ঢাকা, শনিবার, ০৬ মার্চ ২০২১, ২২ ফাল্গুন ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

সুস্বাদু ডিমের যত গুনাগুন

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১৯ ডিসেম্বর ২০২০ শনিবার, ১০:৩০ এএম
সুস্বাদু ডিমের যত গুনাগুন

ডিম খাওয়া নিয়ে যেন প্রশ্নের শেষ নেই। কোলেস্টেরল বেড়ে যাবে কি না অথবা সিদ্ধ ডিম খাবেন না ভাজা? অথবা  ব্রয়লার না দেশি? উত্তর পেয়ে যাবেন সব প্রশ্নের যদি ডিমের গুণাগুণ  জানা থাকে  আপনার।

সকালের নাস্তায় অনেকেরই ডিম সেদ্ধ বা পোচ খাওয়ার অভ্যেস রয়েছে। অনেকে আবার কোলেস্টেরল বেড়ে যাওয়ার ভয়ে ডিমকে ব্রাত্য করে রাখেন। ওজন নিয়ন্ত্রণে রেখে পেশির গঠনে জোর দিতে কেউ-কেউ আবার ডিমের কুসুমকে বাদ দিয়েছেন খাদ্যতালিকা থেকে। কিন্তু ডিমের সাদা অংশ থেকে শুরু করে কুসুমে ভিটামিন ও মিনারেল থাকে প্রচুর পরিমাণে।

একটি ডিম থেকে প্রায় ৬ গ্রাম প্রোটিন পাওয়া যায়। এটি একটি সম্পূর্ণ প্রোটিন খাবার।  অ্যামিনো অ্যাসিড, ভিটামিন বি টুয়েলভ, ভিটামিন এ, ডি প্রচুর পরিমাণে থাকে ডিমে। আর থাকে কোলিন। লিভারের জন্য এই খনিজ খুব ভাল। তবে শারীরিক অবস্থা অনুসারে কে কী ভাবে খাচ্ছেন, তার উপরে নির্ভর করবে ডিমের উপকারিতা কতটা গ্রহণযোগ্য।

শিশুদের পুষ্টির জন্যও রোজকার খাদ্যতালিকায় একটি করে ডিম রাখা যায়। সন্তানের বয়স সাত মাস হলে ডিম দেওয়া শুরু করতে পারেন। খুব বেশি সিদ্ধ হয়ে গেলে ডিমের কুসুম গলায় আটকে যেতে পারে।  তাই ডিম মিনিট পাঁচেক সিদ্ধ

করে নরম কুসুমের অংশ দিয়ে খাওয়ানো শুরু করার পরামর্শ দিলেন হিনা নাফিস। প্রথম দিনই পুরো কুসুম দেবেন না। একটু একটু করে দিয়ে দেখুন, শিশুটির ডিম খেলে কোনও সমস্যা হচ্ছে কি না। সে যদি ডিম সহ্য করতে পারে, তা হলে ধীরে ধীরে কুসুমের পরিমাণ বাড়ান।

ডিমের প্রোটিন, ভিটামিন  ও মিনারেল শরীর সুস্থ রাখতে খুব উপকারী। আর ডিমের কুসুমেই কিন্তু সবচেয়ে বেশি পুষ্টি পাওয়া যায়।

বিষয়: ডিম