ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০১৯, ৪ আষাঢ় ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগে নিজেকে কয়েকটি প্রশ্ন

লাইফস্টাইল ডেস্ক
প্রকাশিত: ১৫ এপ্রিল ২০১৯ সোমবার, ০৮:১৭ এএম
সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগে নিজেকে কয়েকটি প্রশ্ন

অনেকদিন থেকেই সিদ্ধান্ত নিচ্ছেন চাকরিটা ছেড়ে দেবেন, বিয়ে করবেন বা কোথাও ঘুরতে যাবেন। কিন্তু সিদ্ধান্ত নিলে কি দিয়ে কি হবে, প্রভাবটা কেমন হবে তা নিয়ে বড়সড় দোটানায় পড়ে যান আপনি। কিন্তু প্রতিটা দিনই তো আপনাকে কোনো না কোনো সিদ্ধান্ত নিতে হয়, ছোট বা বড়। দ্বিধাদ্বন্দ্বে না ভুগে আগে নিজে স্থির হন, নিজেকে বেশ কয়টি প্রশ্ন করুন। দেখবেন কেমন সহজ হয়ে গেছে সব। কেমন হবে সেই প্রশ্ন তা নিয়ে আজকের আলোচনা-

কেন নিচ্ছেন এই সিদ্ধান্ত

এই সহজ প্রশ্নের উত্তর অনেকেই জানে না, বোঝে না। আমরা বেশিরভাগই আবেগের বশবর্তী হয়ে সিদ্ধান্ত নিই। অনেকের দেখাদেখি আমরা সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলি। সেটার ভালো বা খারাপ বুঝতে যাইনা। কিন্তু কোনো সুবিবেচক লোক কখনোই এমনটা করবে না। কোনো সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগে নিজেকে স্পষ্টভাবে জিজ্ঞেস করুন যে কী উদ্দেশ্যে আপনি সিদ্ধান্তটি নিতে চাচ্ছেন। আপনার এখান থেকে শেখার কি আছে, আপনার লাভ কি হতে পারে, লাভটা আপনার জন্য কতটুকু কার্যকর- এই প্রশ্নোত্তরগুলো মনে মনে মিলান। সব ঠিক মনে হলে তবেই সিদ্ধান্ত নিন।

সিদ্ধান্তটি নিয়ে কতদিন থেকে ভাবছেন

প্রশ্নটি আপনার সিদ্ধান্তটির সত্যিকার গুরুত্ব তুলে ধরবে। ধরুন আপনি অনেকদিন থেকে ভাবছেন চাকরি ছেড়ে দেবেন বা আপনি একটা ভালো ফোন কিনবেন- তার মানে এটা নিয়ে আপনি সিরিয়াস। হুট করে রাগের বশে চাকরি ছেড়ে দেওযা নয় বা কারোটা দেখে ভালো ফোন কেনার তাগিদও নয়। যদি বেশিদিন ধরেই এই সিদ্ধান্তগুলো মাথায় ঘুরতে থাকে তাহলে বাস্তবায়ন করতে পারেন। কারণ বলা যায় আপনি বিষয়টা নিয়ে সিরিয়াস। অর্থাৎ সিদ্ধান্ত হুট করে নয়।

সিদ্ধান্তটির দীর্ঘমেয়াদী লক্ষ্য আছে কিনা

আগে নিজেকে জিজ্ঞেস করুন আজ থেকে ৫-১০ বছর পরে আপনি নিজেকে কোথায় দেখতে চান? আপনার এই লক্ষ্যগুলো লিখে ফেলুন। এবার ভাবুন, সিদ্ধান্তটি নিলে কি আপনি আপনার এই লক্ষ্যগুলোর থেকে দূরে সরে যাবেন, নাকি সেই পথেই এগিয়ে যাবেন? এই উত্তরটি খুঁজে বের করা আপনার সিদ্ধান্ত নেবার ক্ষেত্রে খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

সবগুলো বিকল্প ভেবে রাখুন

বর্তমানে যে সিদ্ধান্তটি নেওয়ার কথা ভাবছেন, তার অনেক বিকল্পও থাকতে পারে যেগুলো আপনি বিবেচনা করেননি হয়ত। যে বিকল্পগুলো আপনার মাথায় আসছে সেগুলো লিখে ফেলুন। এবার ভাবার চেষ্টা করুন বর্তমান সিদ্ধান্তের তুলনায় সেগুলো আপনাকে বেশি সুবিধা দেয় কিনা। যদি সুবিধা থাকে তো কেন আপনার এই বিকল্পের চিন্তা আগে মাথায় আসেন তার সবকিছুই লিখে রাখুন।

