ঢাকা, বুধবার, ২৩ অক্টোবর ২০১৯, ৭ কার্তিক ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

আপেলের বীজ কতটা ক্ষতিকর?

লাইফস্টাইল ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৭ জুলাই ২০১৯ রবিবার, ০৫:২৯ পিএম
আপেলের বীজ কতটা ক্ষতিকর?

খুব সুস্বাদু আর পুষ্টিকর ফলগুলোর মধ্যে আপেলের নাম আসবে প্রথমদিকেই। এমনও বলা হয় যে প্রতিদিন একটি করে আপেল খেলে নাকি ডাক্তারের কাছেই যাওয়ার প্রয়োজন হয় না। কিন্তু এই আপেলের কারণেই আপনার স্বাস্থ্যঝুঁকির সম্মুখীন হতে পারে। কারণ আপেলের বীজ খুবই বিষাক্ত। 

আপেল বীজে মূলত কী থাকে

আপেল বীজে থাকে অ্যামিগডালিন। এই পদার্থটি পাচক রসের সংস্পর্শে এলে বিষাক্ত সায়ানাইড উৎপন্ন করে। অ্যামিগডালিন থেকে নিঃসৃত সায়ানাইড এবং সুগার শরীরে মিশে হাইড্রোজেন সায়ানাইডে পরিণত হয়। হাইড্রোজেন সায়ানাইডের কারণে শরীর অসুস্থ হয়ে পরে, এমনকি মৃত্যুও হতে পারে। তবে আস্ত বীজ গিলে ফেললে সাধারণত এ ধরনের বিষক্রিয়া হয় না।

সায়ানাইড কীভাবে মানবদেহের ক্ষতি করে

পৃথিবীর সবচেয়ে বিষাক্ত উপাদানগুলোর মধ্যে একটি হলো সায়ানাইড। সায়ানাইড শরীরের অক্সিজেন সরবরাহতে বাধা দেয়। সায়ানাইড মস্তিষ্ক এবং হৃদপিণ্ডকে বিকল করে দেয় নিমিষেই। কেমিক্যাল আকারে সাধারণত সায়ানাইড পাওয়া যায়। কিন্তু কিছু ফলের বীজেও যেমন আপেল, চেরি, আপ্রিকট, পাম এবং পিচফলের বীজেও সায়ানাইড পাওয়া যায়। তবে এসব ফলের বিষাক্ত বীজগুলোর প্রতিটিতেও শক্ত আবরণ থাকে। ফলে বিষাক্ত উপাদান ফলের সংস্পর্শে আসেনা।

যতটুকু খেলে বিপদ হতে পারে

এক কাপ আপেলের বীজের গুড়া একজন মানুষের মৃত্যু ঘটানোর জন্য যথেষ্ট। কেউ যদি দশটি বীজও চিবিয়ে খেয়ে ফেলে তাহলে মাথাব্যথা, বমি বমি ভাব, হজমে সমস্যা, পেট ব্যথা কিংবা দুর্বলতা অনুভব করতে পারে। অসাবধানতার কারণে একটি দুটি বীজ খেলে শরীরে তেমন কোনো সমস্যা বোঝা যায়না। তবে আপেল খাওয়ার আগে অবশ্যই বীজ ছাড়িয়ে খাওয়ার চেষ্টা করবেন। তাহলে বিপদের কোনো ভয় থাকবে না।

বাংলা ইনসাইডার/এসএইচ