ইনসাইড গ্রাউন্ড

বৃষ্টি আইন ডাকওয়ার্থ-লুইস মেথড

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশ: ০৪:৪৯ পিএম, ০৭ Jun, ২০১৭


Thumbnail



চলছে আইসিসি চ্যাম্পিয়নস ট্রফি ২০১৭। এবারের আসর অনুষ্ঠিত হচ্ছে ইংল্যান্ড এন্ড ওয়েলস এ। আর এবাবের আসরে প্রায়ই হানা দিচ্ছে বেরসিক বৃষ্টি। যার কারণে আসরের অন্যতম ফেবারিট অস্ট্রেলিয়ার কোন ম্যাচই খেলা হয়নি ঠিকমতো।

বৃষ্টি সেই আদিকাল থেকেই ক্রিকেটের সবচেয়ে বড় শত্রু। খেলাধুলার দুনিয়ায় টেনিস ছাড়া আর কোনো খেলাকে ক্রিকেটের মতো এতটা প্রভাবিত করতে পারে না বৃষ্টি। আকাশ থেকে দু’ফোটা বৃষ্টি ঝরে পড়লেই খেলাটার চরিত্র বদলে যায়। বল পিছলে হয়ে যায়, বোলাররা রানআপ ঠিক রাখতে পারেন না, ব্যাটসম্যান বল দেখতে পান না, ফিল্ডাররা পিছলে পড়ে যান, সবমিলে খেলাই আর সম্ভব হয় না। ঝড়ো বৃষ্টিতে তো কোনো খেলাই চলে না, ফুটবল-হকিও চলে না। তবে গুড়ি গুড়ি বৃষ্টিতে এসব খেলা চলে। ক্রিকেটেও একেবারে শুরুর দিকে গুড়ি গুড়ি বৃষ্টিতে খেলা চালানো হতো। সে রকম খেলা চালাতে গিয়ে বিকট সব অভিজ্ঞতা হয়েছে দু’দলের, বিশেষ করে অস্ট্রেলিয়া ও ইংল্যান্ড টেস্ট দলের।

একটা ম্যাচের গল্প করা যাক। ১৯৩৬-৩৭ সালের ঘটনা। এমসিসির সঙ্গে অস্ট্রেলিয়ান একাদশের ৫ ম্যাচের সিরিজ চলছে। তৃতীয় ম্যাচে অস্ট্রেলিয়া আগে ব্যাট করছিল। ১৮০ রান পর্যন্ত তরতর করে ব্যাট করে চললো তারা। এরপরই গুড়ি গুড়ি বৃষ্টি শুরু হলো। তখন অস্ট্রেলিয়া ২০০ রানে পৌঁছালোই জীবন দিয়ে, এক গাদা উইকেট হারিয়ে ফেললো তারা এই সময়ে। এরপর আর ব্যাটিং না করে বৃষ্টিতে ইংল্যান্ডকে ব্যাটিং করানোর জন্য ইনিংস ঘোষণা করে দিলো। ইংল্যান্ড ৩০ রান তুলতেই ৭ উইকেট হারিয়ে ছেড়ে দে মা কেঁদে বাঁচি বলে ডিক্লেয়ার করে দিলো। এবার অস্ট্রেলিয়া আবার সেই বিপদে। তবে অস্ট্রেলিয়া একটা বুদ্ধি করলো। তারা বোলারদের, মানে নিচের দিকের ব্যাটসম্যানদের সেই বৃষ্টির বিকেলে ব্যাটিং শুরু করতে পাঠালো। গোটা তিনেক উইকেট পড়লো। তবে পরদিন সকালে বৃষ্টি চলে যাবার পর ব্যাটসম্যানরা ঠিকই ব্যাট করতে নেমে এলেন। ফলে বুঝতেই পারছেন, সেই সময়ে বৃষ্টিটা কী ভয়ানক ব্যাপার হয়ে দাঁড়াতো খেলার জন্য।

আন্তর্জাতিক ক্রিকেট ম্যাচে বৃষ্টি হলে যে নিয়মে খেলা পরিচালিত হয় তার নাম হয়ত সবাই জানেন কিন্তু এই মেথডের কথা মাথায় এলেই কিছু দুর্বোধ্য সমীকরণ মাথায় চলে আসে। অধিকাংশ মানুষই এই মেথড সম্পর্কে ভালোভাবে জানেন না। আসুন জেনে নেওয়া যাক বৃষ্টি আইন বা ডাকওয়ার্থ-লুইস মেথড সম্পর্কে;

ডিএল মেথড

২০০১ সালে ক্রিকেট খেলার নিয়ন্ত্রণকারী সংস্থা হিসেবে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিল বা আইসিসি আনুষ্ঠানিকভাবে গ্রহণ করে। তবে ডি এল মেথডের প্রথম ব্যবহার ঘটে ১৯৯৬-৯৭ মৌসুমে জিম্বাবুয়ে বনাম ইংল্যান্ডের ওয়ানডে ম্যাচে। ঐ খেলায় জিম্বাবুয়ে ডি/এল মেথডে ৭ রানে জয়ী হয়। প্রধান মানদণ্ড হিসেবে বৃষ্টিবিঘ্নিতজনিত কারণে ও একদিনের আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলায় ফলাফলের লক্ষ্যমাত্রা ধার্য্যকরণের হিসাব-নিকাশে এ পদ্ধতির গুরুত্বকে বিশেষভাবে বিবেচনায় আনে আইসিসি।

