ঢাকা, সোমবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮ , ৯ আশ্বিন ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

যুবলীগের রূপান্তর প্রক্রিয়া

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১০ জুলাই ২০১৮ মঙ্গলবার, ০২:০৫ পিএম
যুবলীগের রূপান্তর প্রক্রিয়া

গণভবনে গত শনিবার বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের বিশেষ বর্ধিত সভা উপলক্ষে ক্ষমতাসীন দলটির যুব সংগঠন বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ একটি বইমেলার আয়োজন করে। এ বইমেলায় পাঠক-ক্রেতার ব্যাপক সাড়া পাওয়া যায়। বাংলাদেশ তথা উপমহাদেশের প্রচলিত রাজনৈতিক সংস্কৃতির প্রেক্ষাপটে এ বইমেলার আয়োজন নিঃসন্দেহে একটি ব্যতিক্রমী উদ্যোগ। আর এ ধরনের উদ্যোগ যুবলীগ এবারই প্রথম নেয়নি। গত কয়েকবছর ধরেই সৃজনশীল, মননশীল বিভিন্ন কর্মকাণ্ডের জন্য প্রশংসিত হচ্ছে আওয়ামী যুবলীগ।

বাংলাদেশের জনগণের প্রবণতা হচ্ছে, এদেশের কোনো ছাত্রসংগঠন, যুব সংগঠনের নাম শুনলেই আমাদের গা ঘিনঘিন করে ওঠে। এই সংগঠনগুলোর সদস্যরা চাঁদাবাজি, টেন্ডারবাজি নিয়ে ব্যস্ত থাকে এমন একটা ধারণা প্রচলিত আছে আমাদের মধ্যে। তার ওপর কোনো যুব সংগঠন যদি ক্ষমতাসীন দলের হয় তাহলে সমালোচনা আরও বেশি হয়। হালুয়ারুটির ভাগ নিয়ে তাঁরা সর্বক্ষণ অপকর্মে লিপ্ত থাকে এটাই আমাদের বিশ্বাস।

কিন্তু গত তিন-চার বছর ধরে দেখা যাচ্ছে একটি ভিন্ন চিত্র। এই কয়েক বছরের বিভিন্ন কর্মকাণ্ড পর্যবেক্ষণ করলে দেখা যায়, যুবকদের সংগঠন বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ একটি সৃজনশীল ও যুক্তিবাদী সংগঠন হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেছে। যুবলীগ এ সময়টাতে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জীবনীর ওপর অ্যালবাম প্রকাশ করেছে, আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জীবনীর ওপর অ্যালবাম প্রকাশ করেছে, জনগণের ক্ষমতায়ন ও বিশ্ব শান্তির মডেল হিসেবে শেখ হাসিনার যে অর্জন সে বিষয়ের ওপরও বই প্রকাশ করেছে তাঁরা। যুবলীগ রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনার জীবনী গ্রন্থ বের করেছে যা একটি বিরাট ঘটনা। এসব কর্মকাণ্ডের মধ্য দিয়ে একটি মননশীল রাজনৈতিক সংগঠন হিসেবে ক্রমশ দৃশ্যমান হচ্ছে আওয়ামী যুবলীগ।

এক সময় প্রচলিত ছিল, ১৫ আগস্টের শোক দিবসের কর্মসূচি মানেই জনসভা করা কিংবা শোক মিছিল করা। কিন্তু যুবলীগ শোক দিবস উপলক্ষে ব্যতিক্রমী উদ্যোগ নিয়েছে। ১৫ আগস্টে তাঁরা মাসব্যাপী আলোকচিত প্রদর্শনী করে, এ বিষয়ে গ্রন্থের প্রকাশনা করে। এছাড়া যুবলীগ একুশে বইমেলায়ও স্টল নেয়, বই প্রকাশ করে। যুবলীগ এ পর্যন্ত শতাধিক বই প্রকাশ করেছে। শুধু বাংলাদেশ নয়, পুরো উপমহাদেশের কোনো যুব সংগঠনই এভাবে বই প্রকাশ বা মননশীলতার চর্চা করে থাকে এমন উদাহরণ দেখা যায় না।

