ইনসাইড বাংলাদেশ

‘আমরা কোথায় থাকব, কী করব, কী খাব?’

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশ: ১২:৫৯ পিএম, ১৮ অক্টোবর, ২০২১


Thumbnail

পূজা মণ্ডপ ও মন্দিরে হামলার ঘটনার রেশ না কাটতেই এবার রংপুরের পীরগঞ্জ উপজেলার বড়করিমপুর গ্রামে হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের বাড়িঘরে আগুন দেয়া হয়েছে। আগুন দেবার ঘটনার পর গ্রামের সবার চোখে-মুখে আতঙ্কের ছাপ। গ্রামটি ঘিরে রেখেছে পুলিশ ও বিজিবির সদস্যরা।  আগুনে পুড়ে গেছে ২১টি বাড়ি। 

আজ সোমবার (১৮ অক্টোবর) সকাল পর্যন্ত এ ঘটনায় অন্তত ৩০ জনকে আটক করা হয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

পুলিশ, প্রত্যক্ষদর্শী ও গ্রামের লোকজনের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, পাশের মাঝিপাড়া গ্রামের পরিতোষ রায় নামের এক তরুণ সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে ধর্মীয় অবমাননাকর পোস্ট দিয়েছেন, এমন অভিযোগ তুলে একদল লোক সেখানে উত্তেজনা ছড়ানোর চেষ্টা করেন। ঘটনা আঁচ করতে পেরে সম্ভাব্য হামলা ঠেকাতে পুলিশ মাঝিপাড়া গ্রামের পরিতোষের বাড়িসহ আশপাশের বাড়িতে নিরাপত্তা দেয়। তখন উত্তেজিত শত শত লোক ওই গ্রামের পাশের বড়করিমপুর গ্রামে হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকজনের বাড়িঘরে হামলা, লুটপাট ও অগ্নিসংযোগ করেন।

ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, ধর্মীয় স্লোগান দিয়ে বসতবাড়িতে ঢুকে দুর্বৃত্তরা গ্রামজুড়ে তাণ্ডব চালায়। এ সময় তারা হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকজনকে মারধর করে, হুমকি দেয়, অকথ্য ও আপত্তিকর ভাষায় গালাগাল করে। প্রাণ বাঁচাতে নারী, পুরুষ ও শিশুরা বাড়ি ছেড়ে পাশের ধানখেতে আশ্রয় নেয়। দুর্বৃত্তরা তখন একের পর এক বাড়ি আগুন ধরিয়ে দেয়। 

প্রশাসনের ভূমিকা প্রসঙ্গে প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, হামলাকারীরা গ্রামের বসতবাড়িতে ঢুকে অন্তত আধা ঘণ্টা ধরে তাণ্ডবলীলা চালালেও পুলিশের ভূমিকা দৃশ্যমান ছিল না। হামলাকারীরা চলে যাওয়ার পর পুলিশ গ্রামে গেলে ধানখেতে আশ্রয় নেওয়া লোকজন বাড়িতে ফেরেন।

প্রদীপ চন্দ্র বলেন, রাতে শত শত মানুষ ধর্মীয় স্লোগান দিয়ে বাড়িতে ঢুকে পড়ে। এ সময় দুজন তাকে মারধর করলে তিনি দৌড়ে কোনো মতে রক্ষা পান। পরিবারের অন্য সদস্যরাও ভয়ে বাড়ি থেকে চলে যান। হামলাকারীরা ঘরে থাকা ২৫ হাজার টাকা, টিভি ও একটি গরু নিয়ে গেছে। যাওয়ার সময় বাড়িতে আগুন ধরিয়ে দেয়।

তারা রাণী নামে আরেকজন জানান, তার চারটি টিনের ঘর, ধান-চাল ও আসবাবপত্র পুড়ে ছাই হয়েছে। তারা রাণী আহাজারি করে বলছিলেন, ভগবান, আমরা কী দোষ করছিলাম? কেন আমাদের সব শেষ করে দিল। এখন আমরা কোথায় থাকব, কী করব, কী খাব?

