ঢাকা, মঙ্গলবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২০, ৭ আশ্বিন ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

সংলাপ চলছে

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ২৭ জুলাই ২০১৮ শুক্রবার, ০৮:০০ পিএম
সংলাপ চলছে

বিএনপিকে একঘরে করার কৌশলে এগুচ্ছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ। সিপিবির সঙ্গে বৈঠকের পর বৃহস্পতিবার আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বৈঠক করেছেন কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের নেতা বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী এবং সাবেক বিএনপি নেতা ব্যারিস্টার নাজমুল হুদার সঙ্গে। আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক স্পষ্ট করেই বলেছেন, ‘মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী সকল রাজনৈতিক দলের সঙ্গে আলোচনা ও সংলাপে আগ্রহী আওয়ামী লীগ।‘ বাংলা ইনসাইডারের সঙ্গে আলাপে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘আরও রাজনৈতিক দলের সঙ্গে শীগগিরই আওয়ামী লীগ আলোচনায় বসবে।‘ 

আওয়ামী লীগের একটি সূত্র বলছে, চলতি সপ্তাহেই আ.স.ম. আবদুর রবের নেতৃত্বাধীন জেএসডি এবং কর্ণেল(অবঃ) অলি আহমেদের নেতৃত্বাধীন এলডিপির সঙ্গে আলোচনায় বসতে পারে ক্ষমতাসীন দলটি। নির্বাচনের আগে বাম প্রগতিশীল দলগুলোকে নির্বাচনের মাঠে নিয়ে আসার জন্য আওয়ামী লীগ কাজ করছে। এতে শুধু আওয়ামী লীগের সধারণ সম্পাদক একা নন, তোফায়েল আহমেদ, আমীর হোসেন আমু, মোহাম্মদ নাসিমও বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের সঙ্গে যোগাযোগ করছেন। আওয়ামী লীগের একজন নেতা জানিয়েছেন, দলের সভাপতি শেখ হাসিনা সিনিয়র নেতাদের বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের সঙ্গে সংলাপ শুরু করার নির্দেশ দিয়েছেন। সে অনুযায়ী নেতারা কাজ শুরু করেছেন। প্রকাশ্যে বাম এবং প্রগতিশীল দল গুলোর সঙ্গে সংলাপ করলেও, আওয়ামী লীগ গোপনে দক্ষিণ পন্থী, ইসলাম পছন্দ দল গুলোর সাথেও সম্পর্ক বাড়িয়েছে। আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক ডঃ হাছান মাহমুদকে দেয়া হয়েছে হেফাজতকে নিয়ন্ত্রণে রাখার দায়িত্ব। গাজীপুর এবং খুলনার হেফাজত নিষ্ক্রিয় ছিল। বিএনপি অভিযোগ করেছে, আওয়ামী লীগের মদদের কারণেই সিলেটে জামাত আলাদা প্রার্থী দিয়েছে। একই কারণে রাজশাহীতে জামাত বিএনপি থেকে দূরে। সরকারের একজন প্রভাবশালী নেতা ইসলামী শাসনতন্ত্র আন্দোলনের সঙ্গে যোগাযোগ রাখছেন। এর ফলে ইসলামী শাসনতন্ত্র আন্দোলন আগামী নির্বাচনে প্রার্থী চূড়ান্ত করার কাজ শুরু করেছে। আওয়ামী  লীগের একজন সিনিয়র নেতা বলেছেন, ‘আমরা আগামী নির্বাচন সকল দলকে নিয়ে করতে চাই। এজন্য সকল রাজনৈতিক দলের সঙ্গেই আমরা প্রয়োজনে কথা বলবো। একটি সূত্র বলছে, প্রধানমন্ত্রীর একজন উপদেষ্টা বিএনপির সঙ্গেও নিয়মিত কথাবার্তা বলছেন। বিএনপির ১০ নেতা প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করার আগ্রহ প্রকাশ করেছেন। কিন্ত আওয়ামী লীগ এসব আলোচনায় প্রধানমন্ত্রীকে সম্পৃক্ত না করার নীতি গ্রহণ করেছে। একাধিক সূত্র বলছে, ক্যান্টনমেন্টে বিএনপির সাবেক নেতার বাসায় প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টার সঙ্গে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের দু’দফা বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে। শেষ পর্যন্ত বিএনপির পুরোটা না এলেও, একটি বড় অংশ যে নির্বাচনে অংশ নেবে, সে ব্যাপারে আওয়ামী লীগ নিশ্চিন্ত।

রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলছেন, প্রকাশ্যে কেউ কথা না বললেও পর্দার আড়ালে আওয়ামী লীগ সংলাপ প্রক্রিয়া বেশ জোরেশোরেই শুরু করেছে। সংলাপের মুল লক্ষ্যই হলো সব দলকে নির্বাচনে আনা।




বাংলা ইনসাইডার/এমআরএইচ