ইনসাইড গ্রাউন্ড

বিশ্বকাপ বাছাইপর্বে লেবাননের সঙ্গে বাংলাদেশের ড্র

প্রকাশ: ০৮:১৩ পিএম, ২১ নভেম্বর, ২০২৩


Thumbnail

অনেক গোল করার সুযোগ পেয়েও গোল মিস করেছে বাংলাদেশ। নাহলে জয়টা বাংলাদেশেরই হতে পারতো। দ্বিতীয়ার্ধ্বে ১ গোলে পিছিয়ে পড়েও মোরসালিনের ডি-বক্সের বাইরে থেকে নেওয়া দারুণ এক শর্টে গোল পায় বাংলাদেশ। শেষ পর্যন্ত ১-১ গোলে সমতার সাথে ১ পয়েন্ট নিয়ে রেফারির শেষ বাঁশি বাজে।

কিংস অ্যারেনায় শুরুতে বাংলাদেশের ওপর চাপ ফেলার চেষ্টা করে লেবানন। কিন্তু সময় বাড়ার সঙ্গে আক্রমণে যায় বাংলাদেশও। কিন্তু কোনও দলই পারছিল না প্রতিরোধ ভাঙ্গতে। তবে দ্বিতীয়ার্ধে বাংলাদেশের রক্ষণের ভুলে এগিয়ে যায় লেবানন।

 

তবে প্রতিপক্ষের আনন্দ বেশিক্ষণ স্থায়ী হয়নি। কয়েক মিনিটের ব্যবধানে শেখ মোরসালিনের চমৎকার গোলে ম্যাচে ফেরে বাংলাদেশ। শেষ পর্যন্ত বিশ্বকাপ বাছাইয়ের এই ম্যাচ শেষ হয়েছে ১-১ সমতায়।

অস্ট্রেলিয়ার কাছে বিধ্বস্ত হওয়ার পর লেবানন ম্যাচ থেকে ইতিবাচক কিছুর আশায় ছিল বাংলাদেশ।

 

৭৯ ধাপ এগিয়ে থাকা দলের বিপক্ষে জয়ের লক্ষ্য ঠিক করলেও সুযোগ নষ্টের কারণে ১ পয়েন্ট নিয়েই সন্তুষ্ট থাকতে হল হাভিয়ের কাবরেরার দলকে। রেংকিংয়ে ফারাক অনেক থাকলেও মাঠের লড়াইয়ে নিশ্চিতভাবেই এগিয়ে ছিল বাংলাদেশ। ম্যাচের দুই অর্ধেই আক্রমণ পালটা আক্রমণে চলেছে। ভরা গ্যালারিতে সুন্দর ফুটবলের পসরা সাজিয়েছিল দুই দল।

ম্যাচের প্রথম ১০ মিনিটে ডি-বক্সের বাইরে থেকে লেবানিজদের দূরপাল্লার কয়েক শট বাংলাদেশের রক্ষণ কাঁপাল। পাল্টা জবাব এল স্বাগতিকদের কাছ থেকেও। বল নিজেদের পায়ে রেখে জামালদের লেবাননকে চাপে রাখার চেষ্টা।

 

গোলমুখে প্রথম আক্রমণ ২৪ মিনিটে। অধিনায়ক জামালের কর্নার থেকে বিশ্বনাথ ঘোষের হেড গ্লাভসে নেন গোলরক্ষক মোস্তফা মাতার।

 

পরের মিনিটে আরেকটি গোছানো আক্রমণ স্বাগতিকদের। এবার বাঁ প্রান্ত দিয়ে বক্সে ঢুকে পড়েছিলেন মোরসালিন, শট নেওয়ার সুযোগ না পেয়ে সোহেল রানার (জুনিয়র) উদ্দেশে বল বাড়ালেও লেবাননের ডিফেন্ডার মোহাম্মদ এল হায়েক এসে ক্লিয়ার করে দেয়। ৩৩ মিনিটে আবারও বাংলাদেশের আক্রমণ। এবার ডান প্রান্ত থেকে ফয়সাল আহমেদ ফাহিমের নিচু ক্রস, গোল মুখে দাঁড়িয়ে মোরসালিন। ফাহিমের শট তার পায়ে যাওয়ার আগেই সেই শট ফেরান কাসেম আল জেইন।

