ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৪ আশ্বিন ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

‘ভারত বিএনপিকে বিশ্বাস করেনা, গুরুত্বও দেয় না’

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ২৬ মে ২০১৮ শনিবার, ০৬:০২ পিএম
‘ভারত বিএনপিকে বিশ্বাস করেনা, গুরুত্বও দেয় না’

শান্তিনিকেতনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির একান্ত বৈঠকের পর বিএনপিতে হতাশা নেমে এসেছে। বিএনপির নেতারা একযোগে ভারত সফর নিয়ে সমালোচনামূলক বক্তব্য দিলেও ভেতরে বলছে, ‘সব আশা শেষ হয়ে গেল। আওয়ামী লীগ আবার ক্ষমতায় আসবে। ভারত বিএনপির অংশগ্রহণ করা না করাকে গুরুত্ব দিচ্ছে না।’

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন কোনো রাখঢাক না রেখেই বলেছেন, ‘আবার ক্ষমতায় আসার জন্যই আওয়ামী লীগ নেতারা ভারত সফর করছে।’ তিনি মনে করেন, ‘জনগণের ইচ্ছাতে সরকার বদল হবে ভারতের ইচ্ছায় নয়।’ আজ এক অনুষ্ঠানে তিনি এই মন্তব্য করেন। কিন্তু প্রেসক্লাবের অনুষ্ঠান থেকে বেরিয়েই তিনি তাঁর এক ঘনিষ্ঠ একজন সংবাদকর্মীকে বলেন, ‘ভারতে সম্ভবত বিএনপির অংশগ্রহণ করা না করা নিয়ে আলোচনা হয়েছে। ড. খন্দকার মোশাররফ মনে করেন, আওয়ামী লীগ চায় না, আগামী নির্বাচনে বিএনপি অংশ নিক। বিএনপি ছাড়াই আগামী নির্বাচন করে আবার ক্ষমতায় আসতে চায় ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ।’ ঐ সংবাদকর্মীকে তিনি বলেছেন, ‘বিএনপি অংশগ্রহণ না করলে, এই নির্বাচন অংশগ্রহণমূলক হবে না। আমরা যখন বিভিন্ন কূটনীতিকদের সঙ্গে কথা বলেছি তখন তারাও একই মত পোষণ করেছেন। এখন ভারত যদি বিপরীত অবস্থান নেয় তাহলে সরকারের ওপর বিদেশি রাষ্ট্রদের চাপ দেওয়া কঠিন এবং অসম্ভব হয়ে পড়বে।’

শুধু ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন নয়, বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভীও আজ এক প্রেস ব্রিফিং এ বলেছেন, ‘সরকার ভারত তোষণ নীতি গ্রহণ করেছে।’ আজ সকালে বিএনপিতে মনোনয়ন প্রত্যাশী দুই নেতা রিজভীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে এলে তাদেরও তিনি নির্বাচনের ব্যাপারে নিরুৎসাহিত করেন। রিজভী তাঁদের বলেছেন, ‘নির্বাচন করে কি করবেন। আওয়ামী লীগকে আবার ক্ষমতায় আনতে চায় ভারত। আগামী নির্বাচন হবে ভারত প্রযোজিত, আওয়ামী লীগ পরিচালিত।’ রিজভী বলেছেন, ‘ একমাত্র আন্দোলন করেই সরকারকে ক্ষমতাচ্যুত করার পথ খোলা আছে। কিন্তু আন্দোলনের ইচ্ছা তো বিএনপির নেতাদের নেই।’

রিজভীর মতো বিএনপির অনেক নেতাই মনে করেন, ‘ভারতের এখনো প্রথম পছন্দ আওয়ামী লীগ। বিএনপি তার ভারত বিরোধী চরিত্রও হারিয়েছে, ভারতের আস্থাও হারিয়েছে।’ বিএনপির  একজন নেতা বলেছেন ‘ ভারত এখন বিএনপিকে বিশ্বাসও করেনা, ভয়ও পায়না। ফলে আমরা গুরুত্বহীন হয়ে পড়েছি।’

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ভারত সফরে যাবার আগ্রহ জানিয়েছিল, কিন্তু ভারতের পক্ষ থেকে এ ব্যাপারে   ইতিবাচক সাড়া পাওয়া যায়নি।

বাংলা ইনসাইডার/জেডএ

বিষয়: ভারত , বিএনপি