ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২২ আগস্ট ২০১৯, ৬ ভাদ্র ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
Bagan Bangla Insider

অফিসে বসন্তের সাজ

লাইফস্টাইল ডেস্ক
প্রকাশিত: ১২ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ মঙ্গলবার, ১২:৩৮ পিএম
অফিসে বসন্তের সাজ

আজ রাতটা পার হলেই কাল ফাল্গুনের প্রথমদিন। বসন্তবরণের সাজগোজ নিয়ে কতো পরিকল্পনাই না করেছে নিতু। শাড়ি পরবে, দারুণ সেজেগুজে ঘুরতে যাবে প্রিয় মানুষগুলোর সঙ্গে। কিন্তু সমস্যা হলো অফিস তো করতে হবে। কিন্তু তাই বলে সেজেগুজে বের হওয়া যাবে না, তা তো না। এরই মধ্যে অফিসে বসন্তের হালকা সাজ নিয়ে পরিকল্পনা করে ফেলেছে নিতু।

বসন্তের প্রথমদিনটি তো সাধারণ কর্মদিবস থাকে, ছুটিতে আরাম করে সেজেগুজে বের হবেন সেই উপায় নেই। অফিস তো করতেই হবে, তাই বলে কি বসন্তবরণ হবে না? অবশ্যই হবে। বসন্তের পোশাক, হালকা সাজ আর অফিসের কাজ এই দিয়েই বরণ করে নিন ঋতুরাজকে। অফিস আছে বলে বসে বসে কেবল অফিসই করতে হবে তা নয়, যে যেখানে যে কাজেই থাকি না কেন, অন্তত পোশাকে এবং সাজে তো প্রকাশ করতে পারি বসন্ত এসেছে। অফিস থেকে বেরিয়ে ঘুরেফিরে বেড়াবেন, মেলায় যাবেন। সেই মতোই সাজবেন।

বসন্তে সাধারণত হালকা সাজই বেশি চলে। সেই সাজে অবশ্যই বাঙালিয়ানা থাকবে, স্বাভাবিক। আর বসন্তে শাড়ি না পরলে কেমন একটু খারাপই লাগে। চাকরিজীবী মেয়েরা তাই একটু বুঝেশুনে শাড়ি বেছে নিন। এজন্য সবচেয়ে ভালো হয় তাঁতের শাড়ি। চিকন বা মাঝারি গড়নের পাড়, একটু কাজ করা আঁচল আর ভেতরে হালকা কাজ- দারুণ দেখাবে। এছাড়া আপনি হালকা জামদানিও বেছে নিতে পারেন, মানাবে ভালো। আর যদি একটু জমকালো হতে চান তো হাফ সিল্ক, তসরের শাড়িও আপনার জন্য ভালো হবে। এই ধরনের শাড়িতে আপনি সারাদিন আরামবোধও করবেন, কাজ করতেও সমস্যা হবেনা।

শাড়ির সঙ্গে এবার ভাবুন ব্লাউজ নিয়ে। এখন তো মিলিয়ে ব্লাউজ খুব একটা পরে না। আপনি চাইলে কিছুটা মিলিয়ে পরুন। নয়তো বিপরীত রঙের বাটিক বা লেইস বসানো ব্লাউজও পরতে পারেন। সেক্ষেত্রে বিপরীত রঙের ব্লাউজই ভালো।

এবার ভাবুন সাজগোজ নিয়ে। মুখের সাজটিই নিজের মতো করে ভাবুন। কারণ আপনিই ভালো জানবেন আপনাকে কোন সাজ আর মেকআপে মানায় ভালো। তবে মুখ বেশি উজ্জ্বল করতে যাবেন না। অফিসে সেটি বেমানান লাগবে। হালকা ফাউন্ডেমন আর প্যানকেকই যথেষ্ট। কপালে শাড়ির রঙের সঙ্গে মিলিয়ে টিপ পরে নিতে ভুলবেন না। কানে ঝুমকো দুল ভালো লাগবে। নাকে একটু বড় নাকফুল পরে নিতে পারেন। ঠোঁটে হালকা লিপস্টিক। চোখ সাজাবেন কাজলে। কাজল একটু গাঢ় হলেই এদিন দেখতে ভালো দেখাবে। চুল ছাড়বেন না বেধে রাখবেন, সেটা নির্ভর করে আপনি কতোটা সামলাতে পারবেন তার ওপর।

বাঙালির সাজগোজে ফুল থাকবে না, তা হয় না। তবে অফিসে তো আর একগাদা ফুল পরে যেতে পারবেন না। ভালো হয় খোপায় ফুল গুজলে। হাতে ব্রেসলেটের মতোও ফুল জড়ালে ভালো দেখাবে। আর হ্যাঁ, চুড়ি আপনাকে পরতেই হবে। একহাতে বেশি করে শাড়ির সঙ্গে চুড়ি পরুন। না হলে দুইহাতেই ভাগ করে পরুন। কাঁচ, মেটাল, মাটির চুড়িও ভালো লাগবে। গলায় হালকা কিছু পরুন।

শাড়ি পরতে অস্বস্তিবোধ হলে লং ফতুয়া বা সালোয়ার-কামিজ পরুন। সঙ্গে গলায় পুঁতির মালা আর চুলে তাজা ফুল দিন। হাতে আর কানেও মিলিয়ে গয়না পরুন।

আর অফিসে পোশাকের রঙের ব্যাপারে সচেতন হন। খুব চোখ ধাঁধানো রং পরতে না চাইলে ওড়নাটা কাঁচা হলুদ, বাসন্তী বা কমলা রঙের বেছে নিন। শাড়িও এমনটা পরুন। আর হলুদের ধারণা থেকে বেরোতে চাইলে অন্য উজ্জ্বল রং বাছুন। আর স্যান্ডেলের ব্যাপারেও ভাবুন। খুব উচু স্যান্ডেল পরতে যাবেন না অফিসে। আপনার ব্যাগে সাজগোজের কিছু উপকরণ সঙ্গে রেখে দেবেন অবশ্যই।

এবার আসি পুরুষের সাজ নিয়ে। অফিসে পোশাকের ব্যাপারে কড়াকড়ি না থাকলে আপনি অবশ্যই এদিন ভিন্নভাবে বসন্তের সাজে সাজুন। ছেলেদের জন্য এদিন পাঞ্জাবির চেয়ে সেরা কিছু নেই। হালকা রঙের একটি পাঞ্জাবি আর পাজামা বা জিন্স বেছে নিন। হাতে চেইনের ঘড়ি পরুন। আর পাঞ্জাবি পরতে না চাইলে ফতুয়াও পরে নিতে পারেন। ব্যস, হয়ে গেলো তো বসন্তের সাজ।

 

বাংলা ইনসাইডার/এসএইচ/এমআর