ইনসাইড ক্যারিয়ার

আপনার সিভিটি স্ট্যান্ডার্ড কিনা বুঝে নিন এই প্রশ্নগুলোর উত্তর থেকে

প্রকাশ: ১২:৪১ পিএম, ১১ মার্চ, ২০২৩


Thumbnail

একটি চাকরির জন্য আপনার যোগ্যতা সিভিতে প্রকাশ পায়। তাই কোন প্রতিষ্ঠান বা নিয়োগদাতার কাছে সিভি জমা দেবার আগে এর খুঁটিনাটি যাচাই করে নেয়া প্রয়োজন। এ প্রক্রিয়াটি সিভি রিভিউ (CV Review) হিসাবে পরিচিত। এর মাধ্যমে আপনার সিভির গ্রহণযোগ্যতা অনেকাংশে বাড়াতে পারেন আপনি।

সিভি বানানোর সময় ও পরে কিছু প্রশ্ন করুন নিজের সিভির ব্যাপারে। তাহলে আপনার সিভির মান সম্পর্কে একটা পরিষ্কার ধারণা পাবেন। এ লেখাতে এমন কিছু প্রশ্নের তালিকা দেয়া হলো।

ছবি

সিভিতে সাম্প্রতিক ছবি ব্যবহার করেছেন কি? উত্তর হওয়া উচিত “হ্যাঁ”। বিগত ৩-৬ মাসের মধ্যে তোলা ছবি ব্যবহার করুন।

 

ছবিটি কি সেলফি? উত্তর হওয়া উচিত “না”। সিভিতে প্রফেশনাল ছবি ব্যবহার করা প্রয়োজন।

 

ছবিতে পরিষ্কার ও মার্জিত পোশাক পরে আছেন কি? উত্তর হওয়া উচিত “হ্যাঁ”। পেশাদারিত্বের অভাব প্রকাশ পায়, এমন কোন পোশাক পরে সিভির ছবি তোলা থেকে বিরত থাকুন।

 

ব্যক্তিগত তথ্য

সিভিতে এমন ইমেইল, ফোন নাম্বার ও ঠিকানা ব্যবহার করেছেন কি যার মাধ্যমে আপনার সাথে সহজে যোগাযোগ করা যায়? উত্তর হওয়া উচিত “হ্যাঁ”।

 

সিভিতে এমন কোন ব্যক্তিগত তথ্য দিয়েছেন কি যা নিয়োগ দাতা জানতে চান নি? উত্তর হওয়া উচিত “না”। যেমন, নিজের উচ্চতা বা ওজন সম্পর্কিত তথ্য সিভিতে উল্লেখ করা উচিত নয়। কিছু ক্ষেত্রে এর ব্যতিক্রম ঘটতে পারে।

 

শিক্ষাগত যোগ্যতা

চাকরির যোগ্যতার সাথে সম্পর্কিত শিক্ষাগত যোগ্যতাগুলো আগে উল্লেখ করেছেন কি? উত্তর হওয়া উচিত “হ্যাঁ”।

 

পড়াশোনার সময় কোন প্রজেক্টে কাজ করে থাকলে তার উল্লেখ করেছেন কি? উত্তর হওয়া উচিত “হ্যাঁ”। এর মাধ্যমে আপনার কাজের আগ্রহ সম্পর্কে নিয়োগদাতা একটা ধারণা পাবেন।

 

কোন অ্যাকাডেমিক স্কলারশিপ/পুরস্কার থাকলে তা উল্লেখ করেছেন কি? উত্তর হওয়া উচিত “হ্যাঁ”। এর মাধ্যমে আপনার প্রতি নিয়োগদাতার ইতিবাচক মনোভাব তৈরি হবার সম্ভাবনা রয়েছে।

 

পরীক্ষার ফলাফল (ক্লাস/গ্রেড), পাশের বছর এবং শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের নাম সঠিকভাবে উল্লেখ করেছেন কি? উত্তর হওয়া উচিত “হ্যাঁ”। ভুল তথ্য – সেটা ইচ্ছাকৃত বা অনিচ্ছাকৃতভাবে হোক – আপনার সম্পর্কে নেতিবাচক ধারণা দেবে নিয়োগদাতাকে।

