ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০১৯, ৪ আষাঢ় ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

দিনে কয়টা ডিম খাবেন?

লাইফস্টাইল ডেস্ক
প্রকাশিত: ২৬ জানুয়ারি ২০১৯ শনিবার, ০৩:০১ পিএম
দিনে কয়টা ডিম খাবেন?

সকালের নাস্তায় একটি ডিম খাওয়ার পর দুপুরের মেন্যুতেও দেখলেন ডিম। আপনি চিন্তায় পড়লেন আবার ডিম খাবো? শরীর খারাপ করবে না তো আবার? একটা বেশি ডিম খেয়ে ফেলবো? আবার একটু বয়স হতে থাকলে ডিম খাওয়া যাবে তো, বা খেলেও কয়টা ডিম খাবো, এ নিয়ে চিন্তা ঘুরতে থাকে মাথায়। ডিম খেতে গেলে আপনাকে আগে বয়স আর স্বাস্থ্যের অবস্থা বিবেচনা করে নিতে হবে। 

ডিম এমনই একটি খাবার যার স্বাস্থ্যগুণ নিয়ে কোনো সন্দেহ নেই। এটি সর্বজনবিদিত, খেতে ভালোবাসেন না এমন মানুষও খুঁজে পাওয়াও কঠিন। আর ডিম কমবেশি প্রায় প্রতিদিনই আমাদের খেতে হয়। এই অবস্থায় দিনে কতগুলো ডিম খাওয়া যাবে, কয়টা পর্যন্ত খেলে শরীরে কোনো সমস্যা হবে না, এই প্রশ্নটা সবার মনেই আসে। আমরা যারা ডিম পছন্দ করি, তারা একসঙ্গে একাধিক যেমন দিনে ৩-৪ টা ডিমও খেয়ে ফেলেন। আবার ভাবতে থাকেন এতে কি স্বাস্থ্যহানি বা অন্যকোনো প্রভাব পড়বে না তো?

পুষ্টি বিশেষজ্ঞরা ডিম কয়টা খাবেন না খাবেন সে বিষয়ে বলেন, যারা প্রতিদিন শরীরচর্চা বা কায়িক পরিশ্রম করেন না, তাদের দিনে দুটির বেশি ডিম খাওয়া উচিত নয়। আর গরমের দিনে একটির বেশি ডিম পারতপক্ষে না খাওয়াই ভালো। গবেষণায় দেখা গেছে, সকালের নাস্তায় ডিম খেলে দুপুরের আগ পর্যন্ত পেট ভরা থাকে। ঠিক একইভাবে ৩৬ ঘণ্টা পর্যন্ত ক্যালোরি গ্রহণ করার মাত্রা কমে যায়। প্রাপ্তবয়স্ক নারীপুরুষ সবার ক্ষেত্রেই এমনটা ঘটে। 

আমরা সবাই জানি যে পেশি ও হাড়ের জোর বাড়াতে সাহায্য করে ডিম। সেই সঙ্গে কীভাবে ডিম খাচ্ছেন সেটিও গুরুত্বপূর্ণ। তেল না থাকার জন্য সিদ্ধ ডিম বেশি স্বাস্থ্যকর।

অল্প খরচে সুস্থ থাকতে ডিমের কোনো বিকল্প নেই আসলে। চিকিৎসকরা বলছেন, না বুঝে যখন তখন ডিম না খাওয়াই ভালো। বয়স অনুযায়ী ডিম খাওয়া উচিত অবশ্যই। চিকিৎসকদের পরামর্শ অনুযায়ী, মোটামুটি ৪-৫ বছর বয়স থেকেই নিয়মিত ডিম খাওয়া উচিত। ৪ থেকে ১০ বছর পর্যন্ত প্রতিদিন ১টা করে ডিম খাওয়া যাবে। এতে ক্ষতির কোনো আশঙ্কা নেই। আর ১০ থেকে ২০ বছরে দিনে ২টি করে ডিম খাওয়া যায়। ২০ থেকে ২৫ থেকে ৩০ বয়সীরা দিনে ৩টি করে ডিম খেতেই পারেন।

তবে চিকিৎসকরা বলছেন, বয়স বাড়লে ডিম খাওয়া একেবারে কমিয়ে দেওয়ার প্রয়োজন নেই। তবে সেক্ষেত্রে কুসুম না খাওয়াই ভালো। কোলেস্টেরলের সমস্যা, হৃদরোগ, উচ্চরক্তচাপের সমস্যা থাকলে কুসুম না খাওয়াই ভালো। তবে ৪০ এর ওপরে বয়স হলে দিনে নয়, বরং একদিন পর একদিন ডিম খাওয়া উচিত। সেই ডিমও হতে হবে কুসুম ছাড়া।

বাংলা ইনসাইডার/এসএইচ/এমআর