কালার ইনসাইড

নতুন আরও এক সুখবর দিলেন মিম

প্রকাশ: ০১:০৮ পিএম, ২৮ নভেম্বর, ২০২১


Thumbnail নতুন আরও এক সুখবর দিলেন মিম

নজরকাড়া গ্ল্যামারে শোবিজ মাতিয়ে চলেছেন বিদ্যা সিনহা মিম। একের পর এক সুখবর দিচ্ছেন তিনি। জন্মদিনে আংটি বদল, হবু জামাইয়ের সঙ্গে সবাইকে পরিচয় করিয়ে দেওয়া এবং নতুন সিনেমায় চুক্তিবদ্ধ হয়ে আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে আছেন তিনি। এক সিনেমার খবরের রেশ না কাটতেই দিলেন নতুন সিনেমার খবর।

গত ২০ নভেম্বর ‘পথে হলো দেখা’ নামের নতুন সিনেমায় চুক্তিবদ্ধ হয়েছেন মিম। কয়েক দিনের ব্যবধানে আরও একটি চমকপ্রদ সুখবর জানালেন নায়িকা। মাসুদ রানা সিরিজ অবলম্বনে নির্মিতব্য সিনেমায় চুক্তিবদ্ধ হয়েছেন তিনি। সিনেমার নাম ‘এমআর নাইন’।

বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত মার্কিন নির্মাতা আসিফ আকবরের পরিচালনায় একজন ভারতীয় গুপ্তচরের ভূমিকায় হাজির হবেন মিম। চরিত্রটির নাম সুলতা রাও। এতে মাসুদ রানার ভূমিকায় অভিনয় করবেন এ বি এম সুমন।

মিম জানান, গত সপ্তাহেই তিনি সিনেমাটিতে যুক্ত হয়েছেন। যদিও আরও অনেক আগে থেকেই এখানে কাজের ব্যাপারে আলাপ চলছিল। তবে তিনি অপেক্ষায় ছিলেন লিখিতভাবে চুক্তিবদ্ধ হওয়ার।

নায়িকা বলেন, ‘গত শনিবার প্রযোজক আবদুল আজিজ ভাইসহ সিনেমাটির সংশ্লিষ্ট কয়েকজন আমাদের বাসায় এসেছিলেন। তখনই চুক্তিবদ্ধ হয়েছি।’

সিনেমার প্রস্তুতি প্রসঙ্গে মিমের ভাষ্য, ‘নিজের চরিত্রটিকে ভালোভাবে আয়ত্তে আনতে উপন্যাসটি অনেকবার পড়েছি। এই ছবির সঙ্গে হলিউডও জড়িত। অনেক বড় প্রজেক্ট। চরিত্রের লুক আনতে অনেক দিন থেকেই জিমে যাচ্ছি। সব মিলিয়ে কাজটির জন্য নিজেকে শক্তভাবে প্রস্তুত করছি।’

প্রসঙ্গত, ‘এমআর নাইন’ সিনেমাটি বাংলাদেশ থেকে প্রযোজনা করছে জাজ মাল্টিমিডিয়া, সঙ্গে হলিউডের অ্যাভেইল এন্টারটেইনমেন্টের প্রযোজনাও থাকছে। এটি বাংলা ও ইংরেজি দুই ভাষায় নির্মিত হবে। এতে এ বি এম সুমন ও মিম ছাড়া আরও অভিনয় করবেন তারিক আনাম খান, সাজ্জাদ, সাঞ্জু জন, জেসিয়া, হলিউডের মাইকেল জে হোয়াইট, লুইস ট্যান্ট প্রমুখ। আগামী বছরের ১ ফেব্রুয়ারি থেকে শুরু হবে এই সিনেমার শুটিং। প্রথম ধাপে চিত্রায়ন হবে বাংলাদেশে। এরপর এক সপ্তাহ বিরতি দিয়ে টানা ১৫ দিনের শুটিং হবে যুক্তরাষ্ট্রে।