 

কাজের অভিজ্ঞতা

চাকরির সাথে সম্পর্কিত কাজের অভিজ্ঞতা আগে উল্লেখ করেছেন কি? আপনার যদি কাজের পূর্ব অভিজ্ঞতা থাকে, তাহলে উত্তর হওয়া উচিত “হ্যাঁ”। যে পদের জন্য আবেদন করছেন, তার সাথে সবচেয়ে বেশি সম্পর্কিত কাজের কথা উল্লেখ করুন।

 

আপনার আগের কাজের ধরন, দায়িত্ব ও অর্জন নিয়ে তথ্য দিয়েছেন কি? উত্তর হওয়া উচিত “হ্যাঁ”। তবে লম্বা বিবরণ দেয়া থেকে বিরত থাকুন।

 

কোন স্বেচ্ছাস্বেবী সংগঠনে কাজের অভিজ্ঞতা থাকলে তা উল্লেখ করেছেন কি? উত্তর হওয়া উচিত “হ্যাঁ”। এর মাধ্যমে নিয়োগদাতা আপনার ব্যক্তিগত আগ্রহ ও দৃষ্টিভঙ্গি নিয়ে ধারণা পাবেন।

 

দক্ষতা

চাকরির সাথে সম্পর্কিত দক্ষতাগুলো সবার আগে উল্লেখ করেছেন কি? উত্তর হওয়া উচিত “হ্যাঁ”।

 

আপনার দক্ষতাগুলো কীভাবে চাকরির সাথে সম্পর্কিত, সে ব্যাপারে তথ্য দিয়েছেন কি? উত্তর হওয়া উচিত “হ্যাঁ”। তথ্য দেবার আগে চাকরির বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা দক্ষতাগুলো ভালোভাবে পড়ে নিন। এতে করে গোছানোভাবে আপনার তথ্য উপস্থাপন করতে পারবেন।

 

অপ্রাসঙ্গিক কিংবা আপনার না থাকা কোন দক্ষতার কথা উল্লেখ করেছেন কি? উত্তর হওয়া উচিত “না”। অপ্রাসঙ্গিক দক্ষতার উল্লেখ করলে কিংবা দক্ষতা সম্পর্কে বাড়িয়ে লিখলে হিতে বিপরীত হতে পারে।

 

রেফারেন্স

যাদের কথা রেফারেন্স হিসাবে উল্লেখ করেছেন, তাদের অনুমতি নিয়েছেন কি? উত্তর হওয়া উচিত “হ্যাঁ”। অনুমতি ছাড়া কারো নাম রেফারেন্স হিসাবে ব্যবহার করা থেকে বিরত থাকুন।

 

রেফারেন্স হিসাবে যাদেরকে উল্লেখ করেছেন, তাদের সাথে সহজে যোগাযোগ করা যায় কি? উত্তর হওয়া উচিত “হ্যাঁ”। নিয়োগদাতা যেকোন সময় আপনার ব্যাপারে রেফারেন্সের ব্যক্তিদের মতামত জানতে চাইতে পারেন।

 

আপনার যোগ্যতা ও দক্ষতার সাথে সরাসরি পরিচিত কাউকে রেফারেন্স হিসাবে উল্লেখ করেছেন কি? উত্তর হওয়া উচিত “হ্যাঁ”। এক্ষেত্রে আপনার শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের কোন শিক্ষক কিংবা আগের কর্মস্থানের কোন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তার নাম অনুমতি সাপেক্ষে রেফারেন্স হিসাবে ব্যবহার করতে পারেন।

 


সিভি   ক্যারিয়ার   সিভি রিভিউ   স্ট্যান্ডার্ড সিভি  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড ক্যারিয়ার