 

প্রথমার্ধের শেষ আরেকটি গোছাল আক্রমণে যায় বাংলাদেশ। ডান দিক থেকে ফয়সাল আহমেদে ক্রস জটলার মধ্য থেকে গোমুখে শট নিয়েছিলেন মোরসালিন কিন্তু তা চলে যায় ক্রসবারের উপর দিয়ে।

চোটের কারণে দ্বিতীয়ার্ধে আর মাঠে নামতে পারেননি গোলরক্ষক মিতুল মারমা। তার পরিবর্তে নামেন মেহেদি হাসান শ্রাবণ। তরুণ এই গোলরক্ষকের জাতীয় দলের জার্সিতে এটাই প্রথম ম্যাচ। মধ্যবিরতি থেকে ফিরেই বাংলাদেশের ওপর চাপ ফেলে লেবানন। ডান দিক দিয়ে বক্সে ঢুকে পড়া করিম দারউইচের শট অবশ্য বাইরের জাল কাঁপায়।

 

এরপর কয়েকবার লেবাননের রক্ষণে হানা দেয় বাংলাদেশ। সুযোগ আসে মোরসালিনের সামনে। কিন্তু বিশ্বনাথের পাস কিছুটা গতির হওয়ায় বল পায়ে রাখতে পারেননি। একটু পরেই জামাল ভুঁইয়াকে তুলে রবিউল হাসানকে নামান বাংলাদেশ কোচ হাভিয়ের কাবরেরা। গোলের জন্য চেষ্টা অব্যাহত ছিল লেবাননের। তাতে ৬৭ মিনিটে গোলও পেয়ে যায় সফরকারীরা। বদলী হিসেবে মাঠে এসে চার মিনিটের মধ্যে লেবাননকে এগিয়ে নেন মাজেদ ওসমান। ডান দিক দিয়ে আক্রমনে ওঠা লেবাননের দু'টি প্রচেষ্টা ডিফেন্সে বাধা পেলে শ্রাবন এগিয়ে এসে বল আয়ত্বে নিতে গিয়েছিলেন। বিশ্বনাথ ক্লিয়ারিং হেড করতে যান, তাই বলটা আয়ত্বে নিতে পারেননি। উল্টো তার বুকে লেগে বল চলে যায় ফাঁকায় দাঁড়ানো মাজেদের কাছে। ঠান্ডা মাথায় ফাঁকা পোস্টে বল জমা করেন এই বদলি নামা এই স্ট্রাইকার।

 

সমতা ফেরাতে অবশ্য বেশি সময় নেয়নি বাংলাদেশ। লাল-সবুজের দলের ত্রাতা হয়ে আসেন সেই শেখ মোরসালিন। লেবাননের মিডফিল্ডার জিহাদ আইয়ুবের ব্যাক পাস পেয়ে যান মোরসালিন। সামনে জায়গা পেয়ে খানিকটা এগিয়ে গিয়ে তার নেওয়ার গতির শট জড়িয়ে যায় জালে। এই তরুণের সুন্দর গোলের পর উল্লাসে ফেটে পড়ে কিংস অ্যারেনা। শেষ দিকে মোরসালিন আরেকটি সুযোগ নষ্ট না করলে আজ জিততেও পারত বাংলাদেশ। মোহাম্মদ সোহেল রানার বাড়ানো বল দুরের পোস্টে ফাঁকায় পেয়েছিলেন তিনি তবে তা জালে পাঠাতে পারেননি। তাতে ড্র নিয়েই মাঠ ছাড়তে হয় বাংলাদেশ। কিংস অ্যারেনায় এখন পর্যন্ত অপরাজিত বাংলাদেশ। চার ম্যাচে জিতেছে একটি, ড্র তিনটিতে।


বাংলাদেশ-লেবানন   বসুন্ধরা কিংস   বিশ্বকাপ বাছাই   ফুটবল   ফিফা  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড গ্রাউন্ড