তারা রাণীর সঙ্গে উপস্থিত থাকা ননী গোপাল জানান, তিনি ঘটনার সময় বাড়ি সংলগ্ন রাধা-গোবিন্দ মন্দিরে পূজা করছিলেন। হঠাৎ শত শত লোক দল বেঁধে বাড়িতে ও মন্দিরে ঢুকে আগুন ধরিয়ে দেয়। লুট করে নিয়ে যায় গরু ও স্বর্ণালংকার। পরনের কাপড় ছাড়া সব পুড়ে গেছে। থানায় ফোন করলেও পুলিশের সহযোগিতা পাননি বলেও অভিযোগ করেন তিনি।

গ্রামের বাসিন্দা ক্ষুব্ধ শিরীষ চন্দ্র রায় বলেন, পুলিশ এসেছে ঠিকই, কিন্তু আমাদের সবকিছু শেষ হওয়ার অনেক পরে। এখন গ্রাম পুলিশে ঠাসা। লাভ কী!

ওই গ্রামের বাসিন্দা রাসেল মিয়া (৩৫) ঘটনার অভিন্ন বর্ণনা দিয়ে বলেন, হিন্দুদের বাড়িতে হামলা, লুটপাট ও আগুন লাগানোর ঘটনা মর্মান্তিক। এমন নিষ্ঠুরতা কোনোভাবেই মেনে নেওয়া যায় না।

পূর্ণিমা রাণী নামে আক্রান্ত একজন জানান , হামলাকারীরা বাড়িতে ঢুকে তার দুই তরুণী মেয়ে কোথায়, জানতে চায়। ঘরে ঢুকে ভাঙচুর করে ৫০ হাজার টাকা ও একটি গরু নিয়ে যায় দুর্বৃত্তরা। 

গ্রামের নিরঞ্জন রায় বলেন, ১৫টি পরিবারের ২১টি বসতঘর সম্পূর্ণ পুড়ে গেছে। গ্রামের অন্তত ৫০টি বাড়িতে ভাঙচুর ও লুটপাট করা হয়েছে। হামলাকারীরা অন্তত ২৫টি গরু ও ১০টি ছাগল নিয়ে গেছে।

পাশের মাঝিপাড়া গ্রামের পরিতোষ রায়ের বাড়িতে গিয়ে দেখা যায়, তালা ঝুলছে। পাশে বসে আছে অস্ত্রধারী পুলিশ সদস্যরা। এই গ্রামের পুলিন চন্দ্র বলেন, পরিতোষ ও তাঁর পরিবারের সদস্যরা গতকাল সন্ধ্যার পর বাড়িতে তালা লাগিয়ে অন্যত্র আত্মগোপন করেছেন।

রংপুরের পুলিশ সুপার বিপ্লব কুমার সরকার আজ সকালে ঘটনাস্থলে যান। তিনি বলেন, হামলাকারীদের কোনো ছাড় নেই। তারা হানাদার বাহিনীর মতো বাড়িঘরে হামলা, লুটপাট ও অগ্নিসংযোগ করেছে। ইতিমধ্যে অভিযান চালিয়ে অন্তত ৩০ জনকে আটক করা হয়েছে। এ ঘটনায় থানায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে বলেও জানান তিনি।


মন্তব্য করুন


ইনসাইড বাংলাদেশ

নামার সময় ছাত্রীকে ধাক্কা দেয়ায় ৫০ রাইদা বাস আটক

প্রকাশ: ০৮:১২ পিএম, ২৯ নভেম্বর, ২০২১


Thumbnail

রাজধানীর রামপুরায় রাইদা পরিবহনের বাস থেকে ইম্পিরিয়াল কলেজের এক ছাত্রীকে ধাক্কা দিয়ে নামানোর অভিযোগে ৫০টি রাইদা বাস আটকে রাখে শিক্ষার্থীরা।

এ ঘটনায় সোমবার দুপুরে শিক্ষার্থীদের প্রতিবাদে প্রায় দেড় ঘণ্টার মতো রাস্তায় রাইদা পরিবহন বন্ধ ছিল।

এ বিষয়ে বিকেলে রামপুরা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রফিকুল ইসলাম জানান, দুপুরের দিকে ইম্পিরিয়াল কলেজের এক ছাত্রী মুগদা এলাকা থেকে করোনার টিকা নিয়ে রাইদা পরিবহনের একটি বাসে করে বাসায় ফিরছিলেন। এ সময় মেরুল বাড্ডা ইউলুপের কাছে তাকে রাইদা পরিবহন থেকে ধাক্কা দিয়ে নামিয়ে দেয় বাসের হেলপার। এমন অভিযোগ পেয়ে ওই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা রামপুরা টিভি সেন্টার এলাকায় আনুমানিক রাইদা পরিবহনের ৫০টি বাস থামিয়ে চাবি নিয়ে নেয় এবং প্রতিবাদ করতে থাকে।