 



মন্তব্য করুন


কালার ইনসাইড

পতাকা হচ্ছে রক্তাক্ত, পুরো জাতি কি আজ অবুঝ : আফরান নিশো

প্রকাশ: ০৫:১০ পিএম, ১৮ জুলাই, ২০২৪


Thumbnail

কোটা সংস্কারের আন্দোলনে উত্তাল সারা দেশ। তারকারাও এই আন্দোলনে সক্রিয় সমর্থন জানাচ্ছেন। আন্দোলনকারীদের পক্ষে অনেকেই সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট দিচ্ছেন। এর মধ্যে অভিনয়শিল্পী আফরান নিশো কিছুটা নিরব ছিলেন, যা নিয়ে বিভিন্ন গ্রুপে আলোচনা ও সমালোচনা চলছিল। অবশেষে, আজ সন্ধ্যায় নিজের ফেসবুক আইডিতে একটি কবিতা পোস্ট করে নিশো নিজের মত প্রকাশ করেছেন।

কবিতার নিচে লেখা ছিল "আ/নি," যা থেকে ধারণা করা যায় যে কবিতাটি নিশোরই লেখা। কবিতায় তিনি প্রশ্ন তুলেছেন লাল-সবুজের পতাকায় কেন আজ এত লাল রঙ দেখা যাচ্ছে।

তিনি লেখেন: "আমার সোনার বাংলা,
আমাদের প্রাণ,
লাল-সবুজের পতাকা,
সবুজের মাঝে লাল...
বাবা মুক্তিযোদ্ধা,
চেতনা-
লড়ব যদি যাক প্রাণ...
লাল-সবুজের পতাকা...
তাদেরই প্রতিদান,
তাদের আত্মত্যাগের ঘ্রাণ...
তবে আজ...
কেন এত... লাল???"

তিনি আরও লেখেন: "সবুজে লাল খুঁজি...
লালে নয় সবুজ
পতাকা হচ্ছে রক্তাক্ত...
পুরো জাতি কি আজ অবুঝ?
বলেন না?
মা বলেন ...আর চাই না লাল...
ফিরিয়ে দাও... আমার সবুজ।
লাল-সবুজের পতাকায় আজ কেন এত লাল?
শান্তি চাই
হোক সংস্কার
অপমান চাই না
রক্তাক্ত রাজপথ চাই না
হোক সমাধান
লাল-সবুজের পতাকায় আর তো লাল চাই না..."

উল্লেখ্য, আফরান নিশোর বাবা একজন মুক্তিযোদ্ধা ছিলেন। কিছুদিন আগে তিনি মৃত্যুবরণ করেন এবং রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় তার লাশ দাফন করা হয়।

কোটা আন্দোলন   আফরান নিশো   পোস্ট  


মন্তব্য করুন


কালার ইনসাইড

৭৬তম এমি অ্যাওয়ার্ডস এর মনোনয়ন ঘোষণা

প্রকাশ: ০৪:৫১ পিএম, ১৮ জুলাই, ২০২৪


Thumbnail

টেলিভিশনের সবচেয়ে মর্যাদাপূর্ণ পুরস্কার এমি অ্যাওয়ার্ডের মনোনীতদের তালিকা ঘোষণা করা হয়েছে। বুধবার (১৮ জুলাই) সকালে ঘোষণা করা হয় ৭৬তম এমি অ্যাওয়ার্ডের নমিনেশন। এবারের নমিনেশনে ২৫টি মনোনয়ন নিয়ে শীর্ষে রয়েছে এফএক্স-এর জনপ্রিয় সিরিজ ‘শোগুন’। সেরা ড্রামা, সেরা অভিনেতাসহ বিভিন্ন ক্যাটেগরিতে এই সিরিজটি মনোনীত হয়েছে। এছাড়া, এফএক্স-এর আরেকটি সিরিজ ‘দ্য বিয়ার’ ২৩টি মনোনয়ন পেয়ে দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে, যা কমেডি সিরিজ হিসেবে রেকর্ডসংখ্যক মনোনয়ন।