আর্জেন্টিনা-কলম্বিয়ার ফাইনাল ম্যাচের সময় পেছালো

প্রকাশ: ০৬:৪৪ এএম, ১৫ জুলাই, ২০২৪


Thumbnail

অবশেষে দীর্ঘ প্রতিক্ষার পর শুরু হচ্ছে কোপা আমেরিকার ৪৮তম আসরের শিরোপার লড়াই। যেখানে বর্তমান চ্যাম্পিয়ন আর্জেন্টিনার মুখোমুখি হবে ২৩ বছর পর ফাইনালে ওঠা কলম্বিয়া। ম্যাচটিতে যে জমজমাট লড়াই হবে, তা অনুমেয়।

ম্যাচটি শুরু হওয়ার কথা ছিল বাংলাদেশ সময় ভোর ৬টায়। কিন্তু হাই-ভোল্টেজ ফাইনালটি আধাঘণ্টার জন্য পিছিয়ে দেওয়া হয়েছে।

জানা গেছে, স্টেডিয়ামে খেলোয়াড়দের প্রবেশের সময় উচ্ছৃঙ্খল কলম্বিয়ান ভক্তদের তোপের মুখে পড়ে মায়ামির হার্ডরক স্টেডিয়ামের নিরাপত্তাকর্মীরা। কলম্বিয়ান অধ্যুষিত সেই অঞ্চলের অনেকেই ফাইনালের ভেন্যুতে প্রবেশের চেষ্টা চালান। ফলে তৈরি হয় এক বিশৃঙ্খল পরিবেশের।

স্টেডিয়ামের নিরাপত্তাকর্মীরা বাধ্য হন টিকিটবিহীন কলম্বিয়ান ভক্তদের ওপর চড়াও হতে। প্রটোকল অবশ্য পুরোপুরি মানতে পারেননি হার্ড রক স্টেডিয়ামের নিরাপত্তায় থাকা পুলিশেরা। কলম্বিয়ান ভক্তদের অনেকেই ঢুকে পড়েছেন বিনা টিকিটে। পুরো বিষয়টি নিয়েই সেখানে তৈরি হয় জটিল পরিস্থিতির। ফাইনালকে কেন্দ্র করে বাড়তি ব্যবস্থা নিয়েও বিতর্ক এড়াতে পারেনি কনমেবল।

চরম বিপাকের মাঝে পড়ে আয়োজকরা তাৎক্ষণিকভাবে স্টেডিয়ামের গেট বন্ধ করে দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনার পর হার্ড রক স্টেডিয়ামে ফাইনাল পিছিয়ে দেওয়া হয় আধঘন্টার জন্য।

আর্জেন্টিনা একাদশ: ইমিলিয়ানো মার্টিনেজ (গোলরক্ষক), গঞ্জালো মন্টিয়েল, ক্রিস্টিয়ান রোমেরো, লিসান্দ্রো মার্টিনেজ, নিকোলাস ট্যাগলিয়াফিকো, অ্যাঞ্জেল ডি মারিয়া, রদ্রিগো ডি পল, এঞ্জো ফার্নান্দেজ, ম্যাক অ্যালিস্টার, লিওনেল মেসি ও জুলিয়ান আলভারেজ।

কলম্বিয়া একাদশ: ক্যামিলো ভার্গাস (গোলরক্ষক), সান্তিয়াগো আরিয়াস, সান্তিয়াগো আরিয়াস, ডেভিনসন স্যানচেজ, জোহান মোজিকা, রিচার্ড রিওস, জেফারসন লের্মা, জন আরিয়াস, জেমস রদ্রিগেজ, লুইস দিয়াজ ও জন করদোবা।


কোপা আমেরিকা   ফাইনাল   আর্জেন্টিনা   কলম্বিয়া  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড গ্রাউন্ড