স্মরণযোগ্য যে, পূর্বে অনুসৃত ওভারের সেরা রানের পদ্ধতি প্রয়োগের ফলে ১৯৯২ সালের বিশ্বকাপ ক্রিকেটে দক্ষিণ আফ্রিকাকে এক পর্যায়ে ১ বলে ২১ রান করার জন্য লক্ষ্যমাত্রা দেয়া হয়। অথচ, ১ বলের মাধ্যমে সর্বোচ্চ ৬ রান তোলা যায়। বৃষ্টিবিঘ্নিত খেলায় এ বিতর্কের অবসান ঘটেছে ডাকওয়ার্থ-লুইস পদ্ধতি আবিষ্কারের ফলে। নির্দিষ্ট সময়ে খেলা শেষ করার পূর্ব মুহুর্তে দক্ষিণ আফ্রিকার প্রয়োজন ছিল ১৩ বলে ২২ রানের। কিন্তু সংক্ষিপ্ত বৃষ্টি পর্বের ফলে পুণরায় তাদেরকে ২১ রান করতে বলা হয় মাত্র ১ বলে যা ছিল বিশ্বকাপের ইতিহাসে সবচেয়ে বড় বিতর্কের বিষয়। যদি ডি/এল মেথড প্রয়োগ করা হতো তাহলে ঐ খেলায় দক্ষিণ আফ্রিকাকে চার রান করলে টাই কিংবা পাঁচ রান করলে জয়লাভের জন্য নির্দেশনা দেয়া যেত।

বৃটিশ নাগরিক – পরিসংখ্যানবিদ ফ্রাঙ্ক ডাকওয়ার্থ এবং গণিতজ্ঞ টনি লুইস ডি/এল মেথড বা ডাকওয়ার্থ-লুইস পদ্ধতির প্রধান প্রবক্তা। ডাকওয়ার্থ এর জন্ম ১৯৩৯ সালের ২৬ ডিসেম্বর। টনি লুইসের জন্ম ১৯৪২ সালের ২৫ ফেব্রুয়ারি। দু’জনেরই জন্ম ইংল্যান্ডের ল্যাঙ্কাশায়ারে।

এই মেথড চালু হবার আগে আরও দুটি মেথড চালু ছিল। এর মধ্যে বেশি প্রচলিত ছিল MPO মেথড বা Most Productive Over Method. এই পদ্ধতি অনুসারে ২য় ইনিংসে ব্যাটিং করা দলের যত ওভার কমানো হবে, সেই ওভার গুলো হবে প্রথমে ব্যাট করা দলের সবচেয়ে কম রান পাওয়া ওভার। অর্থাৎ পরে ব্যাট করা দলের যদি ১০ ওভার কমে যায়, তাহলে প্রথমে ব্যাট করা দল যেই ১০ টি ওভারে সবচেয়ে কম রান করেছে, সেই ১০ ওভারের রানই কমে যাবে টার্গেট থেকে। এই পদ্ধতির বড় গলদ ধরা পড়ে ১৯৯২ বিশ্বকাপের ইংল্যান্ড বনাম দক্ষিণ আফ্রিকা সেমিফাইনাল ম্যাচে। সেখানে দক্ষিণ আফ্রিকাকে ১ বলে ২২ রানের অবাস্তব টার্গেট দেয়া হয়।

বৃষ্টি বা অন্যান্য কারণে যদি ম্যাচের পুরো ওভার শেষ করা না যায়, তাহলে ডিএল মেথড ব্যবহার করা হয়। এই মেথড ওয়ানডে এবং টি টুয়েন্টি ক্রিকেটে ব্যবহার করা হয়। আমাদের আলোচনা হবে ওয়ানডে ক্রিকেট নিয়ে। ডিএল মেথড অনুযায়ী কোনো ওয়ানডে ম্যাচের ফল তখনই ঘোষিত হবে যখন উভয় ইনিংসে কমপক্ষে ২০ ওভার করে খেলা হবে।

প্রথমতঃ যদি ম্যাচের আগেই বৃষ্টির কারণে কার্টেল ওভারের ম্যাচ ঘোষণা করা হয় এবং উভয় পক্ষকেই রিডিউসড ওভার খেলতে দেয়া হয় এবং ম্যাচের মধ্যে আর কোনো ওভার কাটা না লাগে, সেক্ষেত্রে ডিএল মেথড প্রযোজ্য হবেনা। যেমন, হয়তো বৃষ্টি হয়েছে ম্যাচের আগে, একটা সময় বৃষ্টি থেমে মাঠ খেলার উপযোগী হল, কিন্তু এতে কিছু সময় নষ্ট হওয়ায় ৫০ ওভারের বদলে উভয় পক্ষকে ৪০ ওভার দেয়া হল খেলার জন্য এবং দুই দলই পুরো ৪০ ওভার করে খেলার সুযোগ পেল। এক্ষেত্রে ডিএল মেথড প্রযোজ্য হবেনা। কেননা এক্ষেত্রে ইনিংস শুরুর আগে সবারই রান শুন্য এবং উইকেটের ঘরেও শুন্য এবং প্রত্যেকেই জানে রিডিউসড ওভারের কথা।