হুলুর ‘অনলি মার্ডারস ইন দ্য বিল্ডিং’ ২১টি মনোনয়ন পেয়েছে, এইচবিও/ম্যাক্সের ‘ট্রু ডিটেকটিভ: নাইট কান্ট্রি’ ১৯টি, এবং নেটফ্লিক্সের ‘দ্য ক্রাউন’ ১৮টি মনোনয়ন পেয়ে সেরা পাঁচে স্থান পেয়েছে।

সেরা অভিনেতার মনোনয়নে আছেন ইদ্রিস এলবা (হইজ্যাক), ডোনাল্ড গ্লোভার (মিস্টার অ্যান্ড মিসেস স্মিথ), ওয়ালটন গগিন্স (ফলআউট), গ্যারি ওল্ডম্যান (স্লো হর্সেস), হিরোয়ুকি সানাদা (শোগুন), এবং ডমিনিক ওয়েস্ট (দ্য ক্রাউন)।

অন্যদিকে সেরা অভিনেত্রীর মনোনয়ন পেয়েছেন ক্রিস্টিন বারানস্কি (দ্য গিল্ডেড এজ), নিকোল বেহারি (দ্য মর্নিং শো), এলিজাবেথ ডেবিকি (দ্য ক্রাউন), গ্রেটা লি (দ্য মর্নিং শো), লেসলি ম্যানভিল (দ্য ক্রাউন), কারেন পিটম্যান (দ্য মর্নিং শো) এবং হল্যান্ড টেলর (দ্য মর্নিং শো)।

সেরা ড্রামা সিরিজের জন্য লড়বে ‘দ্য ক্রাউন’ (নেটফ্লিক্স), ‘ফলআউট’ (প্রাইম ভিডিও), ‘দ্য গিল্ডেড এজ’ (এইচবিও), ‘দ্য মর্নিং শো’ (অ্যাপল টিভি+), ‘মিস্টার অ্যান্ড মিসেস স্মিথ’ (প্রাইম ভিডিও), ‘শোগুন’ (এফএক্স), ‘স্লো হর্সেস’ (অ্যাপল টিভি+), এবং ‘থ্রি বডি প্রবলেম’ (নেটফ্লিক্স)।

এবারের নমিনেশনে নেটফ্লিক্স সর্বোচ্চ মনোনয়ন পেয়ে শীর্ষে রয়েছে। মোট ৩৫টি প্রোগ্রাম মিলিয়ে নেটফ্লিক্স পেয়েছে ১০৭টি মনোনয়ন, এফএক্স ৯৩টি, এইচবিও ৯১টি এবং অ্যাপল টিভি ৭২টি মনোনয়ন পেয়েছে।

বুধবার এল ক্যাপিটান থিয়েটারে একটি অনুষ্ঠানে টনি হেল, শেরিল লি রাল্ফ এবং টেলিভিশন একাডেমির চেয়ার ক্রিস অ্যাব্রেগো এবারের মনোনীতদের নাম ঘোষণা করেছেন। ৭৬তম এমি অ্যাওয়ার্ড ১৫ সেপ্টেম্বর লস অ্যাঞ্জেলেসের পিকক থিয়েটার থেকে সরাসরি সম্প্রচারিত হবে।