তিনি আরও জানান, কিছুদিন আগে একই প্রতিষ্ঠান ছাত্রদের আন্দোলনে তাদের দাবি অনুযায়ী রাইদা পরিবহন হাফ ভাড়া নিয়ে থাকে শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে। তবে আজকের ঘটনায় শিক্ষার্থীরা বিভিন্ন দাবি জানায়। তাদের দাবি-বাস স্টাফদের যাত্রীদের সঙ্গে খারাপ ব্যবহার পরিহার করতে হবে। এছাড়া বাসে নারী ও প্রতিবন্ধীদের ৯টি আসন খালি রাখতে হবে এবং নিরাপদ সড়ক আইন মেনে চলতে হবে।

কলেজ কর্তৃপক্ষ, পুলিশ ও রাইদা কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলোচনা করে দেড় ঘণ্টা বন্ধ থাকার পর পুনরায় রাইদা পরিবহন চলাচল শুরু করে। 


মন্তব্য করুন


ইনসাইড বাংলাদেশ

সড়কে মানুষ হত্যার ‘বন্দোবস্ত’ দ্রুত বন্ধ করার দাবি রবের

প্রকাশ: ০৭:৩৯ পিএম, ২৯ নভেম্বর, ২০২১


Thumbnail

অপেশাদার 'চালক' ও 'ফিটনেসবিহীন' গাড়ি  দিয়ে সড়কে মানুষ হত্যার 'বন্দোবস্ত' দ্রুত বন্ধের লক্ষ্যে ছয় দফা দাবি জানিয়েছেন জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল জেএসডি সভাপতি আ স ম আবদুর রব। সোমবার (২৯ নভেম্বর) বিকালে গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে ছয় দফা দাবি জানান তিনি।

বিবৃতিতে তিনি বলেন, 'শুধুমাত্র লাইসেন্সবিহীন 'অপেশাদার চালক' ও 'ফিটনেসবিহীন গাড়ির' কারণে বছরে কয়েক হাজার মানুষ মৃত্যুমুখে পতিত হয়। রাস্তায় লাইসেন্সবিহীন চালকের যান চলাচল নিষিদ্ধ করতে পারলে হাজার হাজার মানুষের জীবন সুরক্ষা পেত এবং অগণিত ছাত্র ও পবিারের স্বপ্ন নিমিষেই ধুলিস্যাৎ হতো না। অদক্ষ, অপেশাদার ও লাইসেন্সবিহীন চালকের হাত থেকে জীবন সুরক্ষা প্রশ্নে গত ৫০ বছরেও রাষ্ট্র দৃশ্যমান কোনো পদক্ষেপ নিতে পারেনি।

খোদ রাজধানীতে লাইসেন্সবিহীন চালক সেজে গাড়ি চালাচ্ছে নিরাপত্তা প্রহরী, সুইচ ম্যান, মশক কর্মী ও পরিচ্ছন্নতাকর্মীরা। ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের ১৬৫টি গাড়ির বিপরীতে চালক আছে মাত্র ৬২ জন। এতে প্রমাণ হয় রাষ্ট্রই মানুষ হত্যার বন্দোবস্ত করে রেখেছে। আধুনিক বিশ্বে এরূপ ঘটনা বিরল। 

শুধুমাত্র সদিচ্ছা থাকলেই সরকার প্রযুক্তি, পুলিশ এবং প্রশাসনের সহায়তায় অতি সহজেই লাইসেন্সবিহীন 'চালক' ও 'ফিটনেসবিহীন' পরিবহন বন্ধ করতে পারে। একটি মাত্র দুর্ঘটনায় অনেক পরিবারেরই স্বপ্ন শেষ হয়ে যায়। ভবিষ্যতে যাতে এ ধরনের কোন দুর্ঘটনা না ঘটে সরকারকে কাল বিলম্ব না করে এখনই পদক্ষেপ নিতে হবে। 