‘দ্য ফাইনাল ম্যান’কে রেখেই শিরোপার লড়াইয়ে আর্জেন্টিনা

প্রকাশ: ০৬:০৮ এএম, ১৫ জুলাই, ২০২৪


Thumbnail

অবশেষে দীর্ঘ প্রতিক্ষার পর শুরু হচ্ছে কোপা আমেরিকার ৪৮তম আসরের শিরোপার লড়াই। যেখানে বর্তমান চ্যাম্পিয়ন আর্জেন্টিনার মুখোমুখি হবে ২৩ বছর পর ফাইনালে ওঠা কলম্বিয়া। ম্যাচটিতে যে জমজমাট লড়াই হবে, তা অনুমেয়।

সোমবার মায়ামির হার্ড রক স্টেডিয়ামে মুখোমুখি হচ্ছে দুদল। ম্যাচটি শুরু হবে বাংলাদেশ সময় ভোর সাড়ে ৬টায়। আর খেলা দেখাবে টি-স্পোর্টস।

শিরোপার মঞ্চে আর্জেন্টিনার হয়ে আজই শেষ ম্যাচ খেলবেন অ্যাঞ্জেল ডি মারিয়া। তাকে নিয়ে একাদশ সাজিয়েছেন আর্জেন্টাইন কোচ স্কালোনি। ম্যাচটিতে ৪-৪-২ ফরম্যাশনে মাঠে নামছে আর্জেন্টিনা।

অন্যদিকে জেমস রদ্রিগেজ ও করদেবাদের নিয়ে সেরা একাদশ নিয়ে মাঠে নামছে কলম্বিয়া। তারা খেলছে ৪-২-৩-১ ফরম্যাশনে।

আর্জেন্টিনা একাদশ: ইমিলিয়ানো মার্টিনেজ (গোলরক্ষক), গঞ্জালো মন্টিয়েল, ক্রিস্টিয়ান রোমেরো, লিসান্দ্রো মার্টিনেজ, নিকোলাস ট্যাগলিয়াফিকো, অ্যাঞ্জেল ডি মারিয়া, রদ্রিগো ডি পল, এঞ্জো ফার্নান্দেজ, ম্যাক অ্যালিস্টার, লিওনেল মেসি ও জুলিয়ান আলভারেজ।

কলম্বিয়া একাদশ: ক্যামিলো ভার্গাস (গোলরক্ষক), সান্তিয়াগো আরিয়াস, সান্তিয়াগো আরিয়াস, ডেভিনসন স্যানচেজ, জোহান মোজিকা, রিচার্ড রিওস, জেফারসন লের্মা, ঝন আরিয়াস, জেমস রদ্রিগেজ, লুইস দিয়াজ ও জন করদোবা।


আর্জেন্টিনা   কোপা আমেরিকা   কানাডা   লিও মেসি   আলভারেজ  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড গ্রাউন্ড

ফের স্বপ্নভঙ্গ ইংল্যান্ডের, এক যুগ পর ইউরো চ্যাম্পিয়ন স্পেন

প্রকাশ: ০৩:০০ এএম, ১৫ জুলাই, ২০২৪


Thumbnail

দীর্ঘদিন শিরোপা বুভুক্ষ ইংল্যান্ড টানা দ্বিতীয়বার ফাইনালে উঠেও শিরোপা খরা ঘুচাতে পারলো না। ইউরো চ্যাম্পিয়নশিপের মেগা ফাইনালের মঞ্চে শেষ পর্যন্ত লড়াই করেও স্পেনের কাছে ২-১ গোলে হেরেছে সাউথগেটের শিষ্যরা। আর এতে করে রেকর্ড চতুর্থ ইউরো শিরোপা জিতলো স্পেন।

এদিন শুরু থেকে দুই দলই খেলছিলো ঢিলেঢালা ফুটবল। যেন ফাইনালের উত্তাপটা একটু গায়ে মেখে নিতে চাইছিল তারা। এতে করে প্রথমার্ধে গোলের দেখা পায়নি কেউই।

তবে বিরতি থেকে ফিরে শুরুতেই এগিয়ে যায় স্পেন। তাতে আক্রমণে ধাচও বাড়ে দলটির। এরপর ৭৩ মিনিটে ইংল্যান্ড সেটা শোধও করে দেয়। তবে নির্ধারিত সময়ের একদম শেষ দিকের গোলে জয় পায় স্পেন। এই জয়ে এক যুগ পর ইউরোতে শিরোপা জয়ের স্বাদ পেলো লুইস ফুয়েন্তের শিষ্যরা।
 