যদি প্রথম ইনিংসে কোনো বিঘ্ন ঘটে, যাতে প্রথম ইনিংস শুরুর পরে সেটাকে রিডিউস করা হয়, কিন্তু সেই রিডিউসড ওভারের সমান ওভারই দ্বিতীয় ইনিংসে খেলতে দেয়া হয় তখন প্রথম ইনিংস শেষে দ্বিতীয় ইনিংসের টার্গেট পুনরায় সেট করা হয়। এটা হাতে কত ওভার ছিল, কত রান হয়েছে আর কত উইকেট ছিল এটার উপর ভিত্তি করে করা হয়। সাধারণত এসব ক্ষেত্রে টার্গেট বাড়ানো হয় দ্বিতীয় ইনিংসে, কেননা প্রথম ইনিংসের কিছুটা অংশ জুড়ে ব্যাটিং দল ভেবেছিল তাদের হাতে আরও ওভার আছে। সেক্ষেত্রে আগে জানলে তারা আরও দ্রুত রান নেয়ার উদ্দেশ্যে ব্যাটিং করতে পারতো। সেই রানটা ব্যালান্স করে দেয়া হয় টার্গেট পুনর্নির্ধারণ করে বাড়িয়ে।

যদি দ্বিতীয় ইনিংসে কোনো বিঘ্ন ঘটে এবং এর জন্য দ্বিতীয় ইনিংসের ওভার সংখ্যা কমাতে হয়, তাহলে ডিএল মেথড অনুযায়ী হাতে থাকা রান, ওভার ও উইকেট অনুযায়ী তাদের টার্গেট পুনর্নির্ধারণ করা হয়।

প্রশ্ন আসতেই পারে এই নির্ধারণ কিসের ভিত্তিতে করা হয়? এটা করা হয় “রিসোর্সের” ভিত্তিতে। এই রিসোর্স হল হাতে থাকা ওভার এবং উইকেট মিলিয়ে একটা পার্সেন্টেজ। উদাহরণ হিসেবে এখানে একটি টেবিল দেয়া আছে যেখানে ৫ ওভার পর পর এবং উইকেট হাতে থাকার ভিত্তিতে রিসোর্স দেখানো হয়েছে। প্রতিটি বলের বিস্তারিত হিসাব আছে সম্পূর্ণ টেবিলে।

ব্যবহার নির্দেশিকা ও প্রয়োগ
ডাকওয়ার্থ-লুইস পদ্ধতি খুবই স্বাভাবিকভাবে প্রয়োগ করা হয়। এজন্যে পূর্ব থেকেই প্রস্তুতকৃত একটি টেবিল বা ছক এবং কিছু সাধারণ গাণিতিক হিসাব-নিকাশের প্রয়োজন রয়েছে। স্বল্প বৃষ্টিবিঘ্নিত খেলায় ফলাফল নির্ণয়কল্পেই এ পদ্ধতির সফলতা প্রধান বিবেচ্য বিষয় ও নির্ভরশীল। সেজন্যে -

৫০ ওভারের একদিনের আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলায় ডাকওয়ার্থ-লুইস পদ্ধতি প্রয়োগ করতে হলে প্রত্যেক দলকে কমপক্ষে ২০ ওভার বলের মুখোমুখি হতে হবে।

আধুনিক ক্রিকেটের নব সংযোজন টুয়েন্টি২০ ক্রিকেট খেলায় এ পদ্ধতি অনুসৃত হতে হলে উভয় দলকে কমপক্ষে ৫ ওভার বা ৩০ বল খেলতে হবে।

ডিএল মেথড যেভাবে অ্যাপ্লাই হবেঃ
১. ইনিংসের শুরুতে রিসোর্স পার্সেন্টেজ যত ছিল
২. বিরতির ফলে যেটুকু রিসোর্স নষ্ট হবে
৩. বাকি যা রিসোর্স থাকবে

এখন, পরে ব্যাট করা দলের রিসোর্স যদি প্রথমে ব্যাট করা দলের থেকে কম হয়, তাহলে দুই দলের বাকি থাকা রিসোর্সের রেশিও করতে হবে। এরপর পরে ব্যাট করা দলের টার্গেট হবে প্রথমে ব্যাট করা দলের স্কোর কে সেই রেশিও দিয়ে ভাগ করে।