২০১৮ সালের কোটা আন্দোলনের মেধাবী নেতারা বিসিএস পরীক্ষায় ফেল

প্রকাশ: ০৩:৫২ পিএম, ১৩ জুলাই, ২০২৪


Thumbnail

২০১৮ সালে কোটা আন্দোলনে যেসব মেধাবী নেতারা অংশ নিয়েছিলেন তারা বিসিএস পরীক্ষায় ফেল করেছিলেন। আর সেই আন্দোলনে অংশগ্রহণকারীদের তালিকা সামাজিকযোগাযোগ মাধ্যমে এরইমধ্যে ভাইরাল হয়েছে। প্রকাশিত হয়েছে সবার নাম ও রাজনৈতিক পরিচয়ের আমলনামা। এতে দেখা গেছে, আন্দোলনকারীদের যারা বিসিএসে অংশগ্রহণ করেছেন, তাদের অধিকাংশই এই পরীক্ষায় অকৃতকার্য হয়েছেন। বিসিএসে অংশ নেওয়া ২০১৮ সাল থেকে কোটাবিরোধী আন্দোলনে নেতৃত্বদানকারীদের একটি তালিকা এখানে তুলে ধরা হলো-

১। নুরুল হক নুর, আহ্বায়ক, কোটা সংস্কার আন্দোলন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, ইংরেজি বিভাগ, তৎকালীন রাজনৈতিক মতাদর্শ: ছাত্রলীগ।

২। আখতার হোসেন, যুগ্ম-আহ্বায়ক, কোটা সংস্কার আন্দোলন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, আইন বিভাগ, আহ্বায়ক, তৎকালীন রাজনৈতিক মতাদর্শ: গণতান্ত্রিক ছাত্রশক্তি।

৩। তারেক রহমান, যুগ্ম-আহ্বায়ক, কোটা সংস্কার আন্দোলন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, আইন বিভাগ, তৎকালীন রাজনৈতিক মতাদর্শ: অরাজনৈতিক।

৪। হাসান আল মামুন, যুগ্ম-আহ্বায়ক, কোটা সংস্কার আন্দোলন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, ইসলামিক স্টাডিজ (২০১২-২০১৩ শিক্ষাবর্ষ), সহ-সভাপতি, ছাত্রলীগ মহসিন হল, শাখা।

৫। ফারুখ হাসান, যুগ্ম-আহ্বায়ক, কোটা সংস্কার আন্দোলন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা বিভাগ (২০১২-২০১৩ শিক্ষাবর্ষ), আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক, এসএম হল শাখা ছাত্রলীগ।

৬। মো. রাশেদ খান, যুগ্ম-আহ্বায়ক, ছাত্র অধিকার পরিষদ, কেন্দ্রীয় কমিটি, সূর্যসেন হল, ঢাবি, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, ব্যাংকিং বিভাগ (২০১২-২০১৩ শিক্ষাবর্ষ), ছাত্র অধিকার পরিষদ।

৭। ফাহাদ তানভীর নাঈম, যুগ্ম-আহ্বায়ক, কোটা সংস্কার আন্দোলন, রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগ (২০১২-২০১৩ শিক্ষাবষ), উপ-আপ্যায়ন বিষয়ক সম্পাদক, জহুরুল হক শাখা, ছাত্রলীগ।

৮। এ টি এম সোহেল, যুগ্ম-আহ্বায়ক, কোটা সংস্কার আন্দোলন, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়, ইংরেজি, ১০তম ব্যাচ, ছাত্রলীগ।

৯। মো. রাইসুল ইসলাম নয়ন, সমন্বয়ক, কোটা সংস্কার আন্দোলন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, ব্যবস্থাপনা, ৯ম ব্যাচ, ছাত্রলীগ।

১০। সাদ্দাম হোসেন পাটোয়ারী, সদস্য, কোটা সংস্কার আন্দোলন, কবি নজরুল হল, শেরে বাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়। শেরে বাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় এনিমেল সায়েন্স অ্যান্ড ভেটেরিনারি মেডিসিন বিভাগ, দ্বিতীয় বর্ষ। তৎকালীন রাজনৈতিক মতদর্শ: অরাজনৈতিক।

