ঢাকা, মঙ্গলবার, ২০ নভেম্বর ২০১৮, ৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

ভারত কি আ. লীগের পক্ষেই?

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮ বৃহস্পতিবার, ০৮:০০ পিএম
ভারত কি আ. লীগের পক্ষেই?

বাংলাদেশের আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ভারতের ভূমিকা কি হবে? এটা এখন কোটি টাকার প্রশ্ন। ভারতের ক্ষমতাসীন বিজেপি সরকার কি ২০১৪ সালের কংগ্রেসের মতোই আওয়ামী লীগকে অন্ধভাবে সমর্থন দেবে? নাকি ২০০৭ সালের মতো পরিস্থিতি সৃষ্টির জন্য দ্বৈতনীতি নেবে? এসব প্রশ্ন এখন রাজনৈতিক অঙ্গনে বহুল আলোচিত এবং চর্চিত বিষয়। বিশেষ করে নির্বাচনের আগে আগে ভারতের হাইকমিশনার বদলের ঘটনা নিয়ে নানামুখী আলোচনা চলছে।

বাংলাদেশের রাজনীতিতে ভারতের ভূমিকা এখন প্রত্যক্ষ এবং অপ্রতিরোধ্য। বিএনপির নেতারাও স্বীকার করছেন যে, ভারত যেভাবে চাইবে বাংলাদেশের নির্বাচন সেভাবেই হবে। ভারতের সঙ্গে ঘনিষ্ঠ কয়েকজন বিএনপি নেতা স্পষ্ট করেই বলেছেন, ‘বিজেপি সরকার ২০১৪’র মতো ঘটনা বাংলাদেশে ঘটতে দেবে না।’ বিএনপির একজন নেতা মনে করেন, ‘আওয়ামী লীগ অতিমাত্রায় ভারত নির্ভর হয়ে পড়েছে। এটা তাদের জন্য সমস্যা হতে পারে। আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিষয়ে একজন গবেষক বলেছেন, আওয়ামী লীগ সরকারের সময় ভারতের সঙ্গে সম্পর্ক নতুন মাত্রা পেয়েছে। বিশেষ করে বিচ্ছিন্নতাবাদীদের ব্যাপারে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দৃঢ় অবস্থান, ভারতের সব রাজনৈতিক দলের সম্মান এবং প্রশংসা অর্জন করেছে। কিন্তু ভারত বাংলাদেশে অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন চায়। আর যাই হোক, ২০১৪’র মতো নির্বাচন ভারত চায় না।’

তবে, আওয়ামী লীগের নেতারাও স্পষ্ট করেই বলছেন, ‘২০১৪’র মতো নির্বাচন আওয়ামী লীগও চায় না।’ আওয়ামী লীগের প্রায় সব নেতাই বলছেন, ‘আগামী নির্বাচন হবে সকল দলের অংশগ্রহণে। বিএনপিও সেই নির্বাচনে অংশ নেবে।’

নির্বাচনে অংশগ্রহণের লক্ষ্য থেকেই বিএনপির নেতারা ভারতের সঙ্গে যোগাযোগ বাড়িয়েছে। কিন্তু বিএনপি নেতারাই বলছেন, ‘ভারতের কাছ থেকে বিএনপি কোনো সুখবর পায়নি।‘ ভারত বিএনপিকে স্পষ্ট করে জানিয়ে দিয়েছে তারেক জিয়া এবং জামাতকে বাদ দিয়ে এলেই বিএনপির সঙ্গে তাঁরা কথা বলবে। কিন্তু এই দুই বিষয়ে বিএনপি নেতারা সিদ্ধান্ত নিতে পারেনি। তাই আর যাই হোক, ভারত বাংলাদেশে এমন নির্বাচন করতে সহায়তা দেবে না যে নির্বাচনে বিএনপির ক্ষমতায় আসার সম্ভাবনা আছে, এমনটাই মত রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের।

রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা মনে করছেন, ২০১৮’র নির্বাচনে আর যাই হোক বিএনপির ক্ষমতায় আসার কোনো সম্ভাবনা নেই।

সহজ-সরল হিসেবে, বিএনপির যদি ক্ষমতায় আসার সম্ভাবনা না থাকে তাহরে আওয়ামী লীগের তৃতীয়বার জয়ের সম্ভাবনা উজ্জ্বল হয়। কিন্তু সব সময়ই এটা তেমন নয়। ভারত দীর্ঘদিন ধরেই বাংলাদেশে একটি সেক্যুলার তৃতীয় শক্তির উত্থান চেয়েছে। এ জন্যই আওয়ামী লীগ নেতা  প্রয়াত আবদুর রাজ্জাককে দিয়ে ‘বাকশাল’ গঠন করানো হয়েছিল। এরশাদের সঙ্গেও ভারতের সম্পর্কের খবর কোনো গোপন বিষয় নয়। ২০০৭ সালে, মাইনাস ফর্মুলাতেও ভারতের সায় ছিল। এখন ড. কামাল হোসেন এবং অধ্যাপক বদরুদ্দোজা চৌধুরীর জাতীয় ঐক্যের ব্যাপারেও ভারতের একটি অংশের প্রচ্ছন্ন সমর্থন রয়েছে। এটা কি আওয়ামী লীগকে ভয় দেখানোর জন্য? নাকি বিএনপিকে জামাত থেকে আলাদা করার জন্য? অথবা ভারত এমন কোনো রাজনৈতিক কৌশল নিয়েছে যা সবাইকে চমকে দেবে?

বাংলা ইনসাইডার/জেডএ