এ লক্ষ্যে রবের ছয় দফা হচ্ছে-

(১) লাইসেন্সবিহীন চালকদের গাড়ি চালানো অবিলম্বে নিষিদ্ধ করতে হবে;
(২) ফিটনেসবিহীন গাড়ি রাস্তায় নামানো বন্ধ করতে নিয়মিত পুলিশ চেকিং এর ব্যবস্থা করতে হবে। 
(৩) প্রশিক্ষণের মাধ্যমে দেশে যথেষ্ট সংখ্যক ড্রাইভারের প্রাপ্যতা নিশ্চিত করতে হবে; 
(৪) রাস্তায় গাড়ি চালকদের মধ্যে অনিয়ন্ত্রিত প্রতিযোগিতা চিরতরে বন্ধ করতে হবে;
(৫) যথেষ্ট সংখ্যক ফুটওভার ব্রিজ নির্মাণ করে যত্রতত্র ক্রসিং বন্ধ করতে হবে এবং
(৬) নিরাপদ সড়ক ব্যবস্থাপনায় সরকারকে উদাসীনতা, নির্বিকারিত্ব ও অমনোযোগিতা পরিহার করতে হবে।

দুর্ঘটনায় মানুষের মৃত্যুর উৎসমুখ বন্ধ না করে প্রশ্রয় দিলে রাষ্ট্রের প্রয়োজনীয়তাই শেষ হয়ে যায়। সড়কে চরম নৈরাজ্য ও মানুষ হত্যা বন্ধে দ্রুত ৬ দফা বাস্তবায়নের দাবি জানান আ স ম রব।

মন্তব্য করুন


ইনসাইড বাংলাদেশ

পীরগঞ্জে ভোট কেন্দ্রে সংঘর্ষ, নিহত ৩

প্রকাশ: ০৩:৪৭ পিএম, ২৯ নভেম্বর, ২০২১


Thumbnail

ঠাকুরগাঁওয়ের পীরগঞ্জ উপজেলার খনগাঁও ইউনিয়নের ঘিডোব সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ভোট গণনার পর কারচুপির অভিযোগ ও ফলাফল নিয়ে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এ সময় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর গুলিতে ৩ তিনজন নিহত ও ৫ জন আহত হয়েছেন বলে স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে।

রোববার (২৮ নভেম্বর) রাত ১০টার দিকে পীরগঞ্জ উপজেলার ৩নং খনগাঁও ডিঘোট সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে এই সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে ঠাকুরগাঁও পুলিশ সুপার (এসপি) জাহাঙ্গীর হোসেন জানান, নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা সদস্যরা কোনোভাবে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পারছিলেন না। তাদের ওপর হামলা করা হয়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে বিজিবি গুলি ছুড়তে বাধ্য হয়েছে। এতে ঘটনাস্থলেই একজন নিহত হয়েছেন।

নিহতরা হলেন- ঘিডোবপুর গ্রামের সাহাবলি আহম্মেদ (৩৫), মোজাহারুল ইসলাম (৪০) ও অবিনাশ চন্দ্রের ছেলে আদিত্য (২০)। ঘটনাস্থলেই একজন ও রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পথে দুইজনের মৃত্যু হয়েছে।

আহতরা হলেন- উপজেলার ঘিডোর গ্রামের অবিলাশের ছেলে অমিত রায়, জহুরুলের ছেলে সবুজ আলী, তমিউদ্দীনের ছেলে সুজা আহম্মেদ, আব্দুল বাকির স্ত্রী রহিমা বেগম ও খনগাঁও গ্রামের তৈয়বুর রহমানের ছেলে রাব্বানী। তারা ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতালে চিকিংসাধীন আছেন। ২ জনকে উন্নত চিকিৎসার জন্য রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।


মন্তব্য করুন


ইনসাইড বাংলাদেশ

হোটেল-রেস্তোরাগুলোতে আসতে পারে বিধিনিষেধ

প্রকাশ: ০২:৪৩ পিএম, ২৯ নভেম্বর, ২০২১


Thumbnail

আবারো নতুন করে শঙ্কার মাঝে পড়তে পারে দেশের হোটেল-রেস্তোরাঁগুলো। করোনাভাইরাসের দক্ষিণ আফ্রিকান বিপদজনক ধরণ ‘ওমিক্রনের’ আক্রমণে নতুন করে বিধিনিষেধ আরোপের শঙ্কা দেখা দিয়েছে এ মাধ্যমে। যদিও এখনো লকডাউনে খাবার বিক্রির জন্য সরকারের পক্ষ থেকে কোন নির্দিষ্ট সময় বেঁধে দেওয়া হয় নি।     