যদি পরে ব্যাট করা দলের রিসোর্স প্রথমে ব্যাট করা দলের রিসোর্সের থেকে বেশি হয়, তাহলে ১ম দলের রিসোর্স কে ২য় দলের রিসোর্স থেকে বাদ দিয়ে দিতে হবে। এরপর এটাকে ২২৫ এর পার্সেন্টেজ বানাতে হবে (আইসিসি নির্ধারিত ওয়ানডের গড় স্কোর)। এরপর সেটাকে প্রথমে ব্যাট করা দলের রানের সাথে যোগ করে পরে ব্যাট করা দলকে টার্গেট দিতে হবে।

১ম উদাহরণঃ (২য় দলের ইনিংসের মাঝে ওভার কার্টেল হলে)
প্রথমে ব্যাট করে টিম ‘এ’ ৫০ ওভারে ২৫০ রান করলো। চেজ করতে নেমে টিম ‘বি’ ৪০ ওভারে ৫ উইকেটে ১৯৯ রান করলো এমন অবস্থায় বৃষ্টিতে খেলা স্থগিত হয়ে গেল।

এখানে, টিম ‘এ’ পুরো ৫০ ওভারে খেলেছে, তাই তাদের রিসোর্স = ১০০%
টিম ‘বি’ এর শুরুতে রিসোর্স ছিল = ১০০%
৪০ ওভার শেষে টিম ‘বি’ ৫ উইকেট হারিয়েছে, টেবিল অনুযায়ী তাদের রিসোর্স বাকি = ২৬.১%
টিম ‘বি’ এর মোট ব্যবহৃত রিসোর্স = ১০০-২৬.১=৭৩.৯%
এখানে টিম ‘বি’ এর রিসোর্স ‘এ’ থেকে কম, সুতরাং ‘বি’ এর টার্গেট হবে মেইন টার্গেটের ৭৩.৯/১০০ গুণ।
টিম ‘এ’ এর স্কোর ছিল ২৫০, তাই টিম ‘বি’ এর টার্গেট হবে ২৫০x৭৩.৯/১০০=১৮৪.৭৫=১৮৫

যেহেতু ম্যাচ আর হয়নি, সেহেতু বিজয়ী ঘোষণা হবে টিম ‘বি’ এই টার্গেট অতিক্রম করেছে কিনা এটা দেখে। যেহেতু টিম ‘বি’ ১৯৯ রান করেছে, তারা ১৮৫ থেকে ১৪ রান বেশি করেছে, ফলে তারা ১৪ রানে বিজয়ী হয়েছে পরে ব্যাট করা সত্বেও।

২য় উদাহরণঃ
 ২য় ইনিংসের মাঝপথে খেলা স্থগিত হয়ে কিছু ওভার কেটে আবার চালু হলেঃ
ধরা যাক, ৪০ ওভারের কার্টেল ম্যাচে ১ম ইনিংসে ব্যাট করে টিম ‘এ’ ২০০ রান করলো এবং টিম ‘বি’ ৩০ ওভারে ৫ উইকেটে ১৪০ করলো। এ অবস্থায় বৃষ্টির জন্য ৫ ওভার খেলা স্থগিত থাকার পর আবার শুরু। এ অবস্থায় টিম ‘বি’ এর নতুন টার্গেট কি হবে?

টিম ‘এ’ ৪০ ওভার খেলেছে প্রথম থেকে, সুতরাং তাদের রিসোর্স = ৮৯.৩%
টিম ‘বি’ এর ইনিংস শুরুর সময় রিসোর্স (৪০ ওভার হবার কথা) = ৮৯.৩%
৩০ ওভার শেষে টিম ‘বি’ এর ১০ ওভার হাতে ছিল এবং ৫ উইকেট হাতে ছিল, এই অবস্থায় রিসোর্স = ২৬.১%
৫ ওভার কাটা যাওয়ায় খেলা নতুন করে শুরু হলে ৫ ওভার হাতে থাকলো, এই অবস্থায় রিসোর্স থাকলো = ১৫.৪%
সুতরাং, রিসোর্স কাটা গেল ২৬.১-১৫.৪=১০.৭%
অর্থাৎ রিসোর্স বাকি থাকলো = ৮৯.৩-১০.৭=৭৮.৬%
টিম ‘বি’ এর রিসোর্স ‘এ’ থেকে কম, সুতরাং ‘বি’ এর টার্গেট হবে মেইন টার্গেটের ৭৮.৬/৮৯.৩ গুণ।

যেহেতু টিম ‘এ’ ২০০ করেছে, সুতরাং টিম ‘বি’ এর টার্গেট হবে ২০০x৭৮.৬/৮৯.৩=১৭৬ রান।
যেহেতু তারা ১৪০ রান করেছে, সুতরাং বাকি ৫ ওভারে তাদের করতে হবে আরও ৩৬ রান।

৩য় উদাহরণঃ (১ম ইনিংসে ইন্টারাপশন হলে)
ধরি, ৫০ ওভারের ম্যাচে টিম ‘এ’ প্রথমে ব্যাট করতে নেমে ২৫ ওভারে ২ উইকেটে ১০০ করলো, এই অবস্থায় বৃষ্টির কারণে ওভার কাটা যাওয়ায় ১ম দলের ইনিংস শেষ ঘোষণা করা হল এবং টিম ‘বি’কে ২৫ ওভার ব্যাট করার সুযোগ দেয়া হল। এখন টিম ‘এ’ জানতো না যে তাদের ইনিংস ২৫ ওভারে শেষ হবে, কিন্তু টিম ‘বি’ ২৫ ওভার জেনেই মাঠে নামছে, এটা টিম ‘এ’ এর জন্য আনফেয়ার হয়ে যায়। ফলে টিম ‘বি’ এর টার্গেট বেশি দেয়া হয়।