১১। মাসুদ মোন্নাফ রাবি, আব্দুল লতিফ হল, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়, ইসলামী স্টাডিজ বিভাগ, মাস্টার্স, তৎকালীন রাজনৈতিক মতাদর্শ: ছাত্রলীগ।

১২। মো. আরেফিন রাবি, বঙ্গবন্ধু হল, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়, হিসাব বিজ্ঞান ও তথ্য ব্যবস্থাপনা বিভাগ, ৩য় বর্ষ। যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক, ছাত্রলীগ রাবি।

১৩। রেজাউল আলম রাজ রুয়েট, শহীদ শহিদুল ইসলাম হল, রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, ম্যাকানিক্যাল ইঞ্জি. বিভাগ, ৪র্থ বর্ষ। ছাত্রলীগ। 

১৪। আরিফুল ইসলাম, মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (পাবলিক) ফুড টেকনোলজি বিভাগের অনার্স ৪র্থ বর্ষের ছাত্র। ছাত্রদল।

১৫। মোরশেদুল ইসলাম, বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়, ময়মনসিংহ। কৃষি (২০০৯-২০১০)। ছাত্রলীগ।

১৬। মো. আনোয়ার হোসেন, আহ্বায়ক, কোটা সংস্কার আন্দোলন। চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়। রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগ (২০১৩-২০১৪) ইসলামী ছাত্র শিবির। 

১৭। মো. আরজু, যুগ্ম-আহ্বায়ক, কোটা সংস্কার আন্দোলন। চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়। ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগ (২০১১-২০১২) অরাজনৈতিক। 

১৮। আনিসুল ইসলাম, যুগ্ম-আহ্বায়ক, কোটা সংস্কার আন্দোলন, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়, ইসলামী স্টাডিজ বিভাগ, ২০০৮-২০০৯। ছাত্রদল। 

১৯। ফাহাদ ইসলাম, সদস্য, কোটা সংস্কার আন্দোলন। যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় ইংরেজি বিভাগ, ৩য় বর্ষ। অরাজনৈতিক।

২০। জুয়েল আহম্মেদ আহবায়ক, বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার পরিষদ, হাজী দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়। কম্পিউটার সায়েন্স ইঞ্জিনিয়ারিং ৪র্থ বর্ষ, ছাত্রলীগ।

২১। মো. মুশফিকুর রহমান যুগ্ম-আহ্বায়ক, বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার পরিষদ, হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, ভেটেরিনারি বিভাগ, ৪র্থ বর্ষ, ছাত্র অধিকার পরিষদ।

২২। ওয়াদুদ সাদমান সমন্বয়ক, বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার পরিষদ, বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়, রংপর, বাংলা ৪র্থ বর্ষ, ছাত্রলীগ।

২৩। মো. রোকনুজ্জামান রবিউল, আহ্বায়ক, বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার পরিষদ, বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয় রংপুর,  হিসাব বিজ্ঞান বিভাগ, ৪র্থ বর্ষ, ছাত্র অধিকার পরিষদ।

২৪। মো. জামান, খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, (কুয়েট), মেকানিক্যাল বিভাগ, ৪র্থ বর্ষ, অরাজনৈতিক।

২৫। নাসির তুহিন, খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়, সমাজ বিজ্ঞান বিভাগ, ৪র্থ বর্ষ, অরাজনৈতিক।

২৬। মো. মাজহারুল ইসলাম হানিফ, কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়, ইংরেজি বিভাগ, এমএ, ১ম বর্ষ, অরাজনৈতিক।

২৭। মোস্তাফিজুর রহমান, কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়, ইংরেজি বিভাগ, ৩য় ব্যাচ, সাংগঠনিক সম্পাদক, কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রদল।

২৮ মো. আবুল বাশার, কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়, নৃ-বিজ্ঞান বিভাগ, ৭ম ব্যাচ, প্রচার সম্পাদক, কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রদল।

২৯। নাসির আহমেদ, শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, পাবলিক এডমিনিস্ট্রেশন (২০১২-২০১৩), আহ্বায়ক, ছাত্র ইউনিয়ন, শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়।

