ঢাকা, শুক্রবার, ০৩ এপ্রিল ২০২০, ১৯ চৈত্র ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

দাঁত দিয়ে নখ কেটে সাবাড় করছেন, ক্ষতি আপনারই

লাইফস্টাইল ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৪ মার্চ ২০২০ বুধবার, ০৫:২৪ পিএম
দাঁত দিয়ে নখ কেটে সাবাড় করছেন, ক্ষতি আপনারই

হাতে নখ নেই, তারপরেও সেগুলোকে দাঁত দিয়ে কেটে চামড়ার শেষস্তর পর্যন্ত পৌঁছে গেলেও নখকাটার নেশা কিছুতেই যায় না। কোনো কঠিন কাজের মধ্যে, অফিস বা ক্লাসের মাঝে, কোনো চিন্তায় ডুবে দাঁত দিয়ে নখ কেটে একাকার অবস্থা। ছোট-বড় সবারই এই অভ্যাস আছে। হাজারো চেষ্টায় এই অভ্যাস ত্যাগ করা কঠিন। এই নখ কাটার অভ্যাসটি কারো জন্যই ভালো নয়।

দাঁত দিয়ে নখ কাটার কারণ

ক্রমাগত দাঁত দিয়ে নখ কাটা নখের ক্ষতিকর। এতে নখের পার্শ্ববর্তী চামড়াগুলো ড্যামেজ হয়ে যাওয়া একটি গ্রুমিং ডিজঅর্ডার। একে বলা হয় অনিকোফেইজিয়া। শিশুদের মধ্যে দাঁত দিয়ে নখ কাটার ব্যাপারটি বেশি লক্ষ্য করা যায় যখন তারা উদ্বেগ বা বিরক্তিতে ভোগে। কিছু শিশু ঝোঁকের বশেও এই কাজটি করে থাকে। এছাড়াও নখ কামড়ানোর বিভিন্ন সম্ভাব্য কারণগুলো হলো-

প্রভাবিত ব্যক্তির বাবা বা মায়েরও এই অভ্যাসটি ছিলো বা আছে, ইমোশনাল বা মানসিক চাপ, নার্ভাসনেস, উদ্বেগ, বিরক্তি, ক্ষুধা, নিরাপত্তাহীনতা।

দাঁত দিয়ে নখ কাটার ক্ষতিকর দিকগুলো জানেন তো?

১. আপনি যদি দাঁত দিয়ে নখ কাটেন তবে এতে আপনার নখ তার স্বাভাবিক আকার হারিয়ে ফেলে এতে নখের সৌন্দর্য নষ্ট হয়।

২. দাঁত দিয়ে নখ কাটার কারণে আপনার চোয়ালের পাশাপাশি আপনার দাঁতও ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে। এমনকি অনেক সময় দাঁত ভেঙে যাওয়ার ঝুঁকি থাকে।

৩. এটা আপনার বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হতে সহায়তা করতে পারে। কারণ, আপনার হাত জীবাণুর আখড়া ছাড়া আর কিছুই নয়। এই জীবাণু পুরোপুরি আপনার নখে লুকানো থাকতে পারে। যখন আপনি আপনার নখ কামড়াবেন তখন এই জীবাণু আপনার শরীরে প্রবেশ করবে এবং আপনার অসুস্থ হওয়ার ঝুঁকি বাড়াবে।

৪. এই বদভ্যাসটি আপনাকে সামাজিকভাবেও বিব্রতকর অবস্থায় ফেলতে পারে। অন্যদের উপস্থিতিতে নখ কামড়ানো একটি বাজে অভ্যাস এবং এটি সামাজিক আচরণ লঙ্ঘন করে।

৫. এই বদভ্যাসটি নখের ক্ষতি ছাড়াও নখের আশেপাশের টিস্যুর ক্ষতি করতে পারে। এছাড়াও এতে নখ ঠিকমতো বৃদ্ধি নাও পেতে পারে।

৬. এছাড়াও দাঁত দিয়ে নখ কাটার কারণে দাঁতের মাড়ির ক্ষতি হতে পারে, ওরাল ইনফেকশন, ওরাল ড্যামেজ ইত্যাদি হতে পারে। এমনকি নখের আঘাতের কারণে মুখে ইনফেকশন হয়ে যেতে পারে।

দাঁত দিয়ে নখ কাটা থামাতে চাইলে

এই বদভ্যাসটি ত্যাগ করার জন্য কিছু উপায় রয়েছে যা খুব সহজেই এটি প্রতিকার করতে সক্ষম। চলুন জেনে নেওয়া যাক-

১. নখ সবসময় ছোট করে কেটে রাখা এবং পরিষ্কার রাখা দাঁত দিয়ে নখ কাটা বন্ধের একটি ভালো উপায় হতে পারে।

২. নিজের হাত ও নখগুলোকে সবসময় যত্নে রাখুন ম্যানিকিউর-এর মাধ্যমে। ম্যানিকিউর শুধু হাতের সৌন্দর্যই বাড়িয়ে তোলেনা, এমন কি এটি আপনার নখগুলোকেও সুন্দর ও চকচকে রাখে। আর নখ সুন্দর থাকলেতো দাঁত দিয়ে নখ কাটার বিষয়ও নেই।

৩. এটা শুনতে একটু অদ্ভূত শোনালেও পদ্ধতিটা কিন্তু বেশ কার্যকরী। কারণ, নখে স্টিকার ব্যবহার করলে বা হাতে গ্লাভস পরিধান করলে আপনি নিজেকে নখ কামড়ানো থেকে বিরত রাখতে পারবেন।

৪. আপনার হাতের কাছ থেকে মুখকে দূরে রাখুন, ব্যস্ত রাখুন। আপনি নখ কামড়ানোর অভ্যাস থেকে নিজেকে মুক্ত করতে মুখে চুইংগাম নিয়ে সারাক্ষণ চিবাতে পারেন। হাতে কাজ না থাকলে একটি বল বা যে কোনোকিছু নিয়ে হাতকে ব্যস্ত রাখতে পারেন। এভাবে এক সপ্তাহ নিজেকে ব্যস্ত রেখে অভ্যাসটি দূর করতে পারেন।

৫. তেতো স্বাদের নেইল পলিশের ব্যবহার খুব ভালো একটি পদ্ধতি। এটি আপনাকে নখ কামড়ানো থেকে বিরত রাখতে সহায়তা করবে। এতে আপনার নখগুলোও সুন্দর লাগবে দেখতে আর আপনিও নিজেকে সংযত রাখতে পারবেন।

৬. আপনি কখন দাঁত দিয়ে নখ কামড়ান? যখন বোরিং ফিল করেন? যখন বিরক্ত থাকেন? নাকি যখন অন্যমনস্ক হয়ে কিছু ভাবেন? অথবা যখন উদ্বিগ্ন থাকেন তখন? গবেষণায় মতে, মানুষ বোরিং ফিল করলে, ক্ষুধার্ত থাকলে, স্ট্রেস ফিল করলে এবং নার্ভাস থাকলে । তাই এই বদভ্যাসটি দূর করার জন্য আপনি আসলে নখ কামড়ানোর পেছনে আসল ট্রিগার-টি খুঁজে বের করুন তাহলে এই বাজে অভ্যাসটি দূর করতে তেমন কষ্ট হবে না।

বাংলা ইনসাইডার/এসএইচ