ঢাকা, মঙ্গলবার, ২২ মে ২০১৮ , ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

রোজায় খাওয়া-দাওয়া

লাইফস্টাইল ডেস্ক
প্রকাশিত: ১৭ মে ২০১৮ বৃহস্পতিবার, ০১:০৬ পিএম
রোজায় খাওয়া-দাওয়া

রোজা আসতে না আসতেই আমাদের কতোই না পরিকল্পনা শুরু হয়ে যায়। বিশেষ করে খাওয়া-দাওয়া নিয়ে। কখন কি খাবো, কি খাবো না, কতোটুকু খাবো, কোনটা খেলে ক্ষতি কেম হবে- এগুলো নিয়ে আমাদের পরিকল্পনা আর চিন্তার কোনো শেষ থাকে না। এসময় আমাদের খাওয়া-দাওয়া নিয়ে যথেষ্ট সচেতন থাকতে হয়। রোজায় কি খাবো আর কি খাওয়া ঠিক না, তা নিয়ে আজকের আলোচনা-

কী খাবেন

১. বেশি ভাজাপোড়া খাবার খাওয়া থেকে বিরত থাকুন। এগুলো বদহজম, বুক জ্বালাপোড়া, ওজন বাড়িয়ে দিতে পারে। আর যেসব খাবারে অতিরিক্ত চিনি থাকে সেগুলো অবশ্যই এড়িয়ে চলুন।

২. সেহরি ও ইফতারের সময় অতিরিক্ত খাবার খাবেন না। সেহরিতে ভাত, রুটি, মসুর ডাল, শাকসবজি বেশি পরিমাণে খান। এ খাবারগুলো পাকস্থলীতে পরিপাক হতে অনেক সময় লাগে। সেহরি ও ইফতারের মাঝে প্রচুর পানি পান করুন।

৩. প্রতিদিনের ইফতারে কয়েক পদের ফল রাখার চেষ্টা করুন। রোজা রেখে রাতের খাবারে ভুনা মাংস, পোলাও জাতীয় খাবার না খাওয়াই ভাল, এগুলো খেলে বেশি পানির তেষ্টা পায়।

৪. রাতের খাবার কিছুটা হালকা ও সহজে হজম হয় এমন হওয়া উচিত৷ ঢেঁকিছাঁটা-লাল চালের ভাতের সঙ্গে সবজি বেশি থাকা চাই৷ যেমন: লাউশাক, মিষ্টিকুমড়া, শসা, পটল, ঝিঙে, কচুশাক, কচু ইত্যাদির ঝোলে তরকারি, এক টুকরা মাছ অথবা এক টুকরা মাংস হতে পারে।

৫. সারাদিন খেতে পারবেন না বলে সেহেরিতে ইচ্ছামতো পেটভর্তি করে খাবেন না৷ পেটের এক-চতুর্থাংশ খালি রাখবেন। এতে আলস্য ভর করবে না।

কী খাবেন না

১. রোজার মাসে অতিরিক্ত চা ও কফি খাওয়া ঠিক নয়। ধূমপান পরিহার করুন অবশ্যই।

২. অনেকেই ঘুম থেকে জেগে সেহরি খেতে চান না, সেহরি না খেয়ে রোজা রাখলে শরীর ক্লান্ত ও দুর্বল হয়ে যায়। তাই কষ্ট হলেও সেহরি খাওয়ার চেষ্টা করুন।

৩. ঠিকমতো ঘুমান। ভালো ঘুমের ফলে খাবার হজম হতে সাহায্য করে। তা না হলে দেখবেন আপনার হজমে সমস্যা হয়ে গ্যাস্ট্রিক হতে পারে।

৪. সোডা জাতীয় খাবার এবং অ্যালকোহলিক কোনোকিছু খাবেন না। চকলেট ক্যান্ডির বদলে ফলের জুস খান। সারাদিনের রোজার পর চা, কফি কিংবা সোডা আপনার গ্যাস্ট্রিকজনিত সমস্যার কারণ হতে পারে।


বাংলা ইনসাইডার/এসএইচ/জেডএ