টেবিলে দেখতে পাবো, টিম ‘এ’ মাত্র ২৫ ওভার ব্যাট করার সুযোগ পাওয়ায় এবং ২ উইকেট হারানোয় তাদের ৬০.৫% রিসোর্স বাকি ছিল। যেহেতু ১০০% রিসোর্স থাকা অবস্থায় ইনিংস শুরু করেছে সুতরাং তারা মাত্র ১০০-৬০.৫=৩৯.৫% রিসোর্স ব্যবহার করতে পেরেছে।

টিম ‘বি’ ২৫ ওভার ব্যাট করার সুযোগ পাবে। তাদের হাতে ১০ উইকেট থাকায় রিসোর্স হবে ৬৬.৫%। ফলে টিম ‘বি’ এর হাতে ৬৬.৫-৩৯.৫=২৭% বেশি রিসোর্স থাকবে টিম ‘এ’ এর তুলনায়। সুতরাং তাদেরকে ২২৫ এর ২৭% অর্থাৎ ৬০.৭৫ রান বেশি করতে হবে টিম ‘এ’ থেকে (৫০ ওভারের ওয়ানডের এভারেজ স্কোর ২২৫ ধরা হয়)।

সুতরাং টিম ‘বি’ এর টার্গেট হবে ১০০+৬০.৭৫=১৬০.৭৫ বা ১৬১ রান ২৫ ওভারে। এভাবে ‘বি’ টিমের আগে থেকে জেনে ২৫ ওভার ব্যাটিং করার সুবিধাটা নিউট্রিলাইজ করা হল।

এছাড়া ১ম ইনিংসের মাঝপথে খেলা স্থগিত হয়ে আবার ১ম ইনিংস শুরু হলে সেক্ষেত্রেও ডিএল মেথড অনুযায়ী টার্গেট কাটাছেড়া হবে।

নিয়মটা আসলেই অনেক জটিল। তবে এটা দিয়ে মোটামুটি একটা ধারণা পাওয়া সম্ভব। বর্তমানে ডিএল মেথডের ক্যালকুলেটর আছে যেখানে শুধুমাত্র রান, উইকেট আর ওভার সংখ্যা বসিয়ে দিলেই তারা টার্গেট নির্ধারণ করে দেয়। ডাকওয়ার্থ লুইস মেথড ক্যালকুলেটর থেকে সহজেই আমরা টার্গেট জেনে নিতে পারি।

মেথডটি না বুঝলে কি হতে পারে?
ডাকওয়ার্থ লুইস মেথড সঠিকভাবে না জানলে কি হয় তার সবচেয়ে বড় উদাহরণ সেই দক্ষিণ আফ্রিকা। ২০০৩ বিশ্বকাপে স্বাগতিক হিসেবে তারা অন্যতম ফেভারিট ছিল। এক পর্যায়ে সুপার সিক্সে উঠতে হলে শ্রীলংকার বিপক্ষে গ্রুপের শেষ ম্যাচে জিততেই হতো প্রোটিয়াদের। শ্রীলংকার জন্যও অপরিহার্য ছিল জয় তাই সমীকরণ এমন ছিল যে হারলেই বিদায় নিতে হবে বিশ্বকাপ থেকে। ডাকওয়ার্থ লুইস পদ্ধতিতে দক্ষিণ আফ্রিকার জয়ের জন্য নতুন লক্ষ্য নির্ধারিত হয় ৪৫ বলে ৫৭ রান। ৪৫তম ওভারে ড্রেসিংরুম থেকে মার্ক বাউচারকে জানানো হয় ৪৬তম ওভার শেষে স্কোরবোর্ডে ২২৯ তুললেই পরের রাউন্ডে যাবে দক্ষিণ আফ্রিকা। মুরালিধরনের করা পঞ্চম বলটিকে ডিপ মিড উইকেটের উপর দিয়ে ছক্কা মারেন বাউচার এবং দক্ষিণ আফ্রিকার স্কোর এক বল বাকি থাকতেই হয় ২২৯। বাউচার কাঙ্ক্ষিত লক্ষ্যে পৌঁছে গেছেন ভেবে পরের বলটি ধীরে সুস্থে মিড উইকেটে খেলে কোন রান নিলেন না। এর পরপরই আকাশ ভেঙে নামলো তুমুল বৃষ্টি। হঠাৎই দক্ষিণ আফ্রিকার ড্রেসিংরুমে রাজ্যের হতাশা ! অধিনায়ক শন পোলক বসে আছেন গালে হাত দিয়ে। পোলকের হিসাবের ভুলে ছিটকে গেল দল। বাউচারকে পাঠানো বার্তায় পোলক জানিয়েছিলেন ২২৯ রান করলে ম্যাচটি জিতবে দক্ষিণ আফ্রিকা। কিন্তু আসল জিততে দক্ষিণ আফ্রিকার প্রয়োজন ছিল ২৩০ রান।


