ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৩ ডিসেম্বর ২০১৮, ২৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

‘দুই নৌকায় পা দেবেন না’

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ২৮ মে ২০১৮ সোমবার, ০৬:০০ পিএম
‘দুই নৌকায় পা দেবেন না’

অধ্যাপক বদরুদ্দোজা চৌধুরী থেকে বিএনপি মহাসচিবকে দূরে থাকার নির্দেশ দিলেন ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক জিয়া। আজ বিকেলে বিএনপি মহাসচিবকে টেলিফোন করে তারেক জিয়া জানিয়েছেন, ‘বিএনপি করলে বি. চৌধুরীকে ভুলে যান। বেগম খালেদা জিয়াকে নেতা মানলে বি. চৌধুরীর সঙ্গে সম্পর্ক ত্যাগ করতে হবে।’ তিনি বলেছেন, ‘একসঙ্গে দুই নৌকায় পা দেওয়া যাবে না।’ বিএনপি মহাসচিব তারেক জিয়াকে বুঝিয়েছেন যে সরকারের বিরুদ্ধে তিনি সকল শক্তিকে একাট্টা করতে চান। এক্ষেত্রে অধ্যাপক বদরুদ্দোজা চৌধুরী গুরুত্বপূর্ণ।

মির্জা ফখরুল বিএনপি ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানকে বোঝাতে চেয়েছেন, নির্বাচনের আগে সকল রাজনৈতিক শক্তিকে ঐক্যবদ্ধ করা প্রয়োজন। আন্দোলন এবং নির্বাচন একসঙ্গে করা দরকার। বিএনপি মহাসচিব মনে করেন, বিএনপি যদি নির্বাচন বর্জনও করে তাহলে যেন সকলে মিলে করে। এমনকি তিনি জাতীয় পার্টিকেও সঙ্গে নিতে চান। মির্জা ফখরুল তারেককে জানিয়েছেন, জাতীয় পার্টির জি. এম. কাদেরের সঙ্গেও তাঁর এ নিয়ে কথা হয়েছে। কিন্তু বিএনপি ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান বলেছেন, ‘অধ্যাপক বি. চৌধুরীদের মাঠে নামিয়েছে সরকার। তাঁর মতে, এই যুক্তফ্রন্ট গঠন করা হয়েছে নির্বাচন উপলক্ষে। ২০১৪’র মতো যেন এক তরফা নির্বাচন না হয় সেজন্যই সরকারি পৃষ্ঠপোষকতায় যুক্তফ্রন্ট গঠন করা হয়েছে। তারেক জানিয়েছেন, এ ব্যাপারে তাঁর কাছে খবর আছে। তারেক নির্দেশ দিয়েছেন যে, যুক্তফ্রন্টের সঙ্গে কোনো সম্পর্ক রাখা যাবে না।

বিএনপির একাধিক সূত্র বলছে, মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর যুক্তফ্রন্টের সঙ্গে বিএনপির এবং অন্যান্য আরও রাজনৈতিক দলের একটি ঐক্যবদ্ধ প্ল্যাটফর্ম করতে চেয়েছিলেন। কিন্তু তারেক জিয়া মনে করছেন, এধরনের প্ল্যাটফর্ম হলে বিএনপির হাতে নেতৃত্ব থাকবে না। নেতৃত্ব চলে যাবে বদরুদ্দোজা চৌধুরীর হাতে। কারণ বেগম জিয়া এখন জেলে। অবশ্য বিএনপির অন্য একটি সূত্র বলছে, তারেক জিয়া বরাবরই অধ্যাপক বদরুদ্দোজা চৌধুরী বিরোধী। একারণেই তিনি তাঁর সঙ্গে জোট গঠনের পক্ষপাতিত্ব নন।

এছাড়াও বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান দলকে ভারত বিরোধী চরম অবস্থান গ্রহণের নির্দেশ দিয়েছেন। তারেক জিয়ার নির্দেশ অনুযায়ী, বিএনপি মহাসচিব আজ ভারতের বিরুদ্ধে প্রকাশ্য বক্তব্য দিয়েছেন। মির্জা ফখরুল বলেছেন সরকার দেশকে ভারতের অঙ্গরাজ্য বানাতে চায়। ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান কথা শুনে ভারত বিরোধী অবস্থান নিলেও তাঁর কথা মতো মির্জা ফখরুল কি পারবেন তাঁর রাজনৈতিক গুরু অধ্যাপক বদরুদ্দোজা চৌধুরীকে ছাড়তে নাকি, এর মাধ্যমেই শুরু হবে বিএনপির ভাঙ্গন প্রক্রিয়া? 


বাংলা ইনসাইডার/জেডএ