এমি অ্যাওয়ার্ড   মনোনয়ন   শোগুন  


মন্তব্য করুন


কালার ইনসাইড

কোটা আন্দোলন নিয়ে যে বার্তা দিলেন স্বস্তিকা

প্রকাশ: ০৪:৩৩ পিএম, ১৮ জুলাই, ২০২৪


Thumbnail

কোটা সংস্কারের দাবিতে রাজপথে নেমেছে শিক্ষার্থীরা। দেশজুড়ে এই আন্দোলন ছড়িয়ে পড়েছে। শিক্ষার্থীরা যেকোনো মূল্যেই কোটা সংস্কার চান এবং দাবি পূরণ না হওয়া পর্যন্ত রাজপথ ছাড়বেন না বলে জানিয়েছেন।

শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে যখন সারাদেশ উত্তাল, তখন শোবিজ তারকারাও একাত্মতা প্রকাশ করেছেন। সাধারণ জনগণের পাশাপাশি তারকারাও সরব এই ইস্যুতে। এবার কোটা আন্দোলন নিয়ে মুখ খুললেন ওপার বাংলার অভিনেত্রী স্বস্তিকা মুখার্জি। তিনি জানান, তার ভীষণ অস্থির লাগছে।

স্বস্তিকা নিজের ফেসবুক অ্যাকাউন্টে এক আবেগঘন পোস্টে লেখেন, "প্রায় এক মাস হলো আমি নিজের দেশে নেই। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের খবরের চ্যানেলে তৃতীয় বিশ্বের কোনো খবরই তেমন একটা চলে না। আর আমি খুব একটা ফোনের পোকা নই তাই এত খারাপ একটা খবর কানে আসতে দেরি হলো।"

বাংলাদেশের স্মৃতিচারণ করে তিনি লিখেন, "এই তো কয়েক মাস আগে বাংলাদেশে গিয়েছিলাম। খুব ইচ্ছে ছিল জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় যাওয়ার। চারুকলায় যাওয়ার সৌভাগ্য হয়েছিল, জীবনের একটা স্মরণীয় দিন হয়ে থাকবে। প্রতিবার আসি, ব্যস্ততায় যাওয়া হয় না, মা'ও খুব যেতে চাইতেন বাংলাদেশে, কিন্তু নিয়ে যাওয়া হয়নি। আজ একটি ভিডিও দেখলাম, গুলির ধোঁয়া। বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রছাত্রীরা আক্রান্ত। ছাত্র বয়স গেছে সেই কবে, তবে জাহাঙ্গীরনগর আর আমার যাদবপুর খুব কাছাকাছি। কাঠগোলাপের গাছগুলোও কেমন এক রকম। মেঘগুলোও এক রকম। আজ ওখানে বারুদের গন্ধ। এমন এক আপ্যায়নপ্রিয় জাতি দেখিনি, খাবারের নিমন্ত্রণ যেন শেষ হতেই চায় না। সারা রাস্তা জুড়ে ভাষার আল্পনা আর কোথায় দেখব? নয়নজুড়ানো দেওয়াল লেখা? এটি সম্ভবত মুক্তিযুদ্ধের শপথ নেওয়া একটি জাতির পক্ষেই সম্ভব।"

অভিনেত্রী জানান, "আজ ভীষণ অস্থির লাগছে। আমিও তো সন্তানের জননী। আশা করব বাংলাদেশ শান্ত হবে। অনেকটা দূরে আছি, এই প্রার্থনাটুকুই করতে পারি। অন্ধকারের উৎস হতে উৎসারিত আলো—সেই আমাদের আলো...আলো হোক...ভাল হোক সকলের।"

কোটা আন্দোলন   স্বস্তিকা মুখার্জি   অভিনেত্রী  


মন্তব্য করুন


কালার ইনসাইড

করজোড়ে মিনতি করছি, হানাহানি বন্ধ করুন : কবীর সুমন

প্রকাশ: ০৪:১৭ পিএম, ১৮ জুলাই, ২০২৪


Thumbnail

কলকাতার বরেণ্য সংগীতশিল্পী কবীর সুমন দেশের চলমান কোটা সংস্কার আন্দোলনে শিক্ষার্থীদের ওপর হামলার বিষয়ে মুখ খুলেছেন। তিনি আন্দোলনকারীদের ওপর সহিংসতা বন্ধের জন্য সব পক্ষকে আহ্বান জানিয়েছেন।

