ঢাকা, সোমবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২১, ৫ আশ্বিন ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

কেন বামপন্থীদের এই বিভ্রান্তি?

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৬ আগস্ট ২০১৮ সোমবার, ১২:০৩ পিএম
কেন বামপন্থীদের এই বিভ্রান্তি?

বাংলাদেশের রাজনীতিতে দুটি অন্যতম ধারা-একটি বামপন্থী রাজনৈতিক ধারা অপরটি ডানপন্থী ধারা। মূল রাজনৈতিক দলগুলোর পাশাপাশি ছাত্র সংগঠনগুলোও একই ধারায় বিভক্ত। বাম ঘরানার প্রগতিশীল ছাত্র সংগঠনের মধ্যে আছে, ছাত্র ইউনিয়ন, ছাত্র-মৈত্রী, সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্ট, ছাত্র ফেডারেশন সহ অন্যান্য বামপন্থী ছাত্র সংগঠন। অন্যদিকে ডানপন্থী ছাত্র সংগঠনগুলোর মধ্যে আছে ইসলামি ছাত্র শিবির, ইসলামী ছাত্রসেনা, ইসলামী শাসনতন্ত্র ছাত্র আন্দোলন, ইসলামী ছাত্র মজলিশ।

বাংলাদেশের ছাত্র রাজনীতির ইতিহাসের দিকে তাকালে দেখা যায়, বামপন্থী ও ডানপন্থী ছাত্র সংগঠনের মধ্যে চিন্তা-চেতনা ও আদর্শের দিক থেকে সম্পূর্ণ বিপরীতে মেরুতে অবস্থান। তেল-আর জল যেমন একসঙ্গে মেশেনা তেমনি ডানপন্থী ও বামপন্থী ধারা কোনো সময় একসঙ্গে হয় না। বাম ও ডান একে অপরের সঙ্গে সাপ-নেউলের সম্পর্ক বলেও ভুল হবে না।

অতি সম্প্রতি কোটা আন্দোলন চলাকালে বামপন্থী ও ডানপন্থী ছাত্র সংগঠনের নেতা-কর্মীদের দেখা যায় একসঙ্গে কাজ করতে। কোটা সংস্কার আন্দোলনে বিভিন্ন কর্মসূচিতে একপাশে ছাত্র-ইউনিয়ন, সমাজতান্ত্রিক ছাত্র-ফ্রন্ট আরেক পাশে ইসলামী ছাত্রশিবিরকে দেখা যায়। ছাত্র শিবির পরিচালিত বাঁশের কেল্লা থেকে যে ফেসবুক পোস্ট শেয়ার করা হয়, সেই একই পোস্ট সাবেক নেত্রী লাকি আক্তারসহ ছাত্র ইউনিয়নন ও ছাত্রফ্রন্টের নেতা কর্মীরদেরকে নিজেদের ফেসবুকে শেয়ার করতে দেখা যায়। নিরাপদ সড়কের দাবিতে বর্তমান সময়ে চলা শিক্ষার্থীদের আন্দোলনেও প্রায় একই চিত্র লক্ষ্য করা যাচ্ছে। এই দুই আন্দোলনে এক কাতারে মিলে গিয়েছে দুই মেরুর দুই ছাত্র সংগঠন।

বাংলাদেশ ছাত্র-ইউনিয়নের মতো এমন একটা পুরনো ও ঐতিহ্যবাহী সংগঠন যারা সবসময় প্রগতিশীল চিন্তা ভাবনার সাথে জড়িত। তাঁরা এই আন্দোলনে জড়িত হওয়ার আগে একটিবারের জন্যও কি ভাবেনি, যে আন্দোলনের সঙ্গে শিবির জড়িত সেইখানে অন্য কোন উদ্দেশ্য আছে। শিবির এই দুই আন্দোলনে নানা ধরণের গুজব ও উস্কানি দিয়েছে এবং এখনও দিয়ে যাচ্ছে। এই দুই আন্দোলনে দেখা যায় চরম বামপন্থী ও চরম ডানপন্থী এক কাতারে মিশে যেতে।

জামায়তের রাজনীতি নিষিদ্ধ করা ও যুদ্ধাপরাধের দায়ে জামায়াতের নেতাদের বিচার করার কারণে তাঁদের মধ্যে যে একটা ক্ষোভ আছে তা স্পষ্ট। তাঁরা যেকোন ইস্যুকে কাজে লাগিয়ে একটা বিশৃঙ্খলা তৈরি করতে চাইবে, নিজেদের অস্তিত্ব বাঁচিয়ে রাখার জন্য এটাই স্বাভাবিক। তবে ১৯৭১ সালে ন্যাপ-কমিউনিস্ট-ছাত্র ইউনিয়নের যৌথ গেরিলা বাহিনীর হয়ে যুদ্ধ করা একটি সংগঠন বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়ন কিভাবে অন্ধভাবে সেই আন্দোলনকে সমর্থন করে এবং যোগ দেয় তা বোধগম্য নয়। ছাত্র ইউনিয়নসহ অন্যান্য বামপন্থী ছাত্র সংগঠন ও বামপন্থী দলগুলোর বর্তমান এমন কর্ম-কান্ড দেখে রাজনীতি সংশ্লিষ্ট কেউ কেউ আবার প্রশ্ন করছেন কেন, কি কারণে তাঁদের এই বিভ্রান্তি?  

উল্লেখ্য, বামপন্থীদের রাজনীতি সবসময়ই আদর্শ নির্ভর রাজনীতি ছিল। তবে সম্প্রতি কোনো ইস্যুতে মাঠে নামতে দেখা যায় নাই বামপন্থীদের। যেমন, তেল গ্যাসের আন্দোলন, রামপালে বিদ্যুৎ কেন্দ্র প্রতিষ্ঠার কোন প্রতিবাদ, কওমি মাদ্রাসার স্বীকৃতি, পাঠ্যপুস্তকে ইসলামিকরণ, সাংস্কৃতিক আগ্রাসন ইত্যাদি কোন ইস্যুতে রাজপথে নামতে দেখা যায় নাই বামপন্থীদের। 

বাংলা ইনসাইডার/আরকে