ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২১ মার্চ ২০১৯, ৭ চৈত্র ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

আ. লীগ সতর্ক, উদ্বিগ্ন নয়

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮ রবিবার, ০৮:০০ পিএম
আ. লীগ সতর্ক, উদ্বিগ্ন নয়

আওয়ামী লীগ জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়া নিয়ে উদ্বিগ্ন নয়। আওয়ামী লীগের অধিকাংশ নেতারাই বরং মনে করছেন জাতীয় ঐক্য দেশকে নির্বাচনমুখী করবে। অংশগ্রহণমূলক নির্বাচনের পথ উন্মুক্ত করবে। আওয়ামী লীগের শীর্ষস্থানীয় একাধিক নেতার সঙ্গে কথা বলে এই ধারণা পাওয়া গেছে। আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের ইতিমধ্যে দলের কর্মীদের নির্দেশ দিয়েছেন যে জাতীয় ঐক্যের কর্মসূচিতে যেন বাধা না দেওয়া হয়। কক্সবাজারের জনসংযোগরত আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের টেলিফোনে বলেন, ‘আমি আশা করি, নতুন জোট আগামী নির্বাচনে অংশ নেবে। দেশে একটি অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন হবে।’ তবে ওবায়দুল কাদের এটিকে জাতীয় ঐক্য বলতে রাজি নন। তাঁর মতে, ‘বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ দেশের বৃহত্তম রাজনৈতিক দল, সবচেয়ে জনপ্রিয় দল। আওয়ামী লীগকে বাদ দিয়ে দেশে জাতীয় ঐক্য হয় কীভাবে?’ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘তাঁরা যদি নির্বাচনের জন্য ঐক্য করে তাহলে ভালো। তবে যদি ষড়যন্ত্রের চেষ্টা করে তাহলে জনগণই তা প্রতিহত করবে।’

আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য বেগম মতিয়া চৌধুরী অবশ্য মনে করেন, ‘এই জোট বাংলাদেশের জনগণ এবং রাজনীতিতে কোনো প্রভাব ফেলতে পারবে না।’ তাঁর মতে ডুবন্ত মানুষ যেমন বাঁচার জন্যে খড়কুটোর আশ্রয় ন্যায়, তেমনি ডুবন্ত বিএনপি বাঁচার জন্যে কিছু পরিত্যক্ত এবং বাতিল রাজনীতিবিদদের ঘাড়ে চড়েছেন।’ মতিয়া চৌধুরী বলেন, ‘দেখেন নির্বাচন পর্যন্ত এই ঐক্য কতটুক থাকে।’ তিনি বলেন, ‘ক্ষমতার লোভে কিছু উন্মত্ত মানুষের আর্তনাদ হলো এই জোট। যাদের কোনো আদর্শ নেই।’

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল-আলম হানিফ বলেন, ‘এখনই এই জোট নিয়ে মন্তব্য করার সময় হয় নাই। দেখি আসলে কি হয়? তিনি বলেন, ‘এখনো কি জোট হয়েছে।’ তবে তিনি বলেন, ‘নির্বাচনকে সামনে রেখে নানা রকম জোট হচ্ছে। এটা ভালো লক্ষণ। আমরাও চাই একটা অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন হোক। অবশ্য এই ঐক্য কি বেগম জিয়া এবং তারেক জিয়াকে বাঁচানোর চেষ্টা কি না সেটি দেখার বিষয়।’

আওয়ামী লীগের দায়িত্বশীল সূত্রগুলো বলছে, আওয়ামী লীগ জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়াকে সতর্কতার সঙ্গে পর্যবেক্ষণ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। আওয়ামী লীগের একজন প্রভাবশালী নেতা, নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেছেন, ‘এই জোটের পিছনে বিদেশি শক্তির মদদ আছে। ড. কামাল হোসেন তাদের মদদেই প্রকাশ্য হয়েছে।’ ঐ নেতা মনে করেন ‘এই জোটের কোনো সুনির্দিষ্ট কর্মসূচিও নেই। তাই নির্বাচন করতে না নির্বাচন বানচালের জন্য সেটিই দেখার বিষয়।’

এসব কারণেই আওয়ামী লীগ এই নতুন ঐক্য প্রক্রিয়াকে আরও গভীর ভাবে পর্যবেক্ষণের পক্ষপাতী। আওয়ামী লীগ আগামী ৩০ সেপ্টেম্বরের পর জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়া কি করে তা আগে দেখতে চায়। অবশ্য, আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতারা বলছেন, ঐক্য প্রক্রিয়া ভাঙতে সময় লাগবে না। জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়ার মধ্যেই ভাঙনের বীজ লুকিয়ে আছে।

বাংলা ইনসাইডার/জেডএ