বার্লিনে আজ ইউরোর ফাইনালে ইংল্যান্ডকে ২-১ গোলে হারিয়েছে স্পেন। নিকো উইলিয়ামস স্পেনকে এগিয়ে দেওয়ার পর কোল পালমারের গোলে সমতায় ফেরে ইংলিশরা। এরপর মিকেল ওয়ারজাবালের গোলে আবার লিড নেয় স্প্যানিশরা।

যে গোলের লিড ধরে রেখে শিরোপা জয়ের আনন্দে মাতে স্পেন। আর টানা দুইবার ফাইনালে উঠেও ইউরোর শিরোপা জেতা হলো না ইংলিশদের।


স্পেন   ইংল্যান্ড   ইউরো চ্যাম্পিয়নশিপ  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড গ্রাউন্ড

দ্বিতীয়ার্ধের প্রথম মিনিটেই স্পেনের লিড, ৭৩ মিনিটে পালমারের সমতা

প্রকাশ: ০২:৪৫ এএম, ১৫ জুলাই, ২০২৪


Thumbnail

কাইল ওয়াকারের ভুলে যখন ম্যাচ থেকে প্রায় ছিটকে পড়েছিল ইংল্যান্ড, ঠিক তখনই খেলোয়াড় বদল করে পুনরায় চমক দেখালেন সাউথগেট। চেলসিতে সবশেষ মৌসুমে দুর্দান্ত ছন্দে ছিলেন কোল পালমার। বলতে গেলে তাদের একমাত্র তারকাই ছিলেন এই ইংলিশ উইঙ্গার। যদিও ইউরোতে কোনো ম্যাচেই ছিলেন না শুরুর একাদশে। বদলি নেমেছেন বারবার। ফাইনালেও হলো তাই। আর সেই মহাগুরুত্বপূর্ণ ম্যাচেই এলো পালমারের পা থেকে দুর্দান্ত এক গোল।

ডানপ্রান্তে ফাঁকায় বল পেয়ে এগিয়ে গিয়েছিলেন বুকায়ো সাকা। মার্ক কুকুরেয়াকে পেছনে ফেলে বল দিয়েছিলেন বক্সে। ভারসাম্য হারিয়ে ফেলেও সেই বল বক্সের বাইরে পালমারের উদ্দেশ্যে ঠেলে দেন জ্যুড বেলিংহাম। ফাঁকা অবস্থায় ডিবক্সের বাইরে থেকে জোরালো শটে গোল করেন কোল পালমার। ৪৬ মিনিটে গোল হজমের পর ৭৩ মিনিটে সমতায় ফিরল ইংল্যান্ড।

এদিন ম্যাচ প্রথমার্ধে গোলশূন্য ড্র হয়। তবে দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতেই ভুল করেন কাইল ওয়াকার। রাউন্ড অব সিক্সটিনের ম্যাচে তারই পজিশনের ভুলে লিড পেয়েছিল স্লোভাকিয়া। এবারও ঘটল তাই। দানি কার্ভাহালের কাছ থেকে বল পেয়ে লামিনে ইয়ামাল দিয়েছিলেন দুর্দান্ত এক রান। নিজের পজিশন তখনও পুরো আয়ত্বে আনা হয়নি কাইল ওয়াকারের। এগিয়ে এলেন আরও অনেকটা।

তাতেই ফাঁকা হয়ে যান নিকো উইলিয়ামস। ইয়ামালের পাস থেকে এরপর পিকফোর্ডকে পরাস্ত করেন নিচু এক শটে। মাঝে দানি ওলমোর ফলস রান বোকা বানালো ইংলিশ রক্ষণের সবাইকে। নিকো উইলিয়ামসের কাজটা তাতে হলো আরও সহজ। প্রথমার্ধের ম্যাড়ম্যাড়ে খেলার পর ফাইনালে লিড পেল স্পেন। দ্বিতীয়ার্ধের প্রথম মিনিটেই হলো গোল।

এই গোলে অ্যাসিস্টের মাধ্যমে চলতি ইউরোতে চতুর্থ অ্যাসিস্ট পেলেন লামিনে ইয়ামাল। সঙ্গে পেয়ে গেল আত্মবিশ্বাসও। ইউরোতে প্রথমে গোল করে শেষ ২৭ ম্যাচে মাত্র একবারই হেরেছিল স্পেন।

তবে পিছিয়ে পড়েও আবারও ফিরে এসেছে সাউথগেটের শিষ্যরা। আর সমতায় ফিরেই বেশ আক্রমণাত্মকভাবে খেলতে দেখা গেছে ইংল্যান্ডকে।


স্পেন   ইংল্যান্ড   ইউরো চ্যাম্পিয়নশিপ  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড গ্রাউন্ড

ইউরো ফাইনাল: প্রথমার্ধে গোলশূন্য স্পেন-ইংল্যান্ড

প্রকাশ: ০২:০২ এএম, ১৫ জুলাই, ২০২৪


Thumbnail

নানা চড়াই উতরায় পাড়ি দিয়ে অবশেষে মাঠে গড়িয়েছে ইউরো চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনাল। যেখানে মুখোমুখি হয়েছে ‘রক্ষণাত্মক’ ইংল্যান্ড ও ‘টিকিটাকা’ স্পেন।

হাইভোল্টেজ এই ফাইনালের প্রথমার্ধে গোল পায়নি কোনো দলই। সমতায় থেকেই বিরতিতে গেছে স্পেন ও ইংল্যান্ড।

জার্মানির বার্লিন অলিম্পিক স্টেডিয়ামে ইউরোর ফাইনালে যেমন ম্যাচ প্রত্যাশিত ছিল, প্রথমার্ধে তার পূরণ হয়নি ছিটেফোঁটাও। বরাবরের মতো বল দখলে রেখে পাসিং ফুটবল খেলে গেছে স্পেন।

অপরদিকে, স্প্যানিশ ফুটবলারদের রুখে দেওয়াই যেন ছিল ইংলিশদের কাজ। প্রথমার্ধে দুটি দলই গোলমুখে নিয়েছে মাত্র একটি করে শট।

এ ম্যাচে স্পেন দলে ফিরেছেন তাদের অভিজ্ঞ রাইটব্যাক দানি কারভাহাল। এছাড়া পেদ্রি চোটে পড়ায় তার জায়গায় শুরুর একাদশে রাখা হয়েছে দানি অলমোকে। লুইস দে লা ফুয়েন্তের ৪-২-৩-১ ছকে শুরু থেকে খেলান দলকে।

এদিকে, এবারের ইউরোয় প্রথমবার ইংল্যান্ডের হয়ে শুরুর একাদশ মাতাতে দেখা গেছে লেফটব্যাক লুক শকে। এছাড়া নিয়মিত ফুটবলারদের নিয়েই একাদশ সাজিয়েছেন কোচ গ্যারেথ সাউথগেট।

স্পেন একাদশ: উনাই সিমন (গোলরক্ষক), দানি কার্ভাহাল, রবিন লে নরমান্দ, আইমেরিক লাপোর্ত, মার্ক কুকুরেয়া, রদ্রিগো, ফাবিয়ান রুইজ, লামিন ইয়ামাল, দানি অলমো, নিকো উইলিয়ামস, আলভারো মোরাতা।

ইংল্যান্ড ইংল্যান্ড: জর্ডান পিকফোর্ড (গোলরক্ষক), কাইল ওয়াকার, মার্ক গুইয়ে, জন স্টোনস, লুক শ, বুকায়ো সাকা, ডেকলান রাইস, কোবি মাইনু, জুড বেলিংহাম, ফিল ফোডেন, হ্যারি কেইন। 


স্পেন   ইংল্যান্ড   ইউরো চ্যাম্পিয়নশিপ  


মন্তব্য করুন


বিজ্ঞাপন