সিদ্ধান্তটি নেওয়ার শ্রেষ্ঠ সময়

ভেবে দেখুন সিদ্ধান্তটি এখন নিলেই ভালো হবে, নাকি এর থেকে ভালো কোনো সময় আপনার জন্য অপেক্ষা করছে। বর্তমান সময়টা আপনার এই সিদ্ধান্ত নেওয়ার জন্য কেন সুবিধা বা অসুবিধাজনক হতে পারে সেটাও লিখে রাখুন। যদি মনে হয় এখন না নিয়ে পরে নিলেই ভালো, তবে সেটা কবে হতে পারে সেটারও একটা নির্দিষ্ট সময়সীমা বেঁধে দিন।

পূর্ব অভিজ্ঞতা ভাবুন

সিদ্ধান্ত নিয়ে যদি এখনো সন্দেহের মধ্যে থাকেন, আপনার পূর্ব অভিজ্ঞতাকে কিছু দিকনির্দেশনা দেওয়ার সুযোগ দিন। এ ধরনের বড় সিদ্ধান্ত আগে কখনো নিয়েছেন কিনা, সেগুলো আপনার জীবনকে কোন পর্যায়ে নিয়ে গেছে, আপনি সেগুলো নিয়ে সুখী না অসুখী- সেগুলো বিবেচনা করলে আপনার সিদ্ধান্ত নেওয়াটা আগের থেকে কিছুটা সহজ হয়ে আসবে।

সিদ্ধান্ত কীভাবে প্রভাব ফেলতে পারে

মানুষের কল্পনাশক্তি হচ্ছে অনন্য একটি শক্তি। কল্পনা করুন যে আপনি সিদ্ধান্তটি এরই মধ্যে নিয়ে ফেলেছেন। তাহলে দেখুন কেমন বোধ হচ্ছে আপনার। খুশি লাগছে, উত্তেজনাবোধ হচ্ছে? তাহলে বুঝবেন আপনি ঠিক পথেই এগোচ্ছেন। তারপর আবার গভীরভাবে ভাবুন। কী পরিবর্তন আসতে পারে, সেগুলো কি আপনার  অপছন্দ হচ্ছে? ব্যাপারগুলো লিখে ফেলুন। সিদ্ধান্তটি নেবার ক্ষেত্রে অনেক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে এ উত্তরগুলো। 

সিদ্ধান্তটি অন্যের উপর প্রভাব ফেলবে কিনা

ভাবুন যে আপনার সিদ্ধান্তটি কারো ক্ষতি করবে কিনা। কেউ কষ্ট পাচ্ছে কিনা সেটাও দেখুন। নিজেকে এ প্রশ্নের উত্তর দেওয়ার সময় অবশ্যই শতভাগ সৎ থাকুন। সবাইকে সুখী রাখা তো সম্ভব না। আপনার সিদ্ধান্তটা সবার জন্য ভালো হবে তার নিশ্চয়তা নেই। কিন্তু আপনার সিদ্ধান্ত যেন অন্যদের উপর নেতিবাচক প্রভাব না ফেলে সেজন্য অবশ্যই চেষ্টা করবেন। দিনশেষে আপনি যেন নিজেকে বলতে পারেন যে আপনার চেষ্টার কোনো ত্রুটি ছিল না।

সিদ্ধান্তে ব্যর্থ হলে মোকাবেলা করুন নিজ হাতে

আপনার সিদ্ধান্তের ফলাফল আশানুরূপ নাও হতে পারে। সেক্ষেত্রে কী কী নেতিবাচক ব্যাপার ঘটতে পারে তা আগেই ভেবে ফেলুন। ভাবুন আপনি সেগুলোর মুখোমুখি হতে পারবেন কি না। যদি মনে হয় পারবেন, চেষ্টা করুন কীভাবে সেই ব্যর্থতার মোকাবেলা করবেন তাও ভেবে রাখতে। আগে থেকেই এই ব্যাপারটি ভেবে রাখলে দেখবেন আপনার সিদ্ধান্ত নিয়ে নিজের উপর চাপ অনেকাংশেই কমে গেছে।

 

বাংলা ইনসাইডার/এসএইচ