ঢাকা, মঙ্গলবার, ০৪ আগস্ট ২০২০, ২০ শ্রাবণ ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

আ. লীগের প্রধান প্রতিপক্ষ কে?

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১৯ মে ২০১৮ শনিবার, ১০:০০ পিএম
আ. লীগের প্রধান প্রতিপক্ষ কে?

রাজনৈতিক ভাবে আওয়ামী লীগের প্রধান প্রতিপক্ষ বিএনপি। কিন্তু রাজনীতির মাঠে গত দশ বছরে বিএনপিকে কোণঠাসা করতে করতে আওয়ামী লীগ এখন আর বিএনপিকে শক্ত প্রতিপক্ষই মনে করেনা। বিএনপির নেতারাও স্বীকার করেন যে, আওয়ামী লীগ এখন বিএনপিকে পাত্তাই দেয় না। বিএনপি কোনোদিন স্বপ্নেও ভাবেনি যে, বেগম জিয়াকে এভাবে জেলে আটকে রাখা সম্ভব হবে। ২০১৪ তে বিএনপিকে বাদ দিয়ে নির্বাচন করে আওয়ামী লীগ পাঁচ বছর ক্ষমতায় থাকবে, এটাও ছিল দলটির নেতাদের কাছে অবিশ্বাস্য। এখন বিএনপি বিশ্বাস করতে শুরু করেছে যে, ২০১৮ র নির্বাচনও যদি আওয়ামী লীগ বিএনপিকে ছাড়া করে, তাহলেও কিছু যাবে আসবে না। তাই বিএনপি এখন আওয়ামী লীগের প্রধান প্রতিপক্ষ তো নয়ই শক্ত প্রতিপক্ষও নয়।

বিএনপি ছাড়া রাজনৈতিক অঙ্গনে আওয়ামী লিগের বিরুদ্ধে কথা বলার রাজনৈতিক দলের অভাব নেই। কিন্তু জাতীয় পার্টি এখন গৃহপালিত বিরোধী দল হিসেবেই বসবাস করছে। জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ মাঝে মধ্যে সরকারের যে সমালোচনা করেন, তা কৌতুক হিসেবে ভালোই জনপ্রিয়তা পায়। জামাত এখন রক্তশূন্য রাজনৈতিক দল। জামাত সন্ত্রাস, সহিংসতা করতে পারে, কিন্তু রাজনৈতিক প্রতিপক্ষ হিসেবে জামাত এখন অক্ষম। তাই রাজনীতিতে আওয়ামী লীগের অবস্থান এখন অপ্রতিরোধ্য। 

আওয়ামী লীগ রাজনীতির বাইরে সুশীল সমাজের সমালোচনার মুখোমুখি হয়। আওয়ামী লীগ যখনই ক্ষমতায় আসে, এখনই সুশীল সমাজ আওয়ামী লীগের সবচেয়ে বড় সমলোচক হয়ে উঠে। এখনো সুশীল সমাজের একটি অংশ আওয়ামী লীগের কঠোর সমলোচক। তবে, আওয়ামী লীগ গত ১০ বছরে সফল ভাবে সুশীল সমাজের মধ্যে এক বিভাজন এনেছে। এখন সুশীল সমাজের আগের গ্রহণযোগ্যতা নেই।

আওয়ামী লীগের এখন অন্যতম প্রতিপক্ষ বিবেচনা করা হয় গণমাধ্যমকে। রাজনীতি শূন্য দেশে গণমাধ্যমই একমাত্র সরকারের সমালোচনা করে। আওয়ামী লীগের সভাপতি এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দুই দিন আগে বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সম্মেলনে অনুযোগ করে বলেছিলেন ‘গণমাধ্যমের কাছ থেকে আমি তেমন সহযোগিতা পাইনি।’ তবে, একটু খোঁজ নিলেই দেখা যায়, দুটি পত্রিকা ছাড়া পুরো গণমাধ্যম সরকার বা আওয়ামী লীগের কট্টর সমলোচক নয়, প্রতিপক্ষও নয়। প্রধানমন্ত্রী নিজেও ডেইলি স্টার এবং প্রথম আলো পড়েন না বলে নিজেই ঘোষণা করেছেন। প্রথম আলো আর ডেইলি স্টার ছাড়া কোনো সংবাদপত্র বা টেলিভিশন সরকারের কট্টর সমলোচক বা প্রতিপক্ষ নয়। 

একটা সময় বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থাগুলোর সঙ্গে আওয়ামী লীগের সুসম্পর্ক ছিল। কিন্তু এখন অনেক বেসরকারি সংগঠনই আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধাচারণ করে। নোবেল বিজয়ী ড. মুহাম্মদ ইউনূসের নেতৃত্বাধীন ‘ইউনূস সেন্টার’ গোপনে আওয়ামী লীগের প্রতিপক্ষ হিসেবেই কাজ করে। ড. ইউনূস বিদেশে আওয়ামী লীগের অন্যতম সমালোচক। টিআইবি, সুশাসনের জন্য নাগরিক (সুজন), সিপিডির মতো সংগঠনগুলো সরকারের কঠোর সমালোচক। এই সমালোচনার পেছনে প্রথম আলো গ্রুপ এবং ড. ইউনূসের মদদ আছে বলেই অনেকে মনে করেন। এর সঙ্গে যুক্ত হয়েছেন ড. কামাল হোসেন।

মূলত: দুটি গণমাধ্যমে ড. ইউনুস কয়েকটি সিভিল সোসাইটি গ্রুপ এবং তার সঙ্গে কয়েকটি দাতাদেশ ঐক্যবদ্ধ হয়েই নির্বাচনের আগে আওয়ামী লীগ সরকারের প্রধান প্রতিপক্ষ হয়ে উঠতে পারে এমন ধারণা রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের।



Read in English- https://bit.ly/2IzfbeP

বাংলা ইনসাইডার

বিষয়: আ-লীগ