রোববার (২৮ নভেম্বর) স্বাস্থ্য অধিদফতরের রোগ নিয়ন্ত্রণ শাখার পরিচালক অধ্যাপক ডা. নাজমুল ইসলামের সই করা এক বিজ্ঞপ্তিতে এ সংক্রান্ত পদক্ষেপ কঠোরভাবে বাস্তবায়নের কথা বলা হয়েছে।   

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, দক্ষিণ আফ্রিকা ও অন্যান্য দেশে করোনাভাইরাসের দক্ষিণ আফ্রিকান ভ্যারিয়েন্ট (ধরন) ‘ওমিক্রন’-এর সংক্রমণ দেখা দেওয়ায় অধিকতর সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা সব দেশকে এ সম্পর্কে সতর্ক করেছে। 

নতুন এই ভ্যারিয়েন্ট প্রতিরোধে হোটেল-রেস্তোরাঁতে বসে খাওয়ার ব্যবস্থা ধারণক্ষমতার অর্ধেক বা তার কম করতে হবে। একইসঙ্গে জনসমাবেশ, পর্যটন স্থান, বিনোদন কেন্দ্র, রিসোর্ট, কমিউনিটি সেন্টার, সিনেমা হল, থিয়েটার হল ও সামাজিক অনুষ্ঠানে (বিয়ে, বৌভাত, জন্মদিন, পিকনিক, পার্টি ইত্যাদি) ধারণক্ষমতার অর্ধেক বা তার কমসংখ্যক লোক অংশ নিতে পারবেন।

এছাড়াও সব ধরনের সামাজিক, রাজনৈতিক, ধর্মীয়সহ অন্যান্য জনসমাগমে নিরুৎসাহিত করার পদক্ষেপ বাস্তবায়নে কঠোর হতে বলেছে স্বাস্থ্য অধিদফতর।

রেস্টুরেন্ট মালিক সমিতির তথ্য বলছে, ঢাকা মহানগরে প্রায় আট হাজার রেস্তোরাঁ রয়েছে। যাতে সব মিলিয়ে প্রায় আড়াই লাখ শ্রমিক কাজ করেন।


মন্তব্য করুন


ইনসাইড বাংলাদেশ

ফরিদপুরে ১৫ ইউপির ১৪টিতেই নৌকার ভরাডুবি

প্রকাশ: ১২:১৫ পিএম, ২৯ নভেম্বর, ২০২১


Thumbnail

ফরিদপুরের ভাঙ্গা ও চরভদ্রাসন উপজেলার ১৫টি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে ভরাডুবি হয়েছে নৌকা প্রার্থীদের। দুটি উপজেলার ১৫টি ইউনিয়নের মধ্যে ১৪টিতেই জয়লাভ করেছেন স্বতন্ত্র প্রার্থীরা। বিপরীতে মাত্র ১টিতে বিজয়ী হয়েছে নৌকা।

নৌকা প্রতীকের একমাত্র বিজয়ী প্রার্থী হলেন ভাঙ্গা উপজেলার কাউলিবেড়া ইউনিয়নের মো. রেজাউল হাসনাত দুদু।

স্বতন্ত্র বিজয়ীরা হলেন, ভাঙ্গা উপজেলার আজিমনগর ইউনিয়নের শাজাহান হাওলাদার মিয়া, আলগী ইউনিয়নে ম. ম সিদ্দিক, কালামৃধা ইউনিয়নে রেজাউল মাতুব্বর, ঘারুয়া ইউপিতে মুনসুর মুনসি, চান্দ্রা ইউপিতে খালেক মোল্যা, চুমুরদিতে রফিকুল ইসলাম সোহাগ, তুজারপুরে ওলিউর রহমান, নাসিরাবাদে আলমগীর খান, নুরুল্যাগঞ্জে সৈয়দ শাহাবুর, মানিকদহে শহিদুল্লাহ বাচ্চু ও হামেরদিতে খোকন মোল্যা।

এছাড়া চরভদ্রাসন উপজেলার সদর ইউপিতে আজাদ খান (স্বতন্ত্র), চরহরিরামপুর ইউপিতে জাহাঙ্গীর কবির (বিএনপি স্বতন্ত্র), গাজিরটেক ইউপিতে মো. ইয়াকুব আলী (বিএনপি স্বতন্ত্র)।


মন্তব্য করুন


বিজ্ঞাপন