ঢাকা, রোববার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১২ আশ্বিন ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

সম্পর্ক নষ্ট হওয়ার যত কারণ

লাইফস্টাইল ডেস্ক
প্রকাশিত: ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২০ বুধবার, ১০:০১ এএম
সম্পর্ক নষ্ট হওয়ার যত কারণ

মানুষ সামাজিক জীব। সমাজে চলতে গিয়ে তার নানা রকমের সম্পর্ক হয়। আমরা সবাই এই রকম সম্পর্কের বন্ধনে আবদ্ধ। কিন্তু অনেকেই এই সমস্ত সম্পর্ক টিকিয়ে রাখতে পারে না। আবার কারো সম্পর্ক যেন অনেকটা আপনা আপনি ভেঙ্গে যায়। নষ্ট হয়ে যায়। কিন্তু কোন কারণ ছাড়া শুধু শুধু কারো সম্পর্ক নষ্ট হয় না। যে কোন সম্পর্ক নষ্ট হওয়ার ক্ষেত্রে বেশ কিছু কারণ থাকে।      
মিথ্যা বলা
আমরা ছোট থেকেই একটা কথা শুনে বড় হই- তাহলো মিথ্যা বলা মহা পাপ। যে কোনো সম্পর্কের জন্যই মিথ্যা ক্ষতিকর। এটি ঠিক যে, সত্য সব সময় তিক্ত। কিন্তু সম্পর্কের ক্ষেত্রে যত কঠিন সত্য হোক না কেন- তা সঙ্গীকে বলে দেওয়া উচিত। হয়তো সাময়িকভাবে সম্পর্ক কিছুটা ক্ষতিগ্রস্ত হবে, তবে দীর্ঘ মেয়াদী সম্পর্কের জন্য এটি উপকারী।
সন্দেহ প্রবণতা
সম্পর্ক নষ্ট হওয়ার আরেকটি বড় কারণ কারণ হল সন্দেহ প্রবণতা। সঙ্গীকে সব সময় বিশ্বাস করতে হয়। তার ফেইসবুক অ্যাকাউন্ট, ই-মেইল, সোশ্যাল মিডিয়া কার্যকলাপে নজরদারী করা থেকে বিরত থাকা উচিত। সেইসাথে কোন বিষয় নিয়ে সন্দেহ না করে খোলাখুলি আলচনা করা ভালো। কোনো প্রশ্ন থাকলে সরাসরি তার সাথে সেই বিষয়ে কথা বলুন। মনে রাখবেন, আলোচনা সব সমস্যার সমাধান করে দেয়।
প্রশংসা না করা
প্রশংসা সকল ক্ষেত্রেই অনেক গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। যেন কোন কাজ হাসিলের জন্য এই ধরণের কৌশল কাজে দেয়। তাছাড়া, প্রশংসা ভালোবাসা বৃদ্ধি করার সাথে সাথে পারস্পরিক সম্পর্ক মজবুত করে তোলে। সঙ্গীর কাজের প্রশংসা করুন, তা যত ছোট কাজই হোক না কেন। ছোট একটি ধন্যবাদ সম্পর্ককে আরও সুন্দর করে তুলবে।
সময় কম দেওয়া
অনেকেই মনে করে থাকেন সম্পর্কে ভালোবাসা থাকাটাই শুধু জরুরি, আর কিছু নয়। সম্পর্কে একে অপরকে সময় দেওয়াটাও বেশ গুরুত্বপূর্ণ। দিনের কিছুটা সময় সঙ্গীর জন্য রেখে দিন। তাকে ফোন করুন। সময় থাকলে তার সাথে কোথাও ঘুরতে যান। একটা নির্দিষ্ট সময় তার জন্য রাখুন। এতে করে আপনি যে তাকে গুরুত্ব দেন এই বিষয়টি বুঝতে পারবে।
দোষারোপ করা
একে অপরকে দোষ দেওয়া সম্পর্ক নষ্ট হওয়ার অন্যতম কারণ। আপনি যদি তাকে ভালোবাসেন, তবে তার দোষ ধরা বন্ধ করুন। হয়তো তার অভ্যাসটি খারাপ, দোষ না দিয়ে তাকে বুঝিয়ে বলুন। দেখবেন নিজেদের মধ্যে ভুল বোঝাবুঝি অনেকটা কমে গেছে। সেইসাথে সম্পর্কের ক্ষেত্রে একে অন্যের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হয়ে উঠুন।