৩০। জান্নাতি নাঈম, শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, পাবলিক এডমিনিস্ট্রেশন (২০১২-২০১৩), যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক, ছাত্র ইউনিয়ন, শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়।

৩১। আরিফুল ইসলাম, মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, টাঙ্গাইল, মাস্টার্স, গণঅধিকার পরিষদের রাজনীতির সাথে জড়িত।



কোটা আন্দোলন   বিসিএস   পরীক্ষা  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড ক্যারিয়ার

১৮তম শিক্ষক নিবন্ধন লিখিত পরীক্ষা পেছাবে না

প্রকাশ: ০৪:৩০ পিএম, ০৭ জুলাই, ২০২৪


Thumbnail

দেশের বিভিন্ন জেলায় বন্যা পরিস্থিতি কারণে বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন ও প্রত্যয়ন কর্তৃপক্ষ (এনটিআরসিএ) ১৮তম নিবন্ধনের লিখিত পরীক্ষা নির্ধারিত সময়ে অনুষ্ঠিত হবে কিনা তা নিয়ে শিক্ষার্থীদের মধ্যে শঙ্কার সৃষ্টি হয়েছে। শিক্ষার্থীরা চাকরি সংক্রান্ত বিভিন্ন পেজ ও গ্রুপে বিষয়টি সম্পর্কে জানতে চেয়ে মেসেজ করছেন। অনেকেই বলছেন বন্যার কারণে পরীক্ষা পেছাতে পারে। তবে এনটিআরসিএ সূত্রে জানা গেছে, ১৮তম শিক্ষক নিবন্ধন পরীক্ষা নির্ধারিত সময়েই অনুষ্ঠিত হবে।

জানা গেছে, আগামী ১২ ও ১৩ জুলাই স্কুল, স্কুল-২ ও কলেজ পর্যায়ের লিখিত পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে। সেই নির্ধারিত দিনেই পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে বলে নিশ্চিত করেছেন বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন ও প্রত্যয়ন কর্তৃপক্ষ (এনটিআরসিএ) যুগ্মসচিব (সদস্য, শিক্ষাতত্ত্ব ও শিক্ষামান) মুহম্মদ নূরে আলম সিদ্দিকী।

দেশের বিভিন্ন জেলায় বন্যার কারণে পরীক্ষা পেছাতে পারে কিনা বিষয়টি সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি বলেন,‘পরীক্ষা পেছানোর সুযোগ নেই। পরীক্ষা নেওয়ার জন্য যাবতীয় প্রস্তুতি রাখা হয়েছে। পরীক্ষা পেছালে নানা ধরনের সংকট সৃষ্টি হয়। তাই আমরা নির্ধারিত দিনেই পরীক্ষা নিতে চাই। তবে সরকারি কোন নির্দেশনা থাকলে সেটা পরে বিবেচনা করা যেতে পারে। তবে এখন পর্যন্ত শিক্ষার্থীরা নিশ্চিত থাকতে পারেন পরীক্ষা হবে।’

ইতিমধ্যে লিখিত পরীক্ষার প্রবেশপত্র অনলাইনে ছেড়েছে কর্তৃপক্ষ। গত ১৫ মে ১৮তম নিবন্ধনের প্রিলিমিনারি পরীক্ষার ফল প্রকাশ করে এনটিআরসিএ। এতে উত্তীর্ণ হন ৪ লাখ ৭৯ হাজার ৯৮১ জন শিক্ষার্থী। উত্তীর্ণ পরীক্ষার্থীর সংখ্যা স্কুল-২ পর্যায়ে ২৯ হাজার ৫১৬ জন, স্কুল পর্যায়ে ২ লাখ ২১ হাজার ৬৫২ জন, কলেজ পর্যায়ে ২ লাখ ২৮ হাজার ৮১৩ জনসহ মোট ৪ লাখ ৭৯ হাজার ৯৮১ জন। পরীক্ষায় অংশগ্রহণকারীদের মধ্যে সার্বিক পাসের গড় হার ৩৫ দশমিক ৮০। তবে প্রিলিমিনারি পরীক্ষায় ৮ লাখ ৬০ হাজারের বেশি প্রার্থী উত্তীর্ণ হতে পারেননি।

