ঢাকা, সোমবার, ০৬ জুলাই ২০২০, ২১ আষাঢ় ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

Bangla Insider

সাঁতারের যত গুরুত্ব ও শিখবেন যেখানে

মোস্তাকিম ভুঞা
প্রকাশিত: ০১ জুলাই ২০২০ বুধবার, ১০:০২ এএম
সাঁতারের যত গুরুত্ব ও শিখবেন যেখানে

সকল বয়সের মানুষের জন্যেই সাঁতার জানা প্রয়োজন। সাঁতার হচ্ছে একটি অন্যতম ব্যায়াম। পৃথিবীতে যত প্রকার ব্যায়াম আছে, তার মধ্যে সাঁতার শ্রেষ্ঠ ব্যায়াম। সাঁতার জানলে পানির বিপদ থেকে জীবনকে রক্ষা করা যায়। সেইসাথে নিয়মিত সাঁতার চর্চার মাধ্যমে শরীরকে সুস্থ রাখা যায়। তবে রাজধানী ঢাকার এই ইট পাথরের শহরে জলাধার দুষ্প্রাপ্য। অবশ্য শহর ছাড়লেই যেন জল আর জলাভূমির কোন কমতি নেই। অভাব নেই। আর তাই সাঁতার শিখে নিন এই বর্ষাতেই। ছোট্ট শিশুর নিরাপত্তার জন্য সাঁতার শেখাটা জরুরি। শুধু যে শারীরিক নিরাপত্তা বা কোন রকম দুর্ঘটনা থেকে বাঁচার জন্যই সাঁতার শেখা দরকার। এমন নয়। শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধির জন্যও সাঁতার শেখানো দরকার।

চিকিৎসকদের সাথে কথা বলে জানা যায়, নিয়মিত সাঁতারে হৃদপেশির কার্যক্ষমতা বাড়ে। সেইসঙ্গে বাড়ে ফুসফুসের অক্সিজেন ধারণক্ষমতা। পেশিগুলোও শক্তিশালী হয়ে ওঠে। হাড়ের জোড়াগুলো সবল হয়। তাই শিশুর বাড়ন্ত শরীরের জন্য সাঁতার অত্যন্ত ভালো ব্যায়াম বলে উল্লেখ করেন একজন চিকিৎসক। সেইসাথে সাঁতার শরীরের মেটাবলিজম প্রক্রিয়া ত্বরান্বিত করে। মুটিয়ে যাওয়া শিশুর বাড়তি মেদ ঝরাতেও সাঁতার অত্যন্ত কার্যকর। শরীরের মাংস পেশিগুলো গঠনে সুন্দর ও শক্তিশালী হয়ে ওঠে সাঁতারে। সাঁতারে ঊর্ধ্বাঙ্গ ও নিম্নাঙ্গের সব ধরনের অঙ্গের সমন্বয় একসঙ্গে ঘটে বলে অল্প সময়ে পুরো শরীরেরই ব্যায়াম হয়ে যায়।

জানা যায়, বাংলাদেশে শিশু মৃত্যুর ৪৩ শতাংশ ঘটছে পানিতে ডুবে। তারমানে দেশে প্রতি ৩০ মিনিটে একটি শিশু মারা যাচ্ছে পানিতে ডুবে। আর বিশ্বে বছরে ১৭ হাজার শিশু পানিতে পড়ে মারা যায়। বাংলাদেশ হেলথ অ্যান্ড ইনজুরি সার্ভের প্রতিবেদন অনুযায়ী, সাঁতার না জানার কারণেই শিশুরা ডুবে যায়। তাদের তথ্যমতে, সাধারণত দুর্ঘটনাগুলি ঘটে সকাল ৯ টা থেকে বেলা ২ টার মধ্যে। তখন মায়েরা সাংসারিক কাজে ব্যস্ত থাকেন। ফলে এ সময় সন্তানদের ভালোমতো খোঁজ নেওয়া সম্ভব হয় না তাদের। আমাদের দেশে পানিতে ডুবে শিশুমৃত্যুর সংখ্যা দিন দিন আশঙ্কাজনকভাবে বাড়ছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার এক প্রতিবেদনে জানা যায়, পানিতে ডুবে শিশুমৃত্যুর হার সবচেয়ে বেশি। আর এসব ঘটনা ঘটে সাধারণত পরিবারের অসচেতনতার কারণে। তবে পাঁচ থেকে ১৭ বছর বয়েসীদের মৃত্যু হয় সাঁতার না জানার কারণে।

ঢাকায় সাঁতার শেখা

রাজধানী ঢাকায় বেশ কয়েকটি প্রতিষ্ঠান সাঁতার শিখিয়ে থাকে। এরমধ্যে রয়েছে কয়েকটি সুইমিং পুলসহ পাঁচ তারকা হোটেলও। যেমন- ঢাকা স্টেডিয়াম সুইমিংপুল, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সুইমিংপুল, জাতীয় সুইমিং কমপ্লেক্স, প্যান প্যাসিফিক সোনারগাঁও, হোটেল র‍্যাডিসন ব্লু, সুলতানা কামাল মহিলা ক্রীড়া কমপ্লেক্স ইত্যাদি।