ঢাকা, রোববার, ২১ জুলাই ২০১৯, ৬ শ্রাবণ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
Bagan Bangla Insider

কিছু খাবার একসঙ্গে খেলে হতে পারে বিষক্রিয়া

লাইফস্টাইল ডেস্ক
প্রকাশিত: ২০ এপ্রিল ২০১৯ শনিবার, ০৩:১৫ পিএম
কিছু খাবার একসঙ্গে খেলে হতে পারে বিষক্রিয়া

ছোটবেলা থেকে শুনে আসছি আনারস আর দুধ খেলে বিষক্রিয়া হবে, আমরা এই বিষ খেয়ে মারা যাবো। এমনকি এখনো আমরা সেটা বিশ্বাস করি। আবার চা খেয়ে পানি খেলে নাকি পেটে ক্ষতি হবে, দাঁতও পড়ে যাবে! এমন কথা এখনো আমরা শুনি। যা খাবো, তা সবই পাকস্থলীতে গিয়ে সুন্দরমতো হজম হয়ে যাবে। এটাই তো জানি আমরা। কিন্তু কিছু কিছু খাবার একত্রে খেয়ে নিলে সত্যিকার অর্থে কিছুটা ক্ষতিকর বা বিষক্রিয়া হতে পারে পেটে। এমনই কিছু খাবারের কথা আজ জানাচ্ছি-

দই এবং বিভিন্ন ফল

দই আমাদের কাছে তুমুল জনপ্রিয় আর সহজপাচ্যও বলা যায়। আর ফলের কথা বলতে গেলে সুস্থতার বিচারে ফলের তো কোনো বিকল্প নেই। কিন্তু এই দুই উপাদান কোনোভাবে একত্রে হয়ে গেলে ঘটতে পারে বিপত্তি। যে ফলে ক্ষার বেশি থাকে, সেগুলো দইয়ের সঙ্গে মিললে অ্যাসিড তৈরি করতে পারে। এটি শরীরের পরিপাককে বাধাগ্রস্ত করে।

মাংস এবং দুধ

সাধারণত, মাছ, ডিম, কলিজা ও মাংসে প্রচুর প্রোটিন বা আমিষ থাকে। আর অপরদিকে দুধকে আমরা  সুষম খাদ্য হিসেবে একনামেই চিনি। কাজেই খাদ্যের একাধিক পুষ্টি উপাদানের মধ্যে আবার একই পুষ্টি উপাদান মিলে গেলে তা শরীরের জন্য ভালো নয়। এটা শরীরের জন্য অধিকতর হয়ে যেতে পারে, এমনও হতে পারে যে শরীর এটা নেওয়ার উপযুক্ত নাও হতে পারে।

তরমুজ এবং পানি

একটা প্রবাদ প্রচলিত আছে যে `ফল খেয়ে জল খেও না`। পানীয় ফলের মধ্যে তরমুজ অন্যতম। তরমুজে প্রচুর পরিমাণে পানি এবং রস থাকে। তাই আবার তরমুজ খেয়ে আলাদা করে পানি না খেলেও চলে। কারণ বেশি পানি শরীরের জন্য ভালো নাও তো হতে পারে।

চা এবং দই

চা এবং দই- দুটো পানীয়তেই অ্যাসিড থাকে। তাই সাধারণভাবেই বলা যায় যে এ দুইটি পানীয় শরীরের মধ্যেকার ভারসাম্য নষ্ট করতে পারে। যার ফলে হজমে সমস্যা হয়। তাই এই খাবার দুইটি একসঙ্গে না খাওয়াই ভালো।

কোমল পানীয় ও পুদিনা পাতা

কোমল পানীয়ের সঙ্গে পুদিনাপাতার মিশ্রণ আমরা কমবেশি দেখি বা ব্যবহারও করি। কিন্তু এই দুটি জিনিস একত্রে মিশ্রিত হলে আপনার উপকারের চেয়ে ক্ষতির পরিমাণই বেশি হবে। এতে বদহজম বা অ্যাসিডিটির ভয় বেড়ে যায়। আবার একটি অপরটির সঙ্গে ভালোভাবে মেশে না বিধায় ঝুঁকির মুখেও পড়তে পারেন আপনি।

দুধ এবং অ্যান্টিবায়োটিক ওষুধ

বেশকিছু ওষুধ রয়েছে যেগুলো শরীরে লোহা এবং ক্যালসিয়ামের মতো খনিজের শোষণ প্রতিরোধ করে। তাই যারা কোনো অসুখবিসুখে পড়ে অ্যান্টিবায়োটিক খাচ্ছেন এখন, তাদের ওষুধ চলাকালীন দুধ পান না করাই ভালো। ওষুধ খাওয়ার নির্দিষ্ট বিরতিতে দুধ খেতে পারেন।

দুধ আর লেবু

যখন দুধ লেবু যোগ করা হয় তখন দুধ ফেটে যায়। মানে দুধ তার ঘনত্ব হারায়, টক হয়ে যায়। দেখতেও পানি পানি দেখায়। এরা একসঙ্গে পেটে গেলেও এমনটাই হয়। মানে দুধের কার্যকারিতা নষ্ট তো হয়ই, পেটে অসম্ভব গ্যাস্ট্রিক বানিয়ে ফেলে। আয়ুর্বেদ আর বিজ্ঞান এই দুটি উপাদানকে বিষাক্ত বলে বিবেচনা করে।

সূত্র: টাইমস অব ইন্ডিয়া

বাংলা ইনসাইডার/এসএইচ