গত তিন-চার বছরে ছাত্রলীগের বিরুদ্ধে কিছু অভিযোগ উঠতে দেখা গেছে কিন্তু যুবলীগের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজি, টেন্ডারবাজি কিংবা ছিনতাইয়ের কোনো অভিযোগ খুব একটা শোনা যায়নি। প্রকৃতপক্ষে যত চিন্তার চর্চা হয়, যত মননশীলতার চর্চা হয় ততই মানুষের মধ্যে আদিম প্রবণতাগুলো কমে যায়। আওয়ামী যুবলীগের মধ্যেও সে উদাহরণ পরিস্কার হয়ে উঠেছে।

এ মুহুর্তে যুবলীগের একটি রূপান্তর প্রক্রিয়া চলছে।  যুব সংগঠনকে দেখলে মারামারি, দাঙ্গা-হাঙ্গামার কথা মনে হবে, তাদের দেখলে সবাই ভয় পাবে - এই জায়গাটা থেকে বেরিয়ে এসে সৃজনশীল, মননশীল, যুক্তিবাদী সংগঠনে পরিণত হচ্ছে আওয়ামী যুবলীগ। একে বাংলাদেশের রাজনীতির নীরব একটি নতুন ধারা হিসেবে চিহ্নিত করা যায়। জ্বালাও-পোড়াও, জনসভা, মিছিল-মিটিংই যে কেবল রাজনীতি না, সৃজনশীলতার চর্চা, মননশীলতার বিকাশও রাজনৈতিক পট পরিবর্তনের হাতিয়ার হতে পারে সেটাই মোহাম্মদ ওমর ফারুকে চৌধুরীর নেতৃত্বে প্রমাণ করে যাচ্ছে যুবলীগ। ওমর ফারুক চৌধুরী যুবলীগের নেতৃত্বে আসার পরই সংগঠনটির কর্মকাণ্ডের ধরন বদলে যাচ্ছে। ক্রমাগত বিকাশ ঘটছে সংগঠনটির।

কিছুদিন আগে এই সংগঠনটি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ৬৯তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে ক্রোড়পত্র প্রকাশ করেছে। ক্রোড়পত্রটিতে আওয়ামী লীগের দিনপঞ্জি প্রকাশ করে তাঁরা। এই ক্রোড়পত্র থেকে আওয়ামী লীগের ইতিহাসের অনেক অজানা অধ্যায় উন্মোচিত হয়েছে। অনেকেই জানতো না বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সংগ্রাম ও ত্যাগের ইতিহাস। কিন্তু এই উদ্যোগের মাধ্যমে এই ইতিহাসকে জনগণের সামনে নিয়ে এসেছে যুবলীগ।

এসবই যুবলীগের রাজনীতির একটি উল্লেখযোগ্য বাঁক পরিবর্তন। আগে মানুষ জানত, যুবলীগ টেন্ডারবাজি, চাঁদাবাজি, ছিনতাইয়ের মতো কাজ করে। কিন্তু এই অভিযোগগুলো গত কয়েক বছর ধরে আস্তে আস্তে কমে যাচ্ছে।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান একবার বলেছিলেন,একটি সংগঠন যদি শিক্ষিত হয়, একটি সংগঠনের যদি আদর্শিক চেতনা উন্নত হয় তাহলে সংগঠনটির মধ্যে অপতৎপরতা কমে যায়। বর্তমানের যুবলীগ জাতির পিতার সেই কথারই প্রতিফলন ঘটাচ্ছে। জাতির পিতার আদর্শেরই বাস্তবায়ন করছে তাঁরা। এটাই যুবলীগের স্মরণীয় রূপান্তর প্রক্রিয়া।


বাংলা ইনসাইডার/এসএইচটি/জেডএ