ঢাকা, রোববার, ২০ জুন ২০২১, ৬ আষাঢ় ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

নাকে তেল দিয়ে ঘুমাচ্ছেন শিক্ষামন্ত্রী?

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৩ আগস্ট ২০১৮ শুক্রবার, ০৮:০০ পিএম
নাকে তেল দিয়ে ঘুমাচ্ছেন শিক্ষামন্ত্রী?

উত্তরায় বাসচাপায় নিহত দুই শিক্ষার্থী। উত্তাল দেশের সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। চারদিন ধরে বন্ধ ক্লাস এবং শিক্ষা কার্যক্রম। প্রধানমন্ত্রী শিক্ষার্থীদের ঘরে ফেরাতে সব দাবী মেনে নিলেন। নিহত দুই শিক্ষার্থী পরিবারকে ডেকে জানালেন সমবেদনা। তাঁদের দিলেন আর্থিক অনুদান। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী দিনভর শিক্ষার্থীদের দাবী দাওয়া মেনে নেয়ার জন্য কাজ করছেন। সড়ক যোগাযোগ এবং সেতুমন্ত্রী শিক্ষার্থীদের আশ্বস্ত করছেন। বসে নেই আইনমন্ত্রীও। এডভোকেট আনিসুল হকও শিক্ষার্থীদের জানালেন নতুন আইনের কথা। তিনি এটাও বলেছেন, এই আইন পাশ হলেই শিক্ষার্থীদের সব দাবি পূরণ হবে। শুধু নির্বাক একজন শিক্ষামন্ত্রী। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের আওতায় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোকে ঘিরেই উত্তপ্ত দেশ। শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ সবসময়ই বলেন, তিনি নাকি শিক্ষার্থীদের অভিভাবক। ঘরোয়া আলাপচারিতায় তিনি বলেন, শিক্ষার্থীদের মাঝে গেলেই তিনি সবচেয়ে প্রশান্তি পান। অথচ ৫দিনে শিক্ষার্থীদের রাজপথ দখলের ঘটনায় তিনি দর্শক। তিনি যেন মুখে কুলুপ এটেছেন। আওয়ামী লীগের মাঠ পর্যায়ের নেতারা বলেন ‘শিক্ষামন্ত্রী নাকে তেল দিয়ে ঘুমাচ্ছেন।’ শুধু শিক্ষামন্ত্রী একা কেন? বাংলাদেশে শিক্ষার দেখভাল করার জন্য দুটি মন্ত্রনালয়ে আড়াইজন মন্ত্রী। শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ। প্রাথমিক ও গণশিক্ষা নামে রয়েছে আলাদা একটি মন্ত্রণালয়। যে মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বে আছে দেশের তাবত প্রাথমিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো। এই মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী জনাব মোস্তাফিজুর রহমান। তিনি তো প্রায় নিখোঁজ। গত এক সপ্তাহে তিনি মুখে কুলুপ এঁটে বসে আছেন। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অধীনে একটি বিভাগ আছে, যার নাম কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগ। এই বিভাগেও একজন আধামন্ত্রী রয়েছেন। তার নাম কাজী কেরামত আলী। তিনিও পর্দার আড়ালে।

প্রশ্ন উঠেছে, বর্তমান পরিস্থিতি মোকাবেলায় শিক্ষামন্ত্রণালয়ের কি কোন ভূমিকা নেই? শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ কি তাঁর সন্তানতুল্য শিক্ষার্থীদের ক্লাসরুমে ফিরিয়ে আনার জন্য একবার আহবান জানাতে পারতেন না? শিক্ষামন্ত্রী কি নিহত দুই শিক্ষার্থীর বাসায় যেতে পারতেন না? শিক্ষামন্ত্রী কি সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের  শিক্ষকদের অনুরোধ জানিয়ে চিঠি দিতে পারতেন না? তিনি কি শিক্ষার্থী অভিবাবকদের নিয়ে একটা সমাবেশ ডাকতে পারতেন না?

শিক্ষামন্ত্রণালয়ের কাজ কি? শুধু এমপিও ভুক্তির নামে লুটপাট আর নিয়োগ বদলি বাণিজ্য? বছরের শুরুতে ভুলে ভরা পাঠ্যপুস্তক শিক্ষার্থীদের হাতে তুলে দিয়ে আত্মপ্রচারণার উৎসব? নাকি জিপিএ ৫ বিতরণ?

শিক্ষামন্ত্রণালয়ের ভূমিকা নিয়ে গত ৫দিনে সারাদেশে নানা আলোচনা। সবার প্রশ্ন, এই ঘুম ভাঙ্গবে কবে?




বাংলা ইনসাইডার/এমআরএইচ