ঢাকা, সোমবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮ , ৯ আশ্বিন ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

প্রশ্নের বিস্ময়কর শক্তি

লাইফস্টাইল ডেস্ক
প্রকাশিত: ১২ জুলাই ২০১৮ বৃহস্পতিবার, ০৮:৩৪ এএম
প্রশ্নের বিস্ময়কর শক্তি

একজন সাংবাদিক, ডাক্তার কিংবা অফিসিয়াল যেই হোক না কেন সকলকে তাঁর কর্মক্ষেত্রে প্রশ্ন করতে হয়। শুধু কর্মক্ষেত্রে নয়, পারিবারিক, সামাজিক, রাজনৈতিকসহ জীবনের সকল ক্ষেত্রেই প্রশ্ন করতে হয়। এই প্রশ্নের বিষ্ময়কর এক শক্তি রয়েছে। কিন্তু সকলের প্রশ্ন করার ক্ষমতা সমান নয়। দেখা যায়, সেসব মানুষ প্রশ্ন করতে পারে তাদের অনুসন্ধিৎসা মন, মানসিক বুদ্ধি এবং অন্যকে সহজে বুঝতে পারার ক্ষমতা বেশি।

২০১৮ সালের হার্ভার্ড বিজনেস রিভিউয়ের জুন-জুলাই সংখ্যার এক প্রতিবেদনে এমন তথ্যই উঠে এসেছে।

ওই প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, প্রশ্ন করার ক্ষমতা একজন ব্যক্তির শক্তিশালী টুলস হিসেবে কাজ করে। প্রশ্ন করলে একদিকে যেমন সহজে বিষয়টি সম্পর্কে জানা যায়, অন্যদিকে ব্যক্তি তাঁর ধারণা অন্যের সঙ্গে শেয়ারও করতে আগ্রহ বোধ করে। প্রশ্ন করার মধ্য দিয়ে কোনো প্রতিষ্ঠানে ব্যক্তি শিখতে পারে এবং তাঁর যোগাযোগ দক্ষতাসহ অন্যান্য দক্ষতা বৃদ্ধি করতে পারে। কিন্তু অধিকাংশ মানুষ সহজে প্রশ্ন করতে পারে না। এ বিষয়ে তারা একটি সঠিক পন্থা অবলম্বন করতে পারে না।

হার্ভার্ড বিজনেস রিভিউ এই প্রতিবদনে, কীভাবে প্রশ্ন করতে হবে তা উল্লেখ করে বেশ কিছু বিষয় পাঠকের সামনে তুলে ধরেছে। বিষয়গুলো হলো:

প্রশ্ন করুন, জানুন

অফিসে কাজ করেন। চুপ করে থাকেন। কিন্তু এটা কখনোই ঠিক নয়। কেননা প্রশ্ন না করে চুপ করে থাকলে আপনি কখনো কিছু শিখতে পারবেন না। জানতে পারেবন না। তবে মনে রাখতে হবে, প্রশ্ন করার আগে অন্যের কথা ভালো ভাবে শুনতে হবে। না শুনে অযথা প্রশ্ন করা যাবে না।

ধারাবাহিক ও সামঞ্জস্যপূর্ণ প্রশ্ন করুন

প্রশ্ন সবর্দা ধারাবাহিক হওয়া উচিত। কাউকে প্রশ্ন করা হলে সাধারণ প্রশ্ন দিয়ে শুরু করে ধীরে ধীরে গভীর প্রশ্নের দিকে এগোতে হবে। তাছাড়া প্রশ্ন হতে হবে সামঞ্জস্যতাপূর্ণ।

মানুষ বুঝে প্রশ্ন করুন

অনেকেই আছে প্রশ্নের উত্তরে হ্যাঁ/ না দিতে পছন্দ করে। আবার অনেকে আছে প্রশ্নের উত্তর দিতে চায় বিশদভাবে। তাই প্রশ্ন করার সময় বিষয়টি বুঝে প্রশ্ন করতে হবে।

বলার ধরনে পরিবর্তন আনুন

প্রশ্ন করার সময় কথা বলার ধরন খুবই গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। আপনি যদি অপরিচিত কাউকে প্রশ্ন করেন তবে সেটা সম্মানের সঙ্গেই করতে হবে। হঠাৎ করে গিয়ে আমরা কাউকে বলতে পারি না, আপনি এ বিষয়টা নিয়ে আমাদের বলেন। আমাদের উচিত ভালো মন্দ জিজ্ঞাসা করার পর ভদ্রভাবে তাকে বলা, আপনি কি বিষয়টি সম্পর্কে আমাদের জানাবেন। দেখা যবে, ওই ব্যক্তি তখন নিজে থেকে সব উত্তর দিয়ে দিচ্ছে।

মনোযোগী হোন

প্রশ্ন করলেন ঠিকই, কিন্তু শোনার ব্যাপারে আপনার কোনো আগ্রহ নেই। এমন হলে কোনো ভাবেই সফল প্রশ্নকারী হয়ে ওঠা সম্ভব নয়।

প্রতিউত্তর দিন

প্রশ্ন করে চুপ থাকলে হবে না। আপানাকে কথা বলে যেতে হবে। প্রশ্নের প্ররিপ্রেক্ষিতে প্রশ্ন করতে হবে। সময়ে সময়ে অন্য ব্যক্তির কথার প্রতিউত্তর করতে হবে।

কি বলবেন, কি বলবেন না বুঝুন

প্রশ্নে ব্যক্তি কি বলবো আর কি বলবো না তা বুঝতে হবে। দরকার হলে আগে থেকে মনে মনে ঠিক করে নিতে হবে। যদিও অনেক সময় পরিস্থিতি ভিন্ন রকমের হয়ে থাকে, তবে সে পরিস্থিতিকে নিজের নিয়ন্ত্রেণে আনতে হবে।

বাংলা ইনসাইডার/বিপি/জেডএ