আজ বৃহস্পতিবার সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমের এক পোস্টে তিনি লিখেছেন, ‘সব পক্ষকে করজোড়ে মিনতি করছি, অনুগ্রহ করে হিংসা-হানাহানি বন্ধ করুন। ঢাকা সরকারকে অনুরোধ করছি- বাংলা ভাষার কসম, শান্তি রক্ষার চেষ্টা অব্যাহত রাখুন। ছাত্রবাহিনী যেন হিংসার আশ্রয় না নেন।’

পোস্টে কবীর সুমন আরও বলেন, ‘আমি ভারতের নাগরিক। বাংলাদেশ আমাদের প্রতিবেশী। তার বিষয়-আশয়ে নাক গলানোর অধিকার আমার নেই। কিন্তু বাংলাদেশের মানুষের ভালোবাসা আমি ভুলতে পারি না। কেনই বা ভুলব?’

ওপার বাংলার এই গায়ক বলেন, ‘ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছবি দেখছি। ছাত্রছাত্রীরা মিছিল করছেন। ব্যাকগ্রাউন্ডে শোনা যাচ্ছে কাজী নজরুল ইসলামের “কারার ঐ লৌহকপাট” গানটি। মনে হচ্ছে গানটি এডিট করে ভিডিওর সঙ্গে বসানো হয়েছে। সঠিক কাজই হয়েছে। বহুবার দেখেছি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রছাত্রীরা আমার গানের লাইন লিখেছেন দেওয়ালে। পশ্চিমবঙ্গে সে তুলনায় কিছুই দেখিনি। মনে মনে আমি বাংলাদেশেরও নাগরিক।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমার জীবনসায়াহ্ন কাটছে মাভাষায় খেয়াল রচনা করে, গেয়ে, শিখিয়ে। পশ্চিমবঙ্গের সরকার আমার বাংলা খেয়ালকে স্বীকৃতি দিয়েছেন, যদিও তাদের কিছু শিল্পী আমার এবং বাংলা খেয়াল নিয়ে বিদ্রূপ করেছেন।’

দীর্ঘ পোস্টে কবীর সুমন আরও লিখেছেন, ‘আমার জীবনের সেরা কাজ বাংলা খেয়াল বাংলাদেশে চর্চা করা। মরহুম আজাদ রহমান বেশ কিছু বাংলা খেয়াল রচনা করে গিয়েছেন। বাংলা ভাষা আর বাংলা খেয়ালের মাধ্যমে বাংলাদেশের সঙ্গে আমার ভালোবাসার বন্ধন। ঢাকায় গানের অনুষ্ঠান করতে গিয়ে যে সম্মান ও ভালোবাসা পেয়েছি, তা ভারতে ক’বার পেয়েছি?’

কোটা আন্দোলনে সহিংসতার প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশের বর্তমান অবস্থায় চুপ করে থাকতে পারি না। আমি জানি না ঠিক কী কারণে এমন হচ্ছে, কারা জড়িত। তবুও করজোড়ে মিনতি করছি: অনুগ্রহ করে হিংসা-হানাহানি বন্ধ করুন। ঢাকা সরকারকে অনুরোধ করছি: শান্তি রক্ষার চেষ্টা অব্যাহত রাখুন। ছাত্রবাহিনী যেন হিংসার আশ্রয় না নেন। আমি ঢাকায় যেতে পারছি না। পারলে যেতাম, রাস্তায় বসে সবাইকে শান্তির আহ্বান জানাতাম।’

শেষে একটি স্বরচিত কবিতা জুড়ে দিয়েছেন সুমন। কবিতাটি হলো- 

হানাহানি বন্ধ হোক।
বন্ধ হোক উল্টোপাল্টা কথা বলে দেওয়া।
বাঁচুক বাংলাদেশ।
বাঁচুন বাংলাদেশের সকলে।
জয় বাংলাদেশ
জয় মুক্তিযুদ্ধ
জয় অসংখ্য বাংলাদেশির শাহাদাত ও অপূরণীয় ক্ষতিস্বীকার
জয় বীরাঙ্গনারা
জয় বাংলা ভাষা!