বাংলা ইনসাইডার/ডিআর 


 

Save

Save

Save



মন্তব্য করুন


ইনসাইড গ্রাউন্ড

জয়ের ধারা অব্যাহত বাংলাদেশের যুবাদের

প্রকাশ: ০৫:৩১ পিএম, ০১ ডিসেম্বর, ২০২১


Thumbnail

অনূর্ধ্ব-১৯ ত্রিদেশীয় সিরিজে নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে জয় পেয়ে জয়ের ধারা অব্যাহত রেখেছে বাংলাদেশের যুবারা। ভারতের ‘এ’ দলের পর ‘বি’ দলকেও হারাল বাংলাদেশ। বুধবার (১ ডিসেম্বর) কলকাতার ইডেন গার্ডেনসে ১১৩ রানের বিশাল জয় পেয়েছে রাকিবুল হাসানের দল। ১০১ রান করে বাংলাদেশের জয়ের ভিত গড়ে দেওয়া প্রান্তিক নওরোজ নাবিল হয়েছেন ম্যাচসেরা। আগামীকাল বৃহস্পতিবার (২ ডিসেম্বর) ভারতের যুব ‘এ’ দলের বিপক্ষে তৃতীয় ম্যাচ খেলবে সফরকারীরা।

টস জিতে আগে ব্যাট করতে নেমে বাংলাদেশ ৫০ ওভারে ৬ উইকেটে ৩০৫ রান করে। জবাবে অসহায় আত্মসমর্পণ করে ভারতের যুব ‘বি’ দল। ৪৫.৩ ওভারে ১৯২ রানে অলআউট তারা।

প্রান্তিকের সেরা ইনিংস ১০৮ বলে ১৪ চারে সাজানো ছিল। ওপেনার ইফতেখার হোসেন করেন ৫৭ রান। শেষ দিকে মেহরব হাসানের ৪৮ বলে ৭০ রানের সুবাদে তিনশ পেরোয় সফরকারীরা। তার ইনিংসে ছিল ৬ চার ও ২ ছয়। ভারতের পক্ষে কৌশল এস তাম্বে সর্বোচ্চ দুটি উইকেট নেন।

লক্ষ্যে নেমে ৯১ রানে ৪ উইকেট হারানোর ধাক্কা কাটাতে পারেনি ভারত। ৬৩ রানের ব্যবধানে শেষ ৬ উইকেট তারা হারায়। মিডল অর্ডারে ভাঙন ধরিয়ে ভারতের ব্যাটিং ধসে গুরুত্বপূর্ণ অবদান আরিফুল ইসলামের। চার উইকেট নেন তিনি। তাম্বে ভারতের পক্ষে সর্বোচ্চ ৪২ রান করেন।


মন্তব্য করুন


ইনসাইড গ্রাউন্ড

শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে লিড পেলো ক্যারিবিয়রা

প্রকাশ: ০৫:০২ পিএম, ০১ ডিসেম্বর, ২০২১


Thumbnail

শ্রীলঙ্কার গালে সিরিজের দ্বিতীয় টেস্ট ম্যাচে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে লিড পেয়েছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। শ্রীলঙ্কা প্রথম ইনিংসে ২০৪ রানে অল আউট হলে ওয়েস্ট ইন্ডিজের সামনে সুযোগ ছিল বড় লিড নেয়ার। কিন্তু সেই সুযোগ পুরোপুরিভাবে কাজে লাগাতে পারেনি তারা। শ্রীলঙ্কার বোলারদের নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ে প্রথম ইনিংসে ২৫৩ রানে গুটিয়ে যায় ওয়েস্ট ইন্ডিজ। ফলে, ৪৯ রানের লিড নিয়েই সন্তুষ্ট থাকতে হয় তাদের। 

এদিকে, নিজেদের দ্বিতীয় ইনিংসেও শুরুটা ভালো হয়নি শ্রীলঙ্কার। নিজেদের দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাট করতে নেমে দলীয় ৭ রানেই করুণারত্নের উইকেট হারায় শ্রীলঙ্কা। এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত শ্রীলঙ্কার সংগ্রহ ১ উইকেট হারিয়ে ৯ রান। 

এর আগে নিজেদের প্রথম ইনিংসে ওয়েস্ট ইন্ডিজের পক্ষে ব্যাট হাতে সর্বাধিক রান করেন ক্রেইগ ব্র্যাথওয়েট। ব্র্যাথওয়েটের ৭২, ব্ল্যাকউডের ৪৪ ও মায়ার্স এর অপরাজিত ৩৬  রানের উপর ভর করে ওয়েস্ট ইন্ডিজ তাদের প্রথম ইনিংসে ২৫৩ রান করে। 


