ঢাকা, সোমবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২১, ৫ আশ্বিন ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

শোকের মাস যেন উৎসবে পরিণত না হয়

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ২২ জুলাই ২০১৮ রবিবার, ১০:০০ পিএম
শোকের মাস যেন উৎসবে পরিণত না হয় ফাইল ছবি

আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সভা আগামীকাল সোমবার অনুষ্ঠিত হবে। সন্ধ্যা ৬টায় গণভবনে অনুষ্ঠেয় ওই সভায় সভাপতিত্ব করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। পরদিন মঙ্গলবার (২৪ জুলাই) আওয়ামী লীগের সম্পাদকমণ্ডলীর সভা। দলীয় সভানেত্রীর ধানমন্ডি কার্যালয়ে অনুষ্ঠেয় এই সভায় সভাপতিত্ব করবেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। দুটি সভারই মূল আলোচ্য বিষয় একই, এক সপ্তাহ ব্যবধানে শুরু হতে যাওয়া শোকের মাস আগস্ট।

জানা গেছে, কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটি ও সম্পাদকমণ্ডলীর সভার মূল আলোচনার বিষয় হবে আগস্ট মাসে শোকের আবহ ধরে রাখা। গত কয়েক বছর আগস্ট মাসে শোকের আব থাকেনি বরং উৎসবে পরিণত হয়েছে। এটা বঙ্গবন্ধুর জন্যই এক ধরনের অসম্মানের। এমন আয়োজন বন্ধে আওয়ামী লীগ বদ্ধপরিকর।

প্রতিবছর আগস্ট মাস আসলেই আওয়ামী লীগ ও এর বিভিন্ন অঙ্গসংগঠন এমন ভাবে উদযাপন করে, যেখানে শোকের মাসে উৎসবের আবহ তৈরি হয়। নানা অঙ্গসংগঠন উচ্চ শব্দে মাইক্রোফোন ব্যবহার করে, কাঙালি ভোজের ব্যবস্থা করে। এসবের ফলে শোক আর শোক থাকে না। শোকের ভাবগাম্ভীর্য নষ্ট হয়ে যায়। শোক পরিণত হয় উৎসবে। এই উদযাপন বঙ্গবন্ধু প্রতি শ্রদ্ধা জানানোর বদলে অবমাননা করা হয়। আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর থেকে এমন উদযাপন যেন ক্রমাগত বেড়েছে।

এছাড়া শোকের মাসে রাজধানীসহ সারা বাংলাদেশে নানা ধরনের ব্যানার-ফেস্টুন চোখে পড়ে। এসব ব্যানার-ফেস্টুনে বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রীর ছবি এমন ভাবে ছাপানো হয়, যা সাধারণ মানুষের চোখে পড়ে না। কিন্তু নিজেদের ছবি বিশাল করে ছাপানো হয়। এমন ব্যানার-ফেস্টুনে শোক দিবসের বদলে আত্মপ্রচারণাই বেশি।

এবার শোকের মাস এমন একটা সময়ে, যখন নির্বাচন আর মাত্র কয়েক মাস বাকি। সেজন্য শোকের মাসে এবার আয়োজনও বেশি হবে। আর এই আয়োজনে লাগাম টেনে ধরতেই আওয়ামী লীগের পরপর দুটি শীর্ষ পর্যায়ের সভা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। সভা দুটিতে শোক দিবসের অনিয়ন্ত্রিত আয়োজনের লাগাম টেনে ধরতে কঠোর নির্দেশনা দেওয়া হবে। সভাগুলো থেকে নেতাকর্মীদের মূলত তিনটি নির্দেশনা দেওয়া হবে বলে জানা গেছে।

প্রথম নির্দেশনা হলো, আগস্ট মাস উপলক্ষে অনুষ্ঠান আয়োজনের নামে জনগণের কাছ থেকে কোনো চাঁদাবাজি করা যাবে না। চাঁদাবাজির কারণে নির্বাচনের এই বছরে দলের ইমেজ কোনো ভাবে নষ্ট হোক-তা চায় না আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতৃত্ব।

দ্বিতীয় নির্দেশনা হলো, যত্রতত্র ব্যানার-ফেস্টুন লাগানো যাবে না। এগুলো লাগানো সীমাবদ্ধ থাকবে। আর ব্যানার-ফেস্টুন তৈরি করার পর তা কেন্দ্রীয় কমিটি ও আওয়ামী লীগের স্থানীয় কমিটির অনুমতি সাপেক্ষে নির্দিষ্ট স্থানে লাগাতে হবে। এসব ব্যানার-ফেস্টুনে যেন শোকের আবহ থাকে, কোনো প্রকার আত্মপ্রচারণা যেন না থাকে সেটি নিশ্চিত করতে হবে। 

প্রতিবছর একই দিনে বিভিন্ন সংগঠন বিভিন্ন অনুষ্ঠান করে, যেখানে সমন্বয়হীনতা দেখা যায়। তাই তৃতীয়ত নির্দেশনাটি হলো, যে সংগঠন যে অনুষ্ঠানই করুক না কেন তা কেন্দ্রীয় কমিটির অনুমোদন সাপেক্ষে, স্থানীয় হলে স্থানীয় কমিটির অনুমোদন সাপেক্ষে, জেলা হলে জেলা কমিটির অনুমোদন সাপেক্ষে করতে হবে। যাতে অনুষ্ঠান, সভা-সমাবেশ, কর্মসূচির মধ্যে সমন্বয় থাকে। এর পাশাপাশি মাসব্যাপী কেন্দ্রীয় কমিটির যে কর্মসূচি তারও অনুমোদন হবে সভা দুটিতে।

জানা গেছে, এবার শোকের মাস যেন আগের বছরগুলোর মতো উৎসবে পরিণত না হয়, সেজন্য কঠোর নজরদারি রাখবে আওয়ামী লীগ।


বাংলা ইনসাইডার/বিপি/জেডএ