ঢাকা, সোমবার, ২২ এপ্রিল ২০১৯, ৯ বৈশাখ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

ফখরুলের ‘রাজনৈতিক অসুখ’?

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৫ জুলাই ২০১৮ বৃহস্পতিবার, ১০:০০ পিএম
ফখরুলের ‘রাজনৈতিক অসুখ’?

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর কি সত্যি অসুস্থ? নাকি রাজনৈতিক কৌশলগত কারণে আড়াল হবার জন্যই তিনি অসুস্থ হয়েছেন? তাঁর অসুস্থতা নিয়ে বিএনপিতে দিনভর নানা আলোচনার জন্ম হয়েছে। মাত্র একমাস আগে, বিএনপি মহাসচিব ব্যাংকক হাসপাতালে তাঁর স্বাস্থ্য পরীক্ষা করান। এরও দেড় মাস আগে তিনি ইউনাইটেড হাসপাতালে ভর্তি হয়ে এনজিওগ্রাম করিয়েছিলেন। এখন আবার নতুন করে তিনি ড. মোমিনুজ্জামানের অধীনে একই হাসপাতালে ভর্তি হলেন।ডা. মোমিনুজ্জামান একজন হৃদরোগ বিশেষজ্ঞ। একটি এনজিওগ্রামের পরপরই নতুন করে তাঁর অসুখের খবরে অনেকেই বিস্মিত। কারণ, তিনমাস আগে এনজিও গ্রামেই জানা গেছে তাঁর হার্টে কোন সমস্যা নেই। তাহলে কি তিনি রাজনৈতিক কারণে অসুস্থ?

জামাতের সঙ্গে সম্পর্কের টানাপড়েন চরম আকার ধারণ করেছে। নানা ইস্যুতে বিভক্ত বিএনপির অবস্থাও টালমাটাল। এর মধ্যে তিন সিটি নির্বাচন। জাতীয় নির্বাচন নিয়েও বিএনপির মধ্যে নানা রকম মেরুকরণ চলছে। আর এই সব সমস্যার চাপ এসে পরছে বিএনপি মহাসচিব

মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের উপর। জামাত প্রকাশ্যেই বলছে, তারা মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরকে মহাসচিব হিসেবে দেখতে চায় না। জামাত বলছে, মির্জা ফখরুল বিএনপির দায়িত্ব নেওয়ার পরই জামাতকে এড়িয়ে চলছেন। কিছুদিন আগে জামাতের চাপেই ২০ দলের সমন্বয়ক থেকে সরে যেতে হয়েছে বিএনপি মহাসচিবকে। সমন্বয়কের নতুন দায়িত্ব দেওয়া হয় নজরুল ইসলাম খানকে। একটি সূত্র বলছে, জামাত বলেছে, মির্জা ফখরুলকে সরিয়ে দিলেই তারা সিলেটে প্রার্থিতা প্রত্যাহারের বিষয়টি বিবেচনা করবে। জামাত মনে করে, মির্জা ফখরুল ভারত ঘেঁষা। দলের মধ্যেও ফখরুল বিরোধীদের চাপ বাড়ছে। বিএনপি মহাসচিব আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশগ্রহণের পক্ষে। যেকোনো পরিস্থিতিতে আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশগ্রহণ করতে চান তিনি। কিন্তু বিএনপির তৃণমূলের সিংহভাগই বেগম জিয়ার মুক্তি এবং নির্দলীয় নিরপেক্ষ তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবি আদায় ছাড়া নির্বাচনে যেতে রাজি নয়। এনিয়ে বিএনপিতে মতবিরোধ ক্রমশ প্রকাশ্য হচ্ছে। বিএনপির অধিকাংশ নেতাই মনে করেন, বেগম জিয়ার মুক্তির দাবিতে বিএনপি যে বড় ধরনের আন্দোলন গড়ে তুলতে পারেনি, তা মির্জা ফখরুলের ব্যর্থতা। এজন্য নানা অঙ্গসংগঠন তাঁর প্রতি অনাস্থা জানিয়ে আসছে। ঈদের আগে বিএনপি মহাসচিব গোপনে লন্ডন গিয়েছিলেন। সেখানে তারেক জিয়া তাকে তাকে তীব্র ভর্ৎসনা করেন। সংগঠন গোছানোর জন্য তাঁকে এক মাস সময় দিয়েছিলেন। একমাস সময় পেরিয়ে যাচ্ছে। বিএনপিতে দ্বন্দ্ব আরও বেড়েছে। এইসব নানামুখী চাপের কারণেই কি মানসিকভাবে ভেঙে পড়েছেন মির্জা ফখরুল? এসব চাপ সইতে না পেরেই কি তিনি অসুস্থ হয়ে পড়েছেন?

নাকি তাঁকে অসুস্থ সাজিয়ে অকার্যকর করা হলো। তাঁর অনুপস্থিতিতে বিএনপি-জামাতের সঙ্গে ফাটল ধরা সম্পর্কটা জোড়া লাগাবে? এইসব প্রশ্ন আর সন্দেহের উত্তর পাওয়া যাবে স্বল্প সময়ের মধ্যেই।

Read in English- https://bit.ly/2MLqRwo

বাংলা ইনসাইডার/জেডএ