মন্তব্য করুন


ইনসাইড গ্রাউন্ড

অ্যাশেজ নিয়ে রোমাঞ্চিত বাটলার

প্রকাশ: ০৪:৪৭ পিএম, ০১ ডিসেম্বর, ২০২১


Thumbnail

আর কিছুদিন পরই মাঠে গড়াচ্ছে ইংল্যান্ড-অস্ট্রেলিয়ার মধ্যকার ঐতিহ্যবাহী  অ্যাশেজ সিরিজ। আসন্ন অ্যাশেজে ভয়ডরহীন ক্রিকেট খেলতে চান ইংলিশ অধিনায়ক জশ বাটলার। বাটলার আরও জানান, ইতিমধ্যেই অ্যাশেজ নিয়ে রোমাঞ্চিত তিনি। 

এ বছর ইংল্যান্ডের বেশ কয়েকটি টেস্ট ম্যাচে খেলেননি বাটলার। নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজ ও  ওভালে ভারতের বিপক্ষে টেস্টটি খেলেননি তিনি। আইপিএলের কারনে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে খেলা হয়নি তার। ভারতের বিপক্ষে পাঁচ ইনিংসে মাত্র ৭২ রান করেছিলেন তিনি। অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে সিরিজটি চ্যালেঞ্জিং হবে বলে মনে করেন বাটলার। তবে ভয়ডরহীন ক্রিকেট খেলতে চান তিনি।

তিনি বলেন, ‘একজন খেলোয়াড় হিসেবে এই মুহূর্তে আমি ভয়ডরহীন থাকার এবং সুযোগটি লুফে নেওয়ার চেষ্টা করছি। জানি, নিজের  সেরার কাছাকাছিও পৌঁছাতে পারি তাহলে ভালো কিছু হতে পারে।’

গেল মাসে শেষ হয়েছে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ। কোয়ারেন্টিন শেষে ইংল্যান্ডের খেলোয়াড়দের দ্বিতীয় গ্রুপের স্কোয়াডে যোগ দিয়েছেন বাটলার। তবে ইংল্যান্ডের প্রস্তুতি ভালো হচ্ছে না। বৃষ্টির কারনে নিজেদের মধ্যে প্রথম প্রস্তুতি ম্যাচে মাত্র ২৯ ওভার খেলা হয়।

তবে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে অ্যাশেজ নিয়ে রোমাঞ্চিত বাটলার। কারন প্রথমবারের মত অস্ট্রেলিয়ায় টেস্ট খেলবেন বাটলার। তিনি বলেন, ‘সত্যি বলতে, আমার হারানোর কিছু নেই। গত বছর (মৌসুম) এখন অতীত। ভালো-খারাপ  সময় সবার ক্যারিয়ারেই থাকে। এই প্রথম আমি অস্ট্রেলিয়ায় অ্যাশেজ সিরিজ খেলতে যাচ্ছি, তাই সব রকম চ্যালেঞ্জ নেওয়ার জন্য আমি দৃঢ়প্রতিজ্ঞ। ভালো-খারাপ যাই হোক না কেন, আমি রোমাঞ্চিত।’

অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে এখন পর্যন্ত ১০টি টেস্ট খেলেছেন বাটলার। সবগুলো ঘরের মাটিতে। কিন্তু পারফরমেন্স ভালো করতে পারেননি তিনি। ১৮ ইনিংসে ২০ দশমিক ৫০ গড়ে ৩৬৯ রান করেছেন বাটলার। মাত্র একটি হাফ-সেঞ্চুরি করেছেন তিনি।


মন্তব্য করুন


ইনসাইড গ্রাউন্ড

ক্যারিয়ার সেরা র‍্যাংকিংয়ে লিটন দাস

প্রকাশ: ০৩:৫৬ পিএম, ০১ ডিসেম্বর, ২০২১


Thumbnail

চট্টগ্রামে পাকিস্তানের বিপক্ষে প্রথম টেস্টে ব্যাট হাতে দুর্দান্ত ছিলেন লিটন দাস। শুধু পাকিস্তানের বিপক্ষেই নয়, টেস্টেই সময়টা ভালো যাচ্ছে লিটনের। চট্টগ্রাম টেস্টে ভালো করার ফল পেতে দেরি হয়নি লিটনের। আইসিসির নতুন টেস্ট র‍্যাংকিংয়ে ব্যাটারদের তালিকায় ২৬ ধাপ এগিয়েছেন তিনি। 

বুধবার (১ ডিসেম্বর) আইসিসি টেস্ট র‍্যাংকিং হালনাগাদ করে বিশ্ব ক্রিকেটের নিয়ন্ত্রক সংস্থা আইসিসি। হালনাগাদকৃত ব্যাটারদের র‍্যাংকিংয়ে ২৬ ধাপ এগিয়ে ক্যারিয়ার সেরা ৩১তম স্থানে উঠে এসেছেন লিটন।

লিটন ছাড়াও উন্নতি হয়েছে মুশফিকুর রহিমের। চার ধাপ এগিয়ে তার অবস্থান এখন ১৯তম। এছাড়া বল হাতে দ্যুতি ছড়ানো তাইজুল ইসলামের উন্নতি হয়েছে বোলারদের ক্যাটাগরিতে। দুই ধাপ এগিয়ে ২৩তম স্থানে উঠে এসেছেন এই বাঁহাতি স্পিনার।