১৮তম শিক্ষক নিবন্ধনের প্রিলিমিনারি পরীক্ষায় অংশগ্রহণের জন্য ১৮ লাখ ৬৫ হাজারের বেশি প্রার্থী আবেদন করেছিলেন। প্রিলিমিনারি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করেছিলেন ১৩ লাখ ৪০ হাজার ৮৩৩ প্রার্থী।

 


এনটিআরসিএ   শিক্ষক নিবন্ধন  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড ক্যারিয়ার

পরীক্ষার খাতা দেখা দ্রুত শেষ করতে চায় পিএসসি

প্রকাশ: ০৯:৫৭ এএম, ২৫ জুন, ২০২৪


Thumbnail

৪৫তম বিসিএসের লিখিত পরীক্ষার খাতা দেখা শেষ করেছেন প্রথম পরীক্ষক। সেগুলো পরীক্ষা করে তা দ্বিতীয় পরীক্ষকের কাছে পাঠানো শুরু করেছে বাংলাদেশ সরকারি কর্ম কমিশন (পিএসসি) পিএসসি জানিয়েছে, দ্রুত ৪৫তম বিসিএসের লিখিত পরীক্ষার খাতা দেখা শেষ করতে চায় প্রতিষ্ঠানটি। জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে।

খাতা দেখার কার্যক্রমের বিষয়ে এবার কিছুটা কঠোর হয়েছে পিএসসি। পরীক্ষকদের সময়ের মধ্যেই খাতা জমা দেওয়ার বিষয়ে জোর নির্দেশনাও দেওয়া হয়েছে। ব্যত্যয় হলে পিএসসি আর তাঁদের খাতা দেবে না। ৪৫তম বিসিএসের খাতা যথাসময়ের মধ্যে শেষ হওয়ার বিষয়ে আশাবাদী পিএসসি। পিএসসি সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।

২০২২ সালের ৩০ নভেম্বর ৪৫তম বিসিএসের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছিল পিএসসি। গত বছরের জুন প্রিলিমিনারি পরীক্ষার ফল প্রকাশিত হয়। পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছেন ১২ হাজার ৭৮৯ জন। লিখিত পরীক্ষা শুরু হয় চলতি বছরের ২৩ জানুয়ারি, শেষ হয় ৩১ জানুয়ারি।

৪৫তম বিসিএস প্রিলিমিনারি পরীক্ষায় আবেদনকারী লাখ ৪৬ হাজার পরীক্ষার্থীর মধ্যে অংশ নেন লাখ ৬৮ হাজার ১১৯ জন। পরীক্ষা দেননি ৭৮ হাজার ৮০৩ জন। উপস্থিতির হার ৭৭ দশমিক ২৪।

৪৫তম বিসিএসের মাধ্যমে মোট হাজার ৩০৯ জন ক্যাডার নেওয়া হবে। নন-ক্যাডারে নেওয়া হবে হাজার ২২ জনকে। ৪৫তম বিসিএসে হাজার ৩০৯ ক্যাডারের মধ্যে সবচেয়ে বেশি নিয়োগ হবে চিকিৎসায়। সহকারী ডেন্টাল সার্জন মিলিয়ে ৫৩৯ জনকে নিয়োগ দেওয়া হবে। চিকিৎসার পর সবচেয়ে বেশি শিক্ষা ক্যাডারে নিয়োগ পাবেন ৪৩৭ জন। এরপর পুলিশে ৮০, কাস্টমসে ৫৪ প্রশাসনে ২৭৪ জনকে নিয়োগ দেওয়া হবে।


পিএসসি   খাতা   বিসিএস  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড ক্যারিয়ার