কোটা আন্দোলন   কবীর সুমন   পোস্ট  


মন্তব্য করুন


কালার ইনসাইড

যারা ভাবছেন আন্দোলনটি কেবল একটি চাকরির জন্য, তাঁরা বিভ্রান্ত : ফারুকী

প্রকাশ: ১০:০৭ পিএম, ১৭ জুলাই, ২০২৪


Thumbnail

চলমান কোটা সংস্কার আন্দোলন নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বেশ কয়েকজন তারকা সক্রিয় রয়েছেন। অনেকেই শিক্ষার্থীদের প্রতি সমর্থন জানিয়ে পোস্ট করেছেন, কেউ কেউ আবার সহিংসতা নিয়েও মন্তব্য করেছেন। এবার কথা বলেছেন প্রখ্যাত নির্মাতা মোস্তফা সরয়ার ফারুকী।

আজ দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে তিনি কোটা সংস্কার আন্দোলনে গতকাল গুলিতে নিহত বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র আবু সাঈদের ছবি পোস্ট করে নিজের মত প্রকাশ করেছেন। তিনি লিখেছেন,

“যারা ভাবছেন আন্দোলনটি কেবল একটি চাকরির জন্য, তাঁরা বিভ্রান্ত। আন্দোলনের প্রতিটি স্লোগানে খেয়াল করলে বোঝা যাবে, এটি নাগরিকের সমমর্যাদার জন্য এবং নিজের দেশে তৃতীয় শ্রেণির নাগরিক হিসেবে না বাঁচার জন্য। এটি রাষ্ট্রক্ষমতায় থাকা ব্যক্তিদের মনে করিয়ে দেওয়ার জন্য যে দেশের মালিক জনগণ।”

ফারুকী আরও উল্লেখ করেন, “জনপ্রতিনিধিদের জবাবদিহি করার কথা এই আন্দোলন মনে করিয়ে দিচ্ছে। নির্বাচিত প্রতিনিধি বা সরকারি বেতনভুক্ত ব্যক্তিদের সবসময় পাবলিক সারভেন্ট হিসেবে ডাকা উচিত। এই আন্দোলন সেই পাবলিক সারভেন্টদের মনে করিয়ে দিচ্ছে যে, তাঁরা জনগণের কাছে জবাবদিহি করতে বাধ্য।”

মোস্তফা সরয়ার ফারুকী জানান, তিনি শারীরিকভাবে পুরোপুরি সুস্থ নন এবং সীমিতভাবে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহার করেন। কোটা সংস্কার আন্দোলন নিয়ে কিছুদিন আগে একটি পোস্ট দিয়ে পরে সেটি সরিয়ে ফেলেন। কেন সেই পোস্ট সরিয়েছিলেন, আজকের পোস্টে তার ব্যাখ্যাও দিয়েছেন তিনি। তিনি বলেন,

“একটি স্ট্যাটাস দিলে আমার মধ্যে উত্তেজনা সৃষ্টি হয়। পরে অন্য কিছু লেখার ইচ্ছা হয় এবং লিখতে থাকলে শারীরিক অবস্থার জন্য সেটা ভালো নয়। আমার শরীর সুস্থ করার জন্য যে লড়াই, সেটা দীর্ঘ। সেই লড়াই চালানোর অনুমতি নিশ্চয়ই পেতে পারি?”

কোটা আন্দোলন   ফারুকী   পোস্ট  


মন্তব্য করুন


বিজ্ঞাপন