ঢাকা, শনিবার, ২৩ মার্চ ২০১৯, ৯ চৈত্র ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

কি করবেন ছুটির দিনে?

লাইফস্টাইল ডেস্ক
প্রকাশিত: ১১ জানুয়ারি ২০১৯ শুক্রবার, ০৮:০৫ এএম
কি করবেন ছুটির দিনে?

পুরো সপ্তাহে অফিসে সেই খাটুনি, প্রেজেন্টেশন, প্রোজেক্ট জমা দেওয়ার কাজগুলো। সেগুলো করতে গিয়ে হাঁপিয়ে উঠতে উঠতে ভাবেন কবে আসবে ছুটির দিনটা, কবে একটু হাত-পা মেলে দিয়ে ঘুমাবো। কিন্তু পুরো ছুটির দিনে শুধু ঘুমিয়েই পার করে দেবেন? জমে থাকা কতো কাজ, কতো দায়িত্ব, নিজেকে ঝালাই করে নেওয়ার জন্য তো এই একটা দিনই রয়েছে। তাই কাজে লাগান এই দিনটিকে।

কোনো যন্ত্রকেও একটানা চালানোর পরে তার মেরামতের প্রয়োজন হয়, যাতে সেটি বিকল না হয়ে যায়। মানুষ হয়তো যন্ত্র না, কিন্তু সে বিকল না হলেও কাজের একঘেয়েমি চাপে সে ঝিমিয়ে পড়ে। তাই একজন মানুষেরও ‘রিফ্রেশমেন্টের’ দরকার রয়েছে। সেটা ছুটির দিনেই করে ফেলুন। 

ঘরের জমে থাকা কাজ সারুন

প্রতিদিন কাজ থেকে বাসায় ফিরে কাপড়চোপড়, ব্যাগ, ঘরের জিনিসপত্র ছড়িয়ে ছিটিয়েই রাখা হয়। ক্লান্ত শরীরে ঘর গুছানো বা আলমারীতে কাপড় ভাঁজ করে রাখার ধৈর্য্য কারোই থাকে না। তাই পুরো সপ্তাহের একগাদা কাজ জমে থাকে ছুটির দিনের জন্য। তাই ছুটির দিনে ঘরের কাজে একটু সময় দিন। ঘরটা  মন দিয়ে পরিষ্কার করে গোছান, টেবিল, আলমারী ঝেড়েমুছে সাফ করুন। জমে থাকা কাপড়গুলো ধুয়ে ফেলুন।

কেনাকাটা

কর্মব্যস্ততার কারণে বাজারে বা শপিংমলে গিয়ে কেনাকাটার সুযোগ তো হয়ই না। অফিস থেকে বের হতেই দেখা যায় মার্কেট বন্ধ হয়ে যায়। তাই অনেক জরুরি কিছুই কেনা হয়ে ওঠে না। তাই ছুটির দিনে কি কেনা প্রয়োজন তার তালিকা বানান। তারপর চটজলদি বেরিয়ে পড়ুন, সময় নিয়ে কিনে ফেলুন। ছুটির দিনে যদি পুরো সপ্তাহের কেনাকাটা করে রাখতে পারেন তাহলে ঝামেলা অনেক কমে যায়।

পরিবারকে সময় দিন

সারা সপ্তাহের ব্যস্ততায় পরিবারকে সময় দেওয়া হয় না। এমনকি কথা বলার সময়ও হয়না। সাপ্তাহিক ছুটির দিনটিতে পরিবারের জন্য অবশ্যই সময় রাখুন। পরিবারকে নিয়ে কোথাও বেড়িয়ে আসতে পারেন, বাইরে কোথাও থেকে খাওয়াদাওয়াও সেরে নিতে পারেন।

বন্ধুদের ডেকে নিন

খুব বেশি অসামাজিক হয়ে যাচ্ছেন আজকাল? বন্ধুদের খোঁজও নেন না? তাহলে ছুটির দিনকে কাজে লাগান। বন্ধুদেরকে বাড়িতে ডেকে নিতে পারেন। চা-নাস্তার সঙ্গে আড্ডাতেও মন দিন। এছাড়া বন্ধু;দের প্রিয় কোনো জায়গায় সবাই এক হোন, কোথাও ঘুরতে যান বা পিকনিক পার্টির আয়োজন করে নিন। পুরো সপ্তাহের মানসিক চাপ দূর হবে, প্রিয় মানুষদের সঙ্গে বন্ধন দৃঢ় হবে।

বিশেষ কোনো রান্নাবান্না

ছুটির দিনে বাড়িতে খাবারের বিশেষ আয়োজন করে ফেলুন। আপনি নিজের হাতে রান্না করুন সবার পছন্দের কোনো আইটেম। আমন্ত্রণ করুন কোনো আত্মীয় বা বন্ধুবান্ধবকে। তাদের নিয়ে করে ফেলতে পারেন কোনো পার্টির আয়োজন। হোক সেটা ঘরোয়া পার্টি।

সপ্তাহের শুরুটা কীভাবে করবেন তার পরিকল্পনা

চুটিয়ে ছুটি উপভোগ করতে গিয়ে পরবর্তী দিনগুলোর কথা ভুলে যাবেন না যেন। সামনের কর্মব্যস্ত দিনগুলোতে কী কী করবেন বা কোন কাজ শুরু করবেন, সেটা এই ছুটির দিনেই তালিকা করে রাখতে পারেন। এতে করে হালকা মেজাজে আপনি পরদিন থেকে আপনার কর্মস্থলে যেতে পারেন।

প্রিয় মানুষটিকে সময় দিন

কাজের চাপে প্রিয় মানুষটিকে আমরা একদমই সময় দিতে পারিনা। এর ফলে সম্পর্কের মাঝে তৈরি হয় দুরত্ব, ভুল বোঝাবুঝি। তাই ছুটির দিনে সারাদিন না ঘুমিয়ে বা বাসায় বসে না থেকে প্রিয় মানুষটিকে সময় দিন। তাকে নিয়ে একটু ঘুরতে যান, বাইরে কোথাও খাওয়াদাওয়া করুন।

পছন্দের সৃজনশীল কাজ করুন

আপনি ব্যস্ততার চাপে হয়ত ভুলতে বসেছেন যে আপনার বিশেষ কিছু গুণ রয়েছে। সেগুলোকে ঝালাই করার মতো সময় বা সুযোগ আপনার হয় না হয়তো। হওয়ার কথাও না। সেক্ষেত্রে আমরা ছুটির দিনগুলোকে কিছুটা কাজে লাগাতেই পারি। ধরুন ছবি আঁকলেন, পছন্দের কোনো গান তুলে ফেললেন গলায়। বা গান শুনুন, নতুন আসা কোনো সিনেমাও দেখে নিতে পারেন, বই পড়তে পারেন।

নিজের যত্নে সময় দিন

পুরো সপ্তাহের ব্যস্ততায় নিজের দিকে খেয়াল করার ফুসরত আপনার নেই। সাপ্তাহিক ছুটির দিনে কিছুটা সময় রাখুন নিজের জন্য। এদিন রূপচর্চাটা সেরে নিন। ঘরে বসেও মনের মতো করে রূপচর্চা করতে পারেন। আবার পার্লার বা সেলুনে গিয়েও নিজের যত্ন নিয়ে আসতে পারেন। কোনো রোগবালাই থাকলেও হয়তো চিকিৎসকের কাছে যাওয়া হয় না। ছুটির দিনটিতে অ্যাপয়েন্টমেন্ট নিয়ে চিকিৎসাটাও সেরে ফেলুন।

বাংলা ইনসাইডার/এসএইচ