জুলাই মাসেই হবে ১৮ তম নিবন্ধনের লিখিত পরীক্ষা

প্রকাশ: ১১:২৩ এএম, ২৬ মে, ২০২৪


Thumbnail

১৮ তম শিক্ষক নিবন্ধনের প্রিলিমিনারি পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশ হয়েছে গত ১৫ মে। কৃতকার্যদের মধ্যে এখন একটি প্রশ্ন দেখা দিয়েছে তা হলো লিখিত পরীক্ষা হবে করে। আর এ বিষয়ে বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন প্রত্যয়ন কর্তৃপক্ষ (এনটিআরসিএ) বলছে, জুলাই মাসের দুটি তারিখ প্রাথমিকভাবে ভাবা হয়েছে। শিগগিরই এটা চূড়ান্ত করে ফেলা হবে।

এনটিআরসিএর সচিব ওবায়দুর রহমান জানান, ‘আমরা ভেবেছি জুলাই মাসের ১২ বা ১৩ তারিখ লিখিত পরীক্ষা নেব। নির্বাচন, বাজেট এগুলোকে সামনে রেখে তারিখ ঠিক করা নিয়ে আমরা বসব। দ্রুতই সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।’

এর আগে গত ১৫ মার্চ শিক্ষক নিবন্ধনের প্রিলিমিনারি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। এতে আবেদন করেন ১৮ লাখ ৬৫ হাজার ৭১৯ জন। তবে পরীক্ষায় অংশ নেন ১৩ লাখ ৪০ হাজার ৮৩৩ জন।

প্রিলিমিনারি পরীক্ষায় নির্ধারিত নম্বর পেয়ে উত্তীর্ণ হয়েছেন লাখ ৭৯ হাজার ৯৮১ জন। এরমধ্যে স্কুল- পর্যায়ে ২৯ হাজার ৫১৯ জন, স্কুল পর্যায়ে লাখ ২১ হাজার ৬৫২ জন এবং কলেজ পর্যায়ে লাখ ২৮ হাজার ৮১৩ জন। পরীক্ষায় গড় পাসের হার ৩৫ দশমিক ৮০ শতাংশ।


শিক্ষক নিবন্ধন   লিখিত পরীক্ষা  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড ক্যারিয়ার

৪৬তম বিসিএসের প্রিলির ফল প্রকাশ, উত্তীর্ণ ১০৬৩৮

প্রকাশ: ০৪:৫০ পিএম, ০৯ মে, ২০২৪


Thumbnail

৪৬তম বিসিএসের প্রিলিমিনারি পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশিত হয়েছে। এতে উত্তীর্ণ হয়েছেন ১০ হাজার ৬৩৮ জন প্রার্থী।বৃহস্পতিবার (৯ মে) সরকারি কর্ম কমিশনের (পিএসসি) অনুষ্ঠিত বিশেষ সভা শেষে এ ফলাফল প্রকাশিত হয়।

ক্যাডার পদে নিয়োগের জন্য ৪৬তম বিসিএস প্রিলিমিনারি টেস্ট (এমসিকিউ টাইপ) পরীক্ষা ২৬ এপ্রিল অনুষ্ঠিত হয়।

২০২৩ সালের ৩০ নভেম্বর ৪৬তম বিসিএসের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়। এ বিসিএসে ৩ হাজার ১৪০ জনকে নিয়োগ দেওয়া হবে। সবচেয়ে বেশি নেওয়া হবে স্বাস্থ্য ক্যাডারে সহকারী সার্জন ১ হাজার ৬৮২ জন, সহকারী ডেন্টাল সার্জন ১৬ জন, শিক্ষা ক্যাডারে শিক্ষায় ৫২০ জন। প্রশাসন ক্যাডারে ২৭৪ জন, পররাষ্ট্রে ১০, পুলিশে ৮০, আনসারে ১৪, মৎস্যে ২৬ ও গণপূর্তে ৬৫ জনকে নেওয়া হবে।

মোট ৩ হাজার ১৪০ শূন্য পদের বিপরীতে ৩ লাখ ৩৮ হাজার আবেদন জমা পড়ে।

বিসিএস   পিএসসি  


মন্তব্য করুন


বিজ্ঞাপন