ঢাকা, শুক্রবার, ২০ জুলাই ২০১৮ , ৪ শ্রাবণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

দুশ্চিন্তা পিছু না ছাড়লে…

লাইফস্টাইল ডেস্ক
প্রকাশিত: ২৪ জুন ২০১৮ রবিবার, ০৮:৩৪ এএম
দুশ্চিন্তা পিছু না ছাড়লে…

চিন্তা করতে করতে দিন কপালে ভাঁজ ফেলে দিয়েছেন, চোখের নিচে কালো দাগ পড়েছে, রাতে ঘুম হচ্ছে না, কাজে মন বসছে না, সারাদিন মেজাজটাও খারাপ হয়ে থাকছে। এই অবস্থা চিন্তা থেকে নয়, দুশ্চিন্তা থেকে। এই দুশ্চিন্তা কখনোই ভালো ফল আনতে পারবে না আপনার জীবনে। তাই আপনার জীবন থেকে দুশ্চিন্তাকে তাড়িয়ে ফেলুন।

সচেতন হন, সমস্যা নিয়ে ভাবুন

যেহেতু মাথার মধ্যে ঘুরপাক খাচ্ছেই, তাই সবসময় বুঝতে চেষ্টা করুন যে কখন আপনি অতিরিক্ত চিন্তা করছেন। এরপর নিজেকে প্রশ্ন করুন কেন চিন্তাটা হচ্ছে, কি নিয়ে হচ্ছে। চিন্তাটা কি আসলেই গুরুত্বপূর্ণ কি না সেটিও ভাবুন। দেখবেন এই প্রশ্নগুলো থেকে উত্তর মিলছে এবং কখনো সমাধানও বেরিয়ে আসছে। আপনার পরিবর্তন হতে শুরু করেছে।

খারাপ আশঙ্কা না করে ভালো সম্ভাবনার কথা ভাবুন

যে কারণে অতিরিক্ত চিন্তা হয় তার মধ্যে ‘ভয়’ অন্যতম একটি কারণ। ভয়ের কারণেই খারাপের কথাগুলো মাথায় আসছে, দুশ্চিন্তায় পড়ে যাচ্ছেন আপনি। শত চেষ্টাতেও বের হওয়া মুশকিল। এরকম অবস্থা থেকে বেরিয়ে আসুন। জীবনে ভালো কি হতে পারে তা নিয়ে ভাবুন। খারাপগুলোকে মন থেকে তাড়ান। আর আপনি চাইলেই ভালো বা খারাপ সবকিছুকে ভালো চিন্তায় নিয়ে যেতে পারেন। মনে রাখবেন যে ভালো বা খারাপ সবই জীবনে ঘটে। এ থেকে শিক্ষা নিন, জীবনকে পরিপূর্ণ করুন।

ভালো লাগার কাজ করুন

নিজের ভালো লাগা, পছন্দের কাজগুলো করলে সেটা কাজে লাগে। ধরুন বেশ চিন্তায় আছেন। এমন সময়ে ভাবুন যে কোন কাজটি করা প্রয়োজন বা কোন কাজটি পছন্দের, সময়ের অভাবে তা করতে পারছেন না, এমন কাজ করুন। এছাড়া নিত্যদিনের যে কাজগুলো করতে ভালো লাগে যেমন- গান শোনা, বই পড়া, ছবি আঁকা, আড্ডা দেওয়া, বেড়াতে যাওয়ার মতো কাজগুলো করে নিজেকে ব্যস্ত রাখুন। দুশ্চিন্তা কমে যাবে।

চিন্তাগুলোকে সামনে এগিয়ে নিয়ে যান

ক্ষুদ্রকে বৃহৎ বস্তুতে নিয়ে যাওয়া আর কোনোকিছুর খারাপটা না ভেবে ভালোটা চিন্তা করুন, দেখবেন এটা এমন কঠিন কোনো কাজ নয়। ভাবুন যে, যেটা নিয়ে এতো চিন্তা তা হয়তো অচিরেই নিঃশেষ হয়ে যাবে, মূল্যহীন হয়ে যাবে। কখন কি ঘটবে সেটা আপনি নাই বুঝতে পারেন, সেটি ছেড়ে দিন প্রকৃতির হাতে। কারণ প্রকৃতির ইচ্ছাতেই জীবনে সব হবে। সেই মতো করে চিন্তাকে মাথায় নিয়ে আপনি নিজের পথ চলুন।

সবকিছু নিখুঁত হবে, এটা ভাববেন না

আমরা জীবনে প্রতিটি ক্ষেত্রে একেবারে নিখুঁত হতে চাই, সবার থেকে শীর্ষে থাকতে চাই। এটা একদমই ঠিক নয়। উচ্চাকাঙ্ক্ষা থাকতেই পারে, কিন্তু সেটা কখনো আকাশছোঁয়া করবেন না। নিখুঁত হতে পারছেন না ভেবে দুশ্চিন্তা করা মানে সময় নষ্ট করা। এর চেয়ে বাধা পেরিয়ে সামনে এগোন। দেখবেন সফলতা আপনি পাবেনই।

ভবিষ্যত নিয়ে ভাবা কমিয়ে দিন

আপনি জানেন না যে ভবিষ্যতে কি ঘটতে যাচ্ছে। তাই ভবিষ্যতে কি ঘটনা-দুর্ঘটনা ঘটবে তাও আপনি জানেন না। কিন্তু দেখা যায় যে ভবিষ্যতের চিন্তা করতে করতে আপনার বর্তশানটাকেই আপনি অবহেলা করে নষ্ট করে ফেলছেন। এটা বাদ দিয়ে বর্তমানকে সবচেয়ে বেশি মূল্য দিন, ভালো থাকতে চেষ্টা করুন।

সর্বাত্নক চেষ্টা করুন, ফলাফল নিয়ে সুখী হন

আপনি ভালো নন, পরিশ্রমী নন, উপযুক্ত নন, সফল নন–এই চিন্তাগুলো থেকে মনের মধ্যে ভয় ঢোকে। আপনি ধরেই নেন যে আপনি কিছুই পারেন না। ফলে আপনি যতটুকুই পারতেন, সেটার হালও ছেড়ে দেন। ফলে কাজে আর কোনো সফলতাই আর আসেনা। সফলতার নিয়ন্ত্রণ আপনার হাতে নেই, এটা মেনে নিন। নিজের সবটুকু দিয়ে কাজ করুন। যা ফলাফল আসুক, মেনে নিতে শিখুন।

কৃতজ্ঞতাবোধ বাড়ান

একই সময়ে সুখ আর দুঃখ একসঙ্গে আসতে পারেনা সাধারণত। আপনাকে আনন্দ দিতে আর সুখী করে তুলতে আপনার আশেপাশের মানুষজন, বিষয়বস্তুগুলো বেশ ভূমিকা রাখে, কারণ সুখ নিজ থেকে এসে ধরা দেয়না। তাই প্রতিদিন একটি তালিকা করুন যে আপনি কার প্রতি এবং কিসের প্রতি কৃতজ্ঞ। ভালো বা খারাপ সবমিলিয়েই ভাবুন, কৃতজ্ঞ থাকুন।

বাংলা ইনসাইডার/এসএইচ/জেডএ