ঢাকা, রোববার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮ , ৮ আশ্বিন ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ড: যারা সেদিন প্রতিবাদ করেছিল

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১৪ আগস্ট ২০১৮ মঙ্গলবার, ১০:০০ পিএম
বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ড: যারা সেদিন প্রতিবাদ করেছিল

হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। বঙ্গবন্ধু একজন জনদরদী ও দেশপ্রেমিক রাষ্ট্রনায়ক ছিলেন যাকে নেতা হিসেবে পাওয়াকে যে কোনো জাতিই পরম সৌভাগ্য হিসেবে বিবেচনা করবে। কিন্তু বাঙালি যেমন বীরের জাতি, তেমনই বেইমানের জাতি। এই কারণেই বাংলাদেশের স্বাধীনতার অবিসংবাদিত নায়ককে বরণ করতে হয় স্বদেশীদের হাতে মৃত্যু। ’৭৫ এর ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যা করে সেনবাহিনীর একদল সদস্য। এই অপরাধ আরও ডালপালা বিস্তার করে যখন বঙ্গবন্ধুর ঘনিষ্ঠ কয়েকজন সহচর পরবর্তীতে বঙ্গবন্ধুর খুনিদের সঙ্গে হাত মেলায়। এসব ঘটনা পরিক্রমার দিকে লক্ষ্য রাখলে মনে হতে পারে ’৭৫ এর সেই অন্ধকার সময়ে বঙ্গবন্ধুর হত্যাকাণ্ডে দুঃখিত হওয়ার মতো, বঙ্গবন্ধুর হত্যাকাণ্ডের প্রতিবাদ করার মতো একটি মানুষও বাংলাদেশে ছিলেন না। এই বিষয়টি আরও জোরালো হয় বঙ্গবন্ধু হতাকাণ্ডের পর দীর্ঘ দুই দশক ধরে বাংলাদেশের স্বাধীনতা বিরোধীরা যখন এমন তথ্য সজ্ঞানে, উদ্দেশ্য প্রণোদিত ভাবে প্রচার করতে থাকে। স্বাধীনতা বিরোধীদের জাতির পিতার মৃত্যুতে কারও কোনো প্রতিক্রিয়া হয়নি এমন তথ্য প্রচারের মূল উদ্দেশ্য ছিল বঙ্গবন্ধুর মৃত্যুর সময় বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশের মানুষের প্রচণ্ড অজনপ্রিয় ছিলেন এমন কথা প্রতিষ্ঠিত করা। কিন্তু কালের স্রোতে এসব অপপ্রচার ধুলোয় মিলিয়ে গেছে। প্রমাণিত হয়েছে বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের প্রতিবাদ কেউ করেনি, এমন দাবি সর্বৈব মিথ্যা। সেই গুমোট, অন্ধকার সময়েও সামরিক শাসকদের রক্তচক্ষু উপেক্ষা করে দেশপ্রেমিক, মুজিব প্রেমী মানুষ ঠিকই এই ঘৃণ্য হত্যাকাণ্ডের প্রতিবাদ করেছিল।

বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের প্রতিবাদ করেছেন অনেক মানুষ যাদেরকে জেল-জুলুম সহ্য করতে হয়েছে অথবা বরণ করে নিতে হয়েছে মৃত্যুকে। বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের সেই আশাহীন রাতেই প্রতিরোধ করার চেষ্টা করেছিলেন বিগ্রেডিয়ার জামিল উদ্দিন আহমেদ, কিন্তু সফল হতে পারেননি। প্রিয় রাষ্ট্রনায়ককে বাঁচাতে গিয়ে তাঁর মতোই নিহত হতে হয় ব্রিগেডিয়ার জামিলকে। ব্রিগেডিয়ার জামিল আগে থেকেই বঙ্গবন্ধুর বিশ্বস্ত ছিলেন। এই কারণেই ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট ভোররাত তিনটা কিংবা সাড়ে তিনটার দিকে ব্রিগেডিয়ার জামিলকে ফোন করেন বঙ্গবন্ধু। বঙ্গবন্ধুর ফোন পেয়েই ধানমণ্ডি ৩২ এর বাড়ির দিকে ছুটে যান তিনি। যাওয়ার আগে সেনাবাহিনীর প্রধান সফিউল্লাহ, পুলিশ সুপার ও রক্ষীবাহিনীর প্রধান তোফায়েল আহমেদকেও ফোন করেন।। কিন্তু বঙ্গবন্ধুর বাড়ির পর্যন্ত পৌঁছাতে পারেননি তিনি। পথিমধ্যেই গাড়িতে থাকা অবস্থায় পাঁচ-ছয়জন অস্ত্রধারী সেনা সদস্য গুলি করে হত্যা করেন ব্রিগেডিয়ার জামিলকে।

বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ড পরবর্তী সময়ে আরেক বীরের নাম বীর উত্তম কাদের সিদ্দিকী। জাতির পিতার মৃত্যু মেনে নিতে পারেননি তিনি। তাই বঙ্গবন্ধু হত্যার পর সশস্ত্র প্রতিরোধ যুদ্ধ শুরু করেন বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী। ১৭ হাজার মুজিব ভক্তকে সঙ্গে নিয়ে রংপুর চিলমারী পর্যন্ত সাতটি ফ্রন্টে বিভক্ত হয়ে কাদের সিদ্দিকী দীর্ঘ ২২ মাস যাবৎ প্রতিরোধ যুদ্ধ চালিয়ে যান। এই প্রতিরোধ যুদ্ধে নিহত হন ১০৪ জন মুজিব প্রেমী যোদ্ধা। নিহতদের মধে যেমন ছিলেন চট্টগ্রামের মৌলভী সৈয়দ, গাইবান্ধার মুন্না, দুলাল দে বিপ্লব, বগুড়ার সারিয়াকান্দির আবদুল খালেক খসরুর মতো সমতলের মানুষেরা, তেমনি ছিলেন ফনেস সাংমা, অ্যালসিন মারাক, সুধীন মারাকরাদের মতো আদিবাসীরা। জাতির পিতার জন্য যাদের আত্মত্যাগ আমাদের বলে দেয়, বাংলাদেশের প্রতিটি কোণে জাতির পিতার প্রতি মানুষের ভালোবাসা ছড়িয়ে আছে।

প্রায় দুই বছর ব্যাপী চলমান সেই প্রতিরোধ যুদ্ধে আহত যোদ্ধার সংখ্যা পাঁচ শতাধিক। এছাড়াও শুধু পিতা মুজিবকে ভালোবাসেন বলে সেনাবাহিনীর অকথ্য নির্যাতন ও জেল-জুলুমের স্বীকার হন অগণিত যোদ্ধা ।

বঙ্গবন্ধু হত্যার প্রতিবাদ করায় মৃতদের তালিকা এখানেই সীমাবদ্ধ নয়। বঙ্গবন্ধু হত্যার প্রতিবাদ করায় ১৯৭৬ সালের ১৮ আগস্ট সেনা অভিযান চালিয়ে মুক্তাগাছার প্রতিবাদী ৫ মুক্তিযোদ্ধা জাবেদ আলী, নিখিল দত্ত, সুবোধ ধর, দিপাল দাস, মফিজ উদ্দিনকে হত্যা করা হয়। সেই অভিযানে বেঁচে যান বিশ্বজিৎ নন্দী নামের এক কিশোর যোদ্ধা। কিন্তু গুরুতর আহত অবস্থায় আটক করা হয় তাঁকে। এরপরই শুরু হয় বিশ্বজিৎ এর দুর্বিষহ জীবন। বঙ্গবন্ধুকে ভালোবাসার অপরাধে ১৯৭৭ সালের ১৮ মে সামরিক আদালতে ফাঁসির দণ্ড দেওয়া হয় ১৯ বছরের তরুণ বিশ্বজিৎকে। ফাঁসির দণ্ড মাথায় নিয়ে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারের কনডেম সেলে ৭ বছর কাটাতে হয় বিশ্বজিৎকে। তবে বিশ্বজিৎ সৌভাগ্যবান। বিশ্বজিৎ এর মুক্তির জন্য বিশ্বব্যাপী আন্দোলন শুরু হয়। ভারতের প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধীসহ প্রভাবশালী বিশ্বনেতারা বিশ্বজিৎকে সমর্থন করেন। এই পরিপ্রেক্ষিতে তৎকালীন সেনা সরকার বিশ্বজিতের ফাঁসি মওকুফ করে তাঁকে যাবজ্জীবন দেয়। পরে ১৯৮৯ সালে তিনি মুক্তি লাভ করেন।

বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের সময় আওয়ামী লীগের অনেক নেতার ভূমিকা বিতর্কিত হলেও সব নেতাই কিন্তু চুপ করে থাকেননি। বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের প্রতিবাদ করেছিলেন আওয়ামী লীগের বর্তমান সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের যার কারণে তাঁকে কারাভোগ করতে হয়। এছাড়া আওয়ামী নেতা আ. লতিফ সিদ্দিকী, বজলুর রহমান, মানু মজুমদারও কারাভোগ করেন।

শুধু রাজনৈতিক নেতারাই নয়, বঙ্গবন্ধুকে ভালোবেসে দীর্ঘ ১০ বছর কারাভোগ করেন শেরপুরের নালিতাবাড়ী উপজেলার কান্দা গ্রামের আজগর আলী, যিনি পরিচয়ে সাধারণ কিন্তু কর্মের দ্বারা অসাধারণ হয়ে উঠেছেন। বঙ্গবন্ধু হত্যার প্রতিশোধ নেওয়ার জন্য দেশের ৮-১০ হাজার প্রতিরোধ যোদ্ধাদের সঙ্গে আজগর আলীও প্রশিক্ষণ নিতে গিয়েছিলেন। এক পর্যায়ে শেরপুরের নকলা উপজেলার ধামনা গ্রামে প্রতিরোধ যোদ্ধার একটি দল গ্রামের একটি বাড়িতে রাতে আশ্রয় নিলে গুপ্তচর মারফত খবর পেয়ে আজগর আলীকে আটক করে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। এরপর কারাবাসই হয় তাঁর নিয়তি।

বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের পর সামরিক জান্তা যাকেই বঙ্গবন্ধুর আদর্শের অনুগামী মনে করেছে তাঁর ওপরই ধরপাকড় চালিয়েছে। এই কারণে বঙ্গবন্ধুর মৃত্যুর পর আওয়ামী লীগ নেতা আবদুর রাজ্জাককে গ্রেপ্তার করা হয়েছিল। আবদুর রাজ্জাক ১৯৭৫ সাল থেকে ১৯৭৮ সাল পর্যন্ত কারাবন্দি ছিলেন। বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের পর গ্রেপ্তার হওয়া ব্যক্তিদের মধ্যে আরও আছেন বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ, শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু ও কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী। বঙ্গবন্ধুর আদর্শে উজ্জীবিত জাতীয় চার নেতা তাজউদ্দীন আহমেদ, সৈয়দ নজরুল ইসলাম, মনসুর আলী ও কামরুজ্জামানকে নিয়েও অস্বস্তি ছিল সামরিক সরকারের। এই কারণেই তাঁদের কারাবন্দী করা হয়, পরবর্তীতে হত্যা করা হয় অন্ধকার কারা প্রকোষ্ঠে।

জাতির পিতার মৃত্যুতে তাঁর সন্তানদের যেমন প্রতিক্রিয়া দেখানোর কথা ছিল বাংলাদেশে তেমনটি দেখা যায়নি একথা সত্যি। কিন্তু এই বিষয়ে সমালোচনা করার আগে মোশতাক, জিয়ার শাসনামলে বাংলাদেশের রাজনৈতিক, সামরিক পরিস্থিতির কথাও আমাদের মাথায় রাখতে হবে। সেই দিনগুলোতে বাংলাদেশে বঙ্গবন্ধু ও আওয়ামী লীগের নাম উচ্চারণ করা নিষিদ্ধ ছিল। বাংলাদেশ পরিণত হয়েছিল মত প্রকাশের স্বাধীনতাহীন এক কারাগারে। বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের পর ঢাকায় কার্ফু জারি করা হয়েছে অসংখ্যবার, রাজপথ দাপিয়ে বেড়িয়েছে সেনাবাহিনী। কিন্তু এমন পরিস্থিতিতেও ’৭৫ এর ১৮ই অক্টোবর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কলাভবন, মধুর ক্যান্টিনসহ পুরো বিশ্ববিদ্যালয় পোস্টার ও দেয়াল লিখনে ভরিয়ে দিয়ে বঙ্গবন্ধু হত্যার প্রতিবাদ জানায় ছাত্র ইউনিয়ন ও ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা৷ এরপর ২০শে অক্টোবর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মধুর ক্যান্টিনের সামনে একটি প্রতিবাদ সমাবেশের আয়োজন করা হয়। তৎকালীন ত্রাসের রাজত্বে এসব প্রতিবাদ-প্রতিরোধ সম্ভব হয়েছিল পিতার প্রতি সন্তানের নিঃস্বার্থ ভালোবাসার কারণেই।

এমনকি ১৯৭৬ সালের ২৩ অক্টোবর বঙ্গবন্ধুর বাসভবনস্থ অফিসের কর্মকর্তা মুহিতুল ইসলাম লালবাগ থানায় বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলা রুজু করতেও গিয়েছিলেন। কিন্তু মামলা নেয়নি ডিউটি অফিসার, বরং অফিসারের হাতে চড় খেয়ে বিদায় নিতে হয় মুহিতুল ইসলামকে। এভাবেই অপমান, নির্যাতন, হত্যা ও জেল-জুলুমের মধ্যে চলতে থাকে বঙ্গবন্ধু হত্যার প্রতিবাদ।

মৃত্যুর ভয় মাথায় নিয়ে যে মুজিব প্রেমীরা ’৭৫ এর ১৫ আগস্টের পর মুজিব হত্যার বিরুদ্ধে প্রতিবাদ-প্রতিরোধ করেছিল, ২০১০ সালের ২৬ জানুয়ারি দিবাগত রাতে বঙ্গবন্ধুর পাঁচ খুনির ফাঁসি কার্যকর করার মাধ্যমে তাঁদের যন্ত্রণার কিছুটা হলেও উপশম করা সম্ভব হয়। কিন্তু বঙ্গবন্ধুর যে খুনিরা এখনো বিশ্বের বিভিন্ন দেশে পালিয়ে আছে তাঁদের দেশে এনে বিচারের সম্মুখীন করা সম্ভব না হলে বাঙালির পিতা হত্যার গ্লানি কখনোই দূর হবে না।


বাংলা ইনসাইডার/এসএইচটি/জেডএ