ঢাকা, মঙ্গলবার, ২০ নভেম্বর ২০১৮, ৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

জাতীয় ঐক্যে যাচ্ছে জাপা?

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১১ সেপ্টেম্বর ২০১৮ মঙ্গলবার, ০২:০৪ পিএম
জাতীয় ঐক্যে যাচ্ছে জাপা?

গণফোরাম নেতা ড. কামাল হোসেন আগামী ২২ সেপ্টেম্বর জাতীয় ঐক্যের ব্যানারে মহাসমাবেশ ডেকেছেন। যুক্তফ্রন্টের সঙ্গে ঐক্যের পরিপ্রেক্ষিতে ওই সমাবেশে জোটটির সব নেতাদের অংশগ্রহণ থাকবে বলে আশা করা হচ্ছে। জানা গেছে, মহাসমাবেশে উপস্থিত থাকবেন যুক্তফ্রন্টের তিন দল বিকল্পধারা বাংলাদেশের সভাপতি ডা. এ কিউ এম বদরুদ্দোজা চৌধুরী, মহাসচিব আবদুল মান্নান, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের (জেএসডি) সভাপতি আ স ম আব্দুর রব, নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না। জাতীয় ঐক্য ও যুক্তফ্রন্ট কোনোটিতেই সরাসরি যুক্ত না থাকলেও মহাসমাবেশে উপস্থিত থাকতে পারেন কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সভাপতি বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী। এরই মধ্যে ড. কামাল তাঁকে মহাসমাবেশে থাকার আমন্ত্রণ জানিয়েছেন।

সম্প্রতি জামাতের কাছ থেকে জাতীয় ঐক্যে যেতে ছাড় পাওয়া বিএনপিও থাকবে জাতীয় ঐক্যের মহাসমাবেশে। জানা গেছে, দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর মহাসমাবেশে উপস্থিত থেকে বিএনপির প্রতিনিধিত্ব করবেন। এছাড়া ২০ দল থেকে কর্নেল (অব.) অলি আহমেদের নেতৃত্বাধীন বাংলাদেশ লিবারেল ডেমোক্র্যাটিক পার্টির (এলডিপি), মেজর জেনারেল (অব.) সৈয়দ মুহম্মদ ইবরাহিমের নেতৃত্বাধীন কল্যাণ পার্টি, ব্যারিস্টার আন্দালিব রহমান পার্থর দল বাংলাদেশ জাতীয় পার্টির (বিজেপি) প্রতিনিধিও জাতীয় ঐক্যের মহাসমাবেশে থাকার সম্ভাবনা আছে।

জাতীয় ঐক্যের মহাসমাবেশে চমক হিসেবে উপস্থিত থাকতে পারেন হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদের জাতীয় পার্টির প্রতিনিধিও। জাতীয় ঐক্যের সঙ্গে জড়িত একাধিক নেতা মহাসমাবেশে জাতীয় পার্টির প্রতিনিধি উপস্থিত থাকার সম্ভাবনার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

নির্ভরযোগ্য সূত্র বলছে, গতকাল সোমবার জাতীয় পার্টির কো-চেয়ারম্যান জি. এম. কাদেরের সঙ্গে জাতীয় ঐক্যের নেতাদের কথা হয়েছে। জি. এম. কাদের বলেছেন, মহাসমাবেশে প্রতিনিধি পাঠানোর বিষয়ে তিনি দলের প্রেসিডেন্ট হু. মু. এরশাদের সঙ্গে আলোচনা করবেন।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, জাতীয় ঐক্যে জাতীয় পার্টির প্রতিনিধির উপস্থিতি বিশেষ গুরুত্বই বহন করবে। হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদের মতোই জাতীয় পার্টি সর্বদা দিক পরিবর্তনশীল একটি দল। যখন যেখানে সুবিধা বেশি সেখানেই তারা এমনও মত অনেক বিশ্লেষকের। তাই সুবিধা বেশি পেলে বর্তমান সঙ্গ ছেড়ে নতুন সঙ্গে যোগ দিতে দলটির সময় লাগবে না বলেই মনে করেন বিশ্লেষকরা। আগামী মাসের শেষেই জাতীয় নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা হবে। তাই ওই সময়ের পরেই জানা যাবে জাতীয় পার্টি কোন পথে যাচ্ছে।


বাংলা ইনসাইডার/জেডএ