মন্তব্য করুন


ইনসাইড গ্রাউন্ড

ইএসপিএনের সেরা ফরোয়ার্ড মেসি, পাঁচে নেইমার

প্রকাশ: ০৩:০০ পিএম, ০১ ডিসেম্বর, ২০২১


Thumbnail

ইতিহাসের প্রথম খেলোয়াড় হিসেবে রেকর্ড সপ্তম বারের মতো ব্যালন ডি'অর জেতার একদিন পরই আরও একটি সু-সংবাদ পেলেন লিওনেল মেসি। ফুটবল বিষয়ক ওয়েবসাইট ইএসপিএন এফসি বর্ষসেরা ফুটবলারদের তালিকা প্রকাশ করেছে যেখানে সেরা ফরোয়ার্ড নির্বাচিত হয়েছেন মেসি। এবং সেরা স্ট্রাইকার নির্বাচিত হয়েছেন রবার্ট লেভানদোভস্কি।  

ফরোয়ার্ডদের তালিকায় মেসির পরেই আছেন ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো, কিলিয়ান এমবাপ্পে, মোহামেদ সালাহ এবং পাঁচে নেইমার জুনিয়র। স্ট্রাইকারদের তালিকায় লেভানদোভস্কির পর দুইয়ে আছেন আরলিং হারলান্ড এবং তিনে করিম বেনজেমা। চারে রুমেলু লুকাকু আর পাঁচে হ্যারি কেইন। ছয়ে জায়গা পেয়েছেন লুইস সুয়ারেস।

এদিকে উইঙ্গারদের তালিকায় শীর্ষে আছেন লিভারপুলের সেনেগালিজ ফুটবলার সাদিও মানে। দুইয়ে চেলসির ইতালিয়ান উইঙ্গার ফেদেরিকো চিয়েসা এবং তিনে ম্যানচেস্টার সিটির ইংলিশ ফুটবলার রহিম স্টার্লিং। তালিকার পাঁচে জায়গা পেয়েছেন রিয়াল মাদ্রিদের ভিনিসিয়ুস জুনিয়র এবং দশে পিএসজির আর্জেন্টাইন ফুটবলার আনহেল দি মারিয়া।

অ্যাটাকিং মিডফিল্ডারদের তালিকায় শীর্ষে ম্যানচেস্টার সিটির বেলজিয়তান তারকা কেভিন ডি ব্রুইনা, দুইয়ে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের পর্তুগিজ ফুটবলার ব্রুনো ফার্নান্দেস এবং তিনে বায়ার্ন মিউনিখের জার্মান তারকা টমাস মুলার। সেন্টার মিডফিল্ডারদের তালিকায় শীর্ষে আছেন চেলসির ফরাসি তারকা এনগোলো কঁতে, দুইয়ে বায়ার্নের জশুয়া কিমিচ এবং তিনে চেলসির জর্জিনহো। তালিকার ছয়ে জায়গা পেয়েছেন রিয়াল মাদ্রিদের কাসেমিরো। সাতে বার্সেলোনার পেদ্রি এবং আটে রিয়ালের লুকা মদ্রিচ।

লেফট-ব্যাকে শীর্ষে আছেন লিভারপুলের স্কটিশ অধিনায়ক অ্যান্ডি রবার্টসন, দুইয়ে বায়ার্নের আলফোনসো ড্যাভিস এবং তিনে এসি মিলানের ফরাসি ডিফেন্ডার থিয়ো হার্নান্দেস। সেন্টার-ব্যাক পজিশনে আছেন ম্যানচেস্টার সিটির পর্তুগিজ তারকা রুবেন দিয়াস, দুইয়ে পিএসজির ব্রাজিলিয়ান ডিফেন্ডার মার্কুইনহোস এবং তিনে জুভেন্টাসের জর্জিও চিয়েল্লিনি।  

রাইট-ব্যাক পজিশনে শীর্ষে স্থান পেয়েছেন পিএসজির মরক্কান ডিফেন্ডার আশরাফ হাকিমি। দুইয়ে আছেন লিভারপুলের ইংলিশ তারকা ট্রেন্ট অ্যালেকজান্ডার-আরনল্ড এবং তিনে ম্যানচেস্টার সিটির পর্তুগিজ তারকা হুয়াও কানসেলো।  

গোলরক্ষকদের তালিকায় শীর্ষে আছেন আতলেতিকো মাদ্রিদের স্লোভেনিয়ান তারকা ইয়ান অবলাক। তালিকার দুইয়ে পিএসজির ইতালিয়ান গোলরক্ষক জিয়ানলুইজি ডুনারুম্মা এবং তিনে বায়ার্নের জার্মান গোলরক্ষক ম্যানুয়েল ন্যয়ার। চারে জায়গা পেয়েছেন রিয়াল মাদ্রিদের থিবাউ কুর্তোয়া।


মন্তব্য করুন


বিজ্ঞাপন