ঢাকা, শুক্রবার, ১৬ নভেম্বর ২০১৮, ২ অগ্রহায়ণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

শেখ হাসিনা কি পারবেন?

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১৩ জুন ২০১৮ বুধবার, ১০:০১ পিএম
শেখ হাসিনা কি পারবেন?

বিএনপি নেতৃবৃন্দের ভারত সফর, অধ্যাপক বদরুদ্দোজা চৌধুরী এবং ড. কামাল হোসেনদের তৎপরতা, মির্জা ফখরুলের লন্ডন সফর- এই তিন ঘটনায় কি আওয়ামী লীগ চিন্তিত, উদ্বিগ্ন? যদিও আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ‘এসব স্বাভাবিক রাজনৈতিক ঘটনা প্রবাহ। আওয়ামী লীগ এসব ঘটনায় কেন উদ্বিগ্ন হবে?’ ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ‘অন্যরা কী করছে তা দেখার সময় নেই। আমরা যদি ঐক্যবদ্ধ থাকি, জনগণকে যদি আমরা আমাদের উন্নয়নের বার্তা পৌঁছে দিতে পারি, তাহলে আমাদের বিজয় অনিবার্য।’ সেতুমন্ত্রী বলেন, ‘আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে আছেন শেখ হাসিনা, যিনি এই সময়ে বিশ্বের সবচেয়ে বিচক্ষণ নেতাদের একজন।’

ওবায়দুল কাদের যাই বলুক না কেন, ঈদের আগে আওয়ামী লীগের নির্বাচন প্রত্যাশীরা এলাকায় যাচ্ছেন একটু বাড়তি কিছুর জন্য। নেতারাও একটু চিন্তিত। নাম প্রকাশ না করার শর্তে, আওয়ামী লীগের একজন প্রেসিডিয়াম সদস্য বলেছেন, ‘অন্য কোনো ব্যাপারে নয়, বিএনপি নেতাদের ভারত সফরটা আমাদের ভাবিয়ে তুলেছে। নির্বাচনের আগে ভারতের মনোভাব একটি গুরুত্বপূর্ণ ইস্যু।’ শুধু এই শীর্ষ নেতাই নন, তৃণমূলের নেতৃত্বও ভারতের সঙ্গে বিএনপির বৈঠক রাজনীতিতে নতুন হিসেব তৈরি করেছে বলে মনে করছে। আওয়ামী লীগের মাঠ পর্যায়ের অধিকাংশ নেতাই মনে করতেন, বিএনপি আগামী নির্বাচনে অংশ নেবে না বা খণ্ডিত ভাবে অংশ নেবে। কিন্তু রাজনীতির সর্বশেষ ঘটনাবলী তাঁদের সেই ধারণা পাল্টে দিয়েছে। গ্রামে গঞ্জে ঈদের আমেজের সঙ্গে বিএনপির নির্বাচনে অংশ নেয়ার আমেজও পাওয়া যাচ্ছে। আর বিএনপি নির্বাচনে অংশ নিলেই, নির্বাচন হবে উত্তেজনাপূর্ণ। আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশীরাই বলছেন, ‘আমাদের কঠিন পরীক্ষার মধ্যে পড়তে হবে’। নির্বাচনে অংশ নিলে বিএনপি মরণ কামড় দেবে বলেই মনে করছেন একাধিক আওয়ামী লীগ নেতা। বিএনপির নেতারাও বলছেন, ‘এই নির্বাচন হবে বিএনপির জন্য অস্তিত্বের লড়াই। তাই তারা সর্বশক্তি প্রয়োগ করবে। দিল্লি থেকে ফেরা বিএনপির নেতা আবদুল আউয়াল মিন্টু বলেছেন, ‘আমরা শুধু চাইছি অবাধ, নিরপেক্ষ এবং অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন। এরকম একটি নির্বাচন যেন বাংলাদেশে হয় সেজন্য আমরা ভারতের সাহায্য চেয়েছি।’ ঐ নেতা বলেন, ‘ভারত সহযোগিতা না করলে ২০১৪ সালেই আওয়ামী লীগের পতন হতো।’

রাজনৈতিক অঙ্গনে এরকম গুঞ্জন প্রায়ই শোনা যায়। অবাধ নির্বাচন হলে আওয়ামী লীগের জন্য ক্ষমতায় ফিরে আসা কঠিন হবে। আওয়ামী লীগের অনেক নেতাই এরকম চায়ের আড্ডার ভবিষ্যৎবাণীর সঙ্গে সহমত পোষণ করলেও, তাঁরা মনে করেন আওয়ামী লীগের আছে আলাদা শক্তি। সেই শক্তির নাম শেখ হাসিনা। আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ডা. দীপুমনি মনে করেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জনপ্রিয়তার আর নেতৃত্বগুণেই আওয়ামী লীগ তৃতীয়বারের মতো ক্ষমতায় আসবে।’ অন্য একজন নেতা বলেন, ‘ভারত যাই করুক শেখ হাসিনার উপরই শেষ পর্যন্ত আস্থা রাখবে।’

আওয়ামী লীগের নেতাদের সঙ্গে কথা বলে স্পষ্ট  ধারণা পাওয়া যায়, তাঁরা শেখ হাসিনার দিকেই তাকিয়ে। তাঁর জনপ্রিয়তা এবং প্রজ্ঞাই আওয়ামী লীগের একমাত্র ভরসা। ভারতের সাম্প্রতিক মনোভব এবং রাজনৈতিক প্রতিপক্ষকে ভোট যুদ্ধে হারাতে আওয়ামী লীগের সবাই শেখ হাসিনার দিকে তাকিয়ে। শেখ হাসিনা কি পারবেন? ২০০৮ কিংবা ২০১৪’র মতো একক দক্ষতায় তৃতীয়বার আওয়ামী লীগকে ক্ষমতায় আনতে?

Read in English- https://bit.ly/2LKz8Aq

বাংলা ইনসাইডার/জেডএ

বিষয়: শেখ-হাসিনা