ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৭ জুন ২০২১, ৩ আষাঢ় ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

‘শেখ হাসিনা না থাকলে যুদ্ধাপরাধীদের বিচারই হতো না’

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ২৪ জুলাই ২০১৮ মঙ্গলবার, ০৮:৩৪ পিএম
‘শেখ হাসিনা না থাকলে যুদ্ধাপরাধীদের বিচারই হতো না’

বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির (সিপিবি) সভাপতি মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম বলেছেন, অনেক ত্রুটি-বিচ্যুতি সত্ত্বেও আওয়ামী লীগই হলো মুক্তিযুদ্ধের চেতনার ধারক ও বাহক। আওয়ামী লীগ না থাকলে বাংলাদেশে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা সুরক্ষিত হতো না। বাংলাদেশে প্রতিষ্ঠিত হতো একটি পাকিস্তানি ধারা।

আজ মঙ্গলবার সকালে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের সঙ্গে সিপিবির সভাপতি মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম ও সাধারণ সম্পাদক শাহ আলমের বৈঠক হয়। বৈঠক শেষে মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম বাংলা ইনসাইডারকে একথা বলেন।

মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম বলেছেন, আওয়ামী লীগ ও সিপিবি দীর্ঘদিনের পরীক্ষিত বন্ধু। আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের সঙ্গে বৈঠকে দুই দলের বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলোচনা হয়েছে। আমাদের মধ্যে অনেক মতপার্থক্য থাকতে পারে। কিন্তু মুক্তিযুদ্ধের চেতনা এবং স্বাধীনতার পক্ষে আমরা ঐক্যবদ্ধ।

সিপিবি সভাপতি বলেন, পঁচাত্তরের ১৫ আগস্ট জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে হত্যার পর যে ধারার সূচনা হয়েছিল, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বেই সে ধারা রোহিত করে বাংলাদেশে মুক্তিযুদ্ধের চেতনার ধারা প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। অনেক সমালোচনার পরও একথা স্বীকার করতেই হবে, শেখ হাসিনা ছিলেন বলেই বাংলাদেশে যুদ্ধাপরাধীদের বিচার হয়েছে। যুদ্ধাপরাধীদের বিচার বাংলাদেশে মুক্তিযুদ্ধের পক্ষে একটি মাইলফলক। আওয়ামী লীগের আমরা যতই সমালোচনা করি না কেন, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ ছাড়া মুক্তিযুদ্ধের চেতনা এবং স্বাধীনতার পক্ষের শক্তিকে সুরক্ষিত করা সম্ভব নয়।

মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম বলেন, পঁচাত্তরের ১৫ আগস্টের পর শুধু আওয়ামী লীগই জাতির পিতার হত্যার প্রতিবাদ করেনি, সিপিবিও করেছে। স্বাধীনতার জন্য আওয়ামী লীগ যেমন রক্ত দিয়েছে, তেমনি সিপিবিও রক্ত দিয়েছে। আমাদের সম্পর্ক রক্তের বন্ধনে বাঁধা। তাই সাময়িক ভাবে আমাদের দূরত্ব হতে পারে। কিন্তু এই সম্পর্ক কখনো ভাঙার নয়।

বাংলাইনসাইডার/জেডএ