ব্যবহার করে থাকে ফেসবুকের নিজের আইডিতে তবে আপনি তার সকল ছবি এবং তথ্য পেয়ে যাবেন। সেখান থেকে তার লোকেশন জেনে নিতে পারবেন।

ই-মেইল   লোকেশন   টিপস  


মন্তব্য করুন


লিভিং ইনসাইড

সকালে খাদ্যাভ্যাস নিয়ন্ত্রনে রাখা যে কারণে জরুরী

প্রকাশ: ০৮:০৬ এএম, ২৪ জানুয়ারী, ২০২২


Thumbnail

অনিয়ন্ত্রিত খাদ্যাভ্যাসের কারণে ওজন বেড়ে যাওয়া, সুগার, উচ্চ রক্তচাপের মতো অসুখ বাসা বাঁধে শরীরে। শরীরের ওজন নিয়ে চিন্তার শেষ নেই। অনেকের ধারণা সকালের নাস্তা না খেলে ওজন কমানো যায়। তাই অনেকেই সকালের নাস্তা থেকে একটু দূরে থাকতে চায়। এটা একেবারেই ভুল ধারণা। কারণ, সকালের দিকে শরীরের বিপাকক্রিয়ার হার বেশি থাকে। ফলে যা খাওয়া হয়, তা হজম হয়ে যায়। সকালের নাস্তা শরীর গঠন ও রোগ প্রতিরোধের ক্ষেত্রে খুবই উপকারী।

অনেক সময়েই সকালে খাওয়ার নিয়মে গোলমালের কারণেই দেখা দিতে পারে বহু সমস্যা। তাই অনিয়ন্ত্রিত খাদ্যাভ্যাস পরিবর্ত করে নিয়ন্ত্রনে আনা জরুরী।

সকালের প্রথম খাবারেই একগাদা শর্করা শরীরে না প্রবেশ করানোই ভাল। বরং ভাতের বদলে আটার রুটি খান। রুটির থেকে তৈরি হওয়া গ্লাইকোজেন ভাতের তুলনায় দ্রুত গলে। সঙ্গে রাখুন টক দই, কম তেলের সবজি বা চিকেন স্যুপ ও ডিম।

অনেকের আবার সকালে বেশি খেতে ইচ্ছে করে না।কিন্তু সকালের নাস্তা বাদ দেওয়া একেবারেই চলবে না।  অনেকে ওজন কমানোর জন্য সকালের খাবার বাদ দিয়ে দেন। তাতে আসলে আরও ক্ষতি হয়। সকালের খাবার প্রোটিন বেশি থাকা স্বাস্থ্যের জন্য ভাল। এছাড়াও সকালের নাস্তায় পেট ভরে খেলে বিপাক হার বাড়ে। ফলে শরীর পুষ্টি পায়, কিন্তু ওজন বাড়ার আশঙ্কা কম থাকে।

রাত ঘুমের পর পেট খালি হয়ে যায়। তাই সকাল শুরুর সময়ে সামান্য কিছু হলেও খাওয়া জরুরি। সকালের খাবারের বিষয়ে কয়েকটি ভুল বিপদ ডেকে আনতে পারে। নানা ধরনের রোগ এই অভ্যাসের কারণেই ঢুকে পড়ে শরীরে। সকালে উঠেই কিছু খাওয়া জরুরি। বেশিক্ষণ পেট খালি রাখবেন না। সকালে ভালো ভাবে না খেলে দুপুরে খিদে বাড়ে। তাতে বেশি খাওয়ার প্রবণতা দেখা দেয়। এক বারে বেশি খেলে শরীরের উল্টে ক্ষতি হয়।


মন্তব্য করুন


লিভিং ইনসাইড

ঘুমের আগে অতিরিক্ত পানি পানে রয়েছে ঝুঁকি

প্রকাশ: ০৬:০০ পিএম, ২৩ জানুয়ারী, ২০২২


Thumbnail

ছোট থেকেই পাঠ্য বইয়ে পড়ে এসেছেন যে, "পানি অপর নাম জীবন"।তবে অতিরিক্ত পানি পানে ঝুঁকিও রয়েছে।  আপনি যদি সারাদিন পর্যাপ্ত পানি পান না করেন, তবে দুর্বল বোধ করতে পারেন, মাথাব্যথা এবং অন্যান্য স্বাস্থ্যগত সমস্যা অনুভব করতে পারেন। পর্যাপ্ত পানি পান করা স্বাস্থ্যের পক্ষে সর্বদা ভালো, তবে এটির পাশাপাশি ঝুঁকি রয়েছে বলে অতিরিক্ত পানি পান করা থেকে বিরত থাকুন। প্রতিদিন কমপক্ষে ২ লিটার পানি পানের চেষ্টা করুন। তবে যতটা সম্ভব ঘুমাতে যাওয়ার ঠিক আগে পানি পান এড়িয়ে চলুন। একটি ভালো মানের ঘুমের জন্য ঘুমাতে যাওয়ার ঠিক আগে নয়, অন্তত ত্রিশ মিনিট আগে পানি পান করুন।

ঘুমাতে যাওয়ার আগে পানি পান করা কেন ভালো নয়:

ঘুমোতে যাওয়ার ঠিক আগে পানি পান করা আপনার ঘুমচক্রে ব্যাঘাত ঘটাতে পারে। এটি রাতে প্রস্রাবের জন্য আপনার বাথরুমের তাড়া বাড়িয়ে দিতে পারে।

সাধারণভাবে, আমাদের প্রস্রাবের আউটপুট রাতে কমে যায়, যা আমাদের পাঁচ থেকে সাত ঘণ্টা শান্তভাবে ঘুমাতে দেয়। শোবার আগে আপনি যদি এক বা একাধিক গ্লাস পানি পান করেন তবে রাতে আপনার একাধিকবার প্রস্রাব করার তাগিদ থাকতে পারে।

ঘুম ব্যহত হলে পরের দিন মুড সুইং, শরীর জ্বালা, উচ্চ রক্তচাপ, খিটখিটে মেজাজের কারণ হতে পারে। একটি সমীক্ষা অনুসারে, ৪৫ বছরের বেশি বয়স্ক প্রাপ্ত বয়স্করা যারা রাতে ছয় ঘণ্টারও কম ঘুমাতেন তাদের স্ট্রোকের ক্ষেত্রে স্ট্রোকের ঘটনা বেশি।

রাতে পানি পানের উপকারিতা:

রাতের খাবার খাওয়ার পরে এক বা দুই গ্লাস পানি পান করলে তা নানাভাবে স্বাস্থ্যের উপকার করে। ভারি খাবার বা অধিক মশলাযুক্ত খাবার খাওয়ার পরে হালকা গরম পানির চেয়ে ভালো আর কিছু নেই। পানি প্রাকৃতিক ক্লিনার হিসাবে কাজ করে এবং শরীর থেকে বিষাক্ত পদার্থ দূর করতে সহায়তা করে। এটি হজম প্রক্রিয়া ত্বরান্বিত করে এবং কোষ্ঠকাঠিন্য দূরে রাখে।


পানি   স্বাস্থ্য   টিপস  


মন্তব্য করুন


লিভিং ইনসাইড

ইন্সটাগ্রাম থেকে ছবি, ভিডিও সেভ করার সহজ পদ্ধতি

প্রকাশ: ০২:২২ পিএম, ২৩ জানুয়ারী, ২০২২


Thumbnail

সোশ্যাল মিডিয়ার জনপ্রিয় প্ল্যাটফর্ম হলো ইন্সটাগ্রাম। মেটার মত এই প্ল্যাটফর্মেও  ছোট থেকে বড় বর্তমান সময়ে সবার বিচরণ। বলা যায়, মেটার মত সমান জনপ্রিয় এই প্ল্যাটফর্ম। তাই এই জনপ্রিয়তা ধরে রাখতে প্রতিষ্ঠানটি নিয়ে আসছে নতুন নতুন ফিচার। 

বর্তমানে ইনস্টাগ্রামের সর্বশেষ এবং জনপ্রিয় ফিচার হচ্ছে রিল তৈরি করা। ইনস্টাগ্রামের বিশেষ এই ফিচারের মাধ্যমে ৬০ সেকেন্ড দৈর্ঘ্যের ছোট ভিডিও ক্যাপচার করে নিজের প্রোফাইলে আপলোড করতে পারবেন। ফলে আপনার ফলোয়ারের সংখ্যা বাড়বে যথাসম্ভব তাড়াতাড়ি। এবার ইনস্টাগ্রাম ব্যবহারকারীদের জন্য আসছে নতুন ফিচার।

নতুন এই ফিচারের মাধ্যমে  ইনস্টাগ্রামে ডিলিট হওয়া ছবি, ভিডিও, স্টোরি, রিল রিস্টোর করা যাবে। যদিও ডিলিট করার ২৪ ঘণ্টা পর্যন্ত রিস্টোর করা সম্ভব হবে। এ ছাড়াও যে কোনো পোস্ট ডিলিট হওয়া অথবা আর্কাইভ করার ৩০ দিনের মধ্যে তা ফিরিয়ে আনার সুযোগ পাবেন ব্যবহারকারীরা। হ্যাকাররা যেন অ্যাকাউন্ট থেকে ছবি ভিডিও ডিলিট করে দিতে না পারেন সেই উদ্দেশ্যেই এই ফিচার এসেছে বলে জানিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি।

অ্যাপের ভিতরে ডিলিট করা সব ছবি, ভিডিও, রিল, স্টোরি Recently Deleted ফোল্ডারের মধ্যে পাওয়া যাবে। চলুন দেখে নেওয়া যাক কীভাবে ডিলিট হওয়া কনটেন্ট ফিরে পাবেন-

> আপনার ফোনের ইনস্টাগ্রাম অ্যাপ ওপেন করে প্রোফাইলে যান।
> স্ক্রিনের ডান দিকে উপরে মেনু অপশন সিলেক্ট করুন।
> এবার সিলেক্ট করুন সেটিংসে।
> এরপর সেটিংস মেনু থেকে অ্যাকাউন্ট অপশন সিলেক্ট করুন।
> এখানে Recently Deleted অপশন বেছে নিন। এখানে সম্প্রতি ডিলিট হওয়া সব কনটেন্ট দেখতে পাবেন।
> যে পোস্ট রিকভার করতে চান সেটার উপরে ট্যাপ করুন।
> ডান দিকে উপরে থ্রি-ডট মেনু সিলেক্ট করুন।
> এখানে পোস্ট রিকভার অথবা পাকাপাকিভাবে ডিলিট করার অপশন পাবেন।
> ডিলিট হওয়া পোস্ট রিস্টোর করতে OTP এর মাধ্যমে আপনার পরিচয় যাচাই করতে হবে। এই জন্য আপনার মোবাইল নম্বর ও ইমেলে OTP পাঠাবে ইনস্টাগ্রামে।
> OTP দিয়ে সেই পোস্ট রিকভার অথবা পাকাপাকিভাবে ডিলিট করে দিন।

ইন্সটাগ্রাম   সোশ্যাল মিডিয়া  


মন্তব্য করুন